পাংশায় পদ্মা নদী থেকে টিউবয়েল মিস্ত্রির বস্তাবন্দি অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ২:৫২ অপরাহ্ণ ,১ নভেম্বর, ২০১৪ | আপডেট: ৩:১৭ অপরাহ্ণ ,১ নভেম্বর, ২০১৪
পিকচার

মোক্তার হোসেন : নিখোঁজের ২৬ দিন পর গত শুক্রবার সকালে রাজবাড়ী জেলার পাংশা উপজেলার হাবাসপুর ইউপির পদ্মা নদীর শাহ মীরপুর ঘাটের অদূরে নদী থেকে আইয়ুব আলী প্রামানিক (৫৫) নামের এক ব্যক্তির বস্তাবন্দি অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে পাংশা থানা পুলিশ। সে শাহ মীরপুর গ্রামের মৃত সাকেন আলী প্রামানিকের ছেলে। সে পেশায় একজন টিউবয়েল মিস্ত্রি।

জানা গেছে, পারিবারিক কলহের কারণে টিউবয়েল মিস্ত্রি আইয়ুব আলী প্রামানিক গত ৫ অক্টোবর সকালে (পবিত্র ঈদুল আযহার আগের দিন) পরিবারের কাউকে কিছু না জানিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। এরপর সে আর বাড়ী ফেরেনি। পর দিন ঈদের দিনেও বাড়িতে না ফেরায় আত্মীয় স্বজনসহ পরিচিতিজনদের বাড়িতে খোঁজা-খুঁজি করেন তার পরিবারের লোকজন। এক পর্যায়ে নিখোজ আইয়ুব আলী প্রামানিকের স্ত্রী আলেয়া বেগম স্বামীর সন্ধানে কবিরাজের কাছে ধর্না দেয়। তারপরও তার কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে পিতার নিখোঁজের ঘটনায় আইয়ুব আলীর ছোট ছেলে আলিম গত ২২ অক্টোবর পাংশা থানায় একটি জিডি করে দায়ের করে। যার নম্বর ৬৫৬। জিডির বিষয়ে তথ্যানুসন্ধান চালাতে থাকেন পাংশা থানার এসআই নজরুল ইসলাম । এরই পর্যায়ে গত বৃহস্পতিবার রাতে স্থানীয় জেলেরা পদ্মা নদীতে মাছ শিকারে গেলে তাদের জালে বস্তাবন্দি লাশ উঠে আসে। সকালে খবর পেয়ে পাংশা থানার ওসি মোহাম্মদ আবুল বাশার মিয়ার নেতৃত্বে থানা পুলিশ পদ্মা নদীর শাহ মীরপুর ঘাটের অদূরে নদী থেকে বস্তা বন্দি অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেন। এসআই নজরুল ইসলাম নিহতের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করেন। নিহতের পরিবার লাশ সনাক্ত করেন। নদী থেকে লাশ তুলে নৌকা যোগে পদ্মাপাড়ে আনা হলে শত শত নারী-পুরুষ মৃতদেহ দেখতে সেখানে ভিড় জমায়।

নিহতের স্ত্রী আলেয়া বেগম জানায়, তার পৈত্রিক বাড়ি পাবনার মালিথিয়া গ্রামে। দারিদ্রতার মধ্যেই তাদের বিয়ে হয়েছে। ছোট বেলায় শ্বশুর শ্বাশুড়ী স্বামী আইয়ুব আলী প্রামানিকের নামে আধমন চাল ও ১টি খাসি মানোত দেওয়ার কথা বলেছিল। কিন্তু মানোত দেওয়া হয়নি। দাম্পত্য জীবনে তাদের দুই ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। ছেলে মেয়ে সবারই বিয়ে হয়েছে। ছোট ছেলে আলিমের বিয়ে হয়েছে শাহ মীরপুর নিজ গ্রামেই এবং বড় ছেলে আমিরুলের বিয়ে হয়েছে হাবাসপুর ইউপির লক্ষ্মীপুর গ্রামে। তারা সেখানেই বসবাস করছে। বাড়ির জায়গা জমি নিয়ে ছোট ভাইদের সাথে স্বামী আইয়ুব আলীর মনোমালিন্য রয়েছে। স্থানীয় লোকজন জানায়, নিরীহ আইয়ুব আলী পারিবারিক কলহের শিকার।

পাংশা থানার ওসি মোহাম্মদ আবুল বাশার মিয়া জানান, টিউবয়েল মিস্ত্রি আইয়ুব আলী প্রামানিককে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করে লাশ বালুভর্তি বস্তায় বেঁধে পদ্মানদীতে ফেলে দেয় দুর্বৃত্তরা। ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তারে পুলিশি তৎপরতা চলছে।

 

 

আপডেট : শনিবার নভেম্বর ০১,২০১৪/ ‌০২:৪৮ পিএম/ আশিক

 


এই নিউজটি 1867 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments