গোয়ালন্দে ব্রি-৬২ ধানের বাম্পার ফলন : কৃষকদের মাঝে ব্যাপক সাড়া

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ৯:১৭ অপরাহ্ণ ,৩ নভেম্বর, ২০১৪ | আপডেট: ৯:২৯ অপরাহ্ণ ,৩ নভেম্বর, ২০১৪
পিকচার

স্টাফ রিপোর্টার : রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলায় পরীক্ষামূলক ভাবে নতুন উদ্ভাবিত জিংক সমৃদ্ধ ব্রি-৬২ ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। ফলে কৃষকদের মাঝে এ ধান চাষ ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনষ্টিউট কর্তৃক একর প্রতি ৪০ মন ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও একর প্রতি ৫০ মনের উপরে ফলন হয়েছে। সংশ্লিষ্টদের দাবি, বাংলাদেশ রাইস রিসার্চ ইনস্টিটিউট (ব্রি) উদ্ভাবিত এ ধানের আবাদ বাংলাদেশে এটাই প্রথম। ২০১৩ সালে বাণিজ্যিকভাবে নতুন জাতের এ ধানের চাষের অনুমতি দেয় জাতীয় বীজ বোর্ড।

উপজেলার ছোটভাকলা ইউনিয়নের কদমতলী ও নলডুবি মাঠ পরিদর্শনে গেলে ঐ এলাকার কৃষক তমছের শেখ,বাচ্ছু শেখ,ইসমাইল মোল্লা, সাইদুল ও আইজদ্দিন মোল্লা জানায়, আমাদের জমিতে নতুন ধানের ভাল ফলন হয়েছে। এ ধানের ভাত খুবই সুস্বাধু। ভাত রান্না করতেও কম জ্বালানী খরচ হয়।

তারা সদ্য কর্তন করা জমির ধান মাড়াইয়ের পর ওজন দিয়ে হিসাব করে দেখেন ১ একর জমিতে প্রায় ৫০-৫৪ মন পর্যন্ত ধান উৎপাদন হয়েছে। গোয়ালন্দ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) প্রতাব মন্ডল, উপসহকারী কর্মকর্তা মঞ্জুর হোসেনসহ অন্যান্য কৃষি কর্মকর্তাগণ এসময় উপস্থিত ছিলেন।SAMSUNG DIGIMAX A503

প্রতাব মন্ডল,মঞ্জুর হোসেন ও স্থানীরা কৃষকরা জানান, বীজতলায় বীজ ফেলা থেকে শুরু করে ধান কাটা পর্যন্ত সর্বোচ্চ ১০০ দিন সময় লাগে। বীজতলা থেকে ১৫-২০ দিনের মধ্যে জমিতে চারা রোপন করতে হয়। জিংক সমৃদ্ধ এই ধানের ভাত শিশু ও প্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য খুবই কার্যকর ভুমিকা পালন করে। স্বল্প সময়ের মধ্যে এই ধান কৃষকের ঘরে তোলার পর কৃষকরা জমিতে সহজে রবি শস্য আবাদ করতে পারবে।

এসময় উপস্থিত অন্যান্য কৃষকরা এই ধানের ফলন ও গুনাগুন দেখে অধিক পরিমানে এ ধান চাষের আগ্রহ প্রকাশ করেন।

 

 

আপডেট : সোমবার নভেম্বর ০৩,২০১৪/ ‌০৯:১৬ পিএম/ আশিক

 


এই নিউজটি 1138 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments