কালুখালী উপজেলার মাঝবাড়ী ইউপির কুলটিয়া প্রাইমারী স্কুলের গাছ খেকো সভাপতির বিরুদ্ধে থানায় মামলা

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ১:১০ অপরাহ্ণ ,৮ এপ্রিল, ২০১৪ | আপডেট: ১:১০ অপরাহ্ণ ,৮ এপ্রিল, ২০১৪
পিকচার

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজবাড়ী জেলার কালুখালী উপজেলার মাঝবাড়ী ইউনিয়নের ১৭নং কুলটিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের গাছ কেটে বিক্রির ঘটনায় অবশেষে গত ৬ এপ্রিল মামলা হয়েছে।

বিদ্যালয়ের  ম্যানেজিং কমিটির সদস্য লোকমান হোসেন বাদী হয়ে এ মামলাটি দায়ের করে। মামলায় বিদ্যালয়ের সভাপতি হারুনুর রশিদ (৪৭)কে আসামী করা হয়েছে। হারুনুর রশিদ কালুখালী উপজেলার কুষ্টিয়া পাড়া গ্রামের মৃত আয়ুব আলীর পুত্র। এর আগে এ ঘটনায় দৈনিক মাতৃকন্ঠ পত্রিকাসহ একাধিক পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়।

মামলা সুত্রে প্রকাশ, ১৭নং কুলটিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি হারুনুর রশিদ গত ২২ জানুয়ারী সকাল ৮টার দিকে ম্যানেজিং কমিটিকে না জানিয়ে এবং শিক্ষক মন্ডলীর সাথে পরামর্শ না করে গোপনে ১টি খেজুর গাছ, ১টি পাকর গাছ, ১টি ডুমুর গাছ ও ৩টি লাটিম গাছ কেটে বিক্রি করে। যার মূল্য ২০হাজার টাকা। এ বিষয়ে বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক বিশ্বজিৎ সাহাসহ অন্যান্য শিক্ষকরা তার কাছে জানতে চাইলে সে উত্তেজিত হয়ে তাদেরকে গালিগালাজ করে এবং কালুখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ এরশাদ হোসেন খানের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে গাছগুলো কেটেছে বলে জানায়। এরপর ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা ও শিক্ষকরা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে গেলে তিনি অনুমতি দেননি বলে জানায়।

এ ঘটনার পর স্কুলের প্রধান শিক্ষক বিশ্বজিৎ সাহা গত ২৩ জানুয়ারী উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। এছাড়াও গত ২৬ জানুয়ারী ম্যানেজিং কমিটির সভায় রেজুলেশনের মাধ্যমে সভাপতি হারুনুর রশিদের বিরুদ্ধে গাছ কেটে বিক্রি, গালিগালাজ, এমপি কর্তৃক প্রদত্ত ১টন টি.আরের চাল উত্তোলন ও বিক্রি করে ৫হাজার টাকা আত্মসাত(শহীদ মিনার সংস্কারের জন্য), ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষক প্রতিনিধি হরিপদ দাসের মোটর সাইকেল ছিনতাই ও তার বাড়ী পুড়িয়ে দেয়া এবং তার অসৎ মিথ্যাচার ও সেচ্চাচারিতার কারণে সর্বসম্মতিভাবে ঘৃনা ও অনাস্থা পাস করা হয়।

কালুখালী থানার মামলা নং-২, তাং-৬/৪/২০১৪, ধারাঃ ৩৭৯/৫০৬ দঃবিঃ। এ রিপোর্ট লেখা পর্যনত্ম হারুনুর রশিদ গ্রেফতার হয়নি।


এই নিউজটি 1537 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments