পাংশায় টিউবয়েল মিস্ত্রী আইয়ুব আলী হত্যা মামলায় আদালতে স্ত্রী-পুত্রের স্বীকারোক্তি

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ১০:৫০ পূর্বাহ্ণ ,৩ নভেম্বর, ২০১৪ | আপডেট: ১০:৫০ পূর্বাহ্ণ ,৩ নভেম্বর, ২০১৪
পিকচার

মোক্তার হোসেন : রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার হাবাসপুর ইউপির শাহমীরপুর গ্রামে টিউবয়েল মিস্ত্রী আইয়ুব আলী প্রামানিক (৬০) হত্যা মামলায় নিহতের স্ত্রী আলেয়া বেগম ও ছেলে মোঃ আলিম আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছে। মোঃ আলিম গত শনিবার ও আলেয়া বেগম গতকাল রোববার রাজবাড়ীর বিজ্ঞ আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছে।

জানা গেছে, টিউবয়েল মিস্ত্রি আইয়ুব আলী প্রামানিককে হত্যার বিষয়ে গত শনিবার নিহতের ছোট ভাই চাঁদ আলী বাদি হয়ে পাংশা থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রেক্ষিতে ওই দিনই সকালে নিহতের পুত্র মোঃ আলিমকে গ্রেপ্তার করেন পাংশা থানা পুলিশ। থানায় পুলিশের কাছে পিতা আইয়ুব আলী প্রামানিককে নিজ হাতে হত্যা করে লাশ বস্তায় ভরে নদীতে ফেলে দেওয়ার চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রদান করে সে এবং তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশ নিহতের স্ত্রী আলেয়া বেগমকেও গ্রেপ্তার করে। শনিবার দুপুরে আলিমকে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরন করলে সে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে। পরবর্তীতে গতকাল রোববার সকালে নিহতের স্ত্রী আলেয়া বেগমকে আদালতে প্রেরন করলে সেও স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছে।

আদালতে আলিম ও তার মাতা আলেয়া বেগমের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদানের বিষয়টি নিশ্চিত করে পাংশা থানার ওসি মোহাম্মদ আবুল বাশার মিয়া জানান, গত শুক্রবার সকালে শাহমীরপুরে পদ্মা নদী থেকে বস্তাবন্দি আইয়ুব আলী প্রামানিকের লাশ উদ্ধারের পর ঘটনার নেপথ্য উদঘাটনসহ জড়িতদের গ্রেপ্তারে তৎপরতা চালানো হয়। লাশ উদ্ধারের ২৪ ঘন্টার মধ্যে হত্যাকান্ডের চাঞ্চল্যকর তথ্য উদঘাটনসহ ঘটনার মূল নায়ক নিহতের ছোট ছেলে আলিমকে আটক করা হয়। থানায় পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে পিতা আইয়ুব আলী প্রামানিক হত্যার দায় স্বীকার করে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানালে নিহতের স্ত্রী আলেয়া বেগমকেও গ্রেপ্তার করা হয়। উভয়ই বিজ্ঞ আদালতে ঘটনার বিষয়ে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে বিস্তারিত তথ্য দিয়েছে। আদালতে প্রদানকৃত তাদের জবানবন্দি অনুযায়ী ঘটনার সাথে জড়িত অপরাপর আসামীদের গ্রেপ্তারে পুলিশি তৎপরতা অব্যাহত আছে বলেও জানান তিনি।

 

 

আপডেট : সোমবার নভেম্বর ০৩,২০১৪/ ‌১০:৪৮ এএম/ আশিক

 


এই নিউজটি 1152 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments