শেখ মুজিবুর রহমানের প্রথম প্রধানমন্ত্রীত্বের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন তারেক রহমান

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ৮:৩৫ পূর্বাহ্ণ ,৯ এপ্রিল, ২০১৪ | আপডেট: ৯:১৭ পূর্বাহ্ণ ,৯ এপ্রিল, ২০১৪
পিকচার

rajbarinews24.comলন্ডন ডেস্ক : শেখ মুজিবুর রহমানের প্রথম প্রধানমন্ত্রীত্বের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন বিএনপি’র সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান। তিনি প্রশ্ন রাখেন, শেখ মুজিবুর রহমান যদি প্রথম রাষ্ট্রপতি হন তাহলে দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তিনি কেন আবার প্রধানমন্ত্রী হলেন। মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় কেন্দ্রীয় লন্ডনের ওয়েষ্টমিনিষ্টার হলে যুক্তরাজ্য বিএনপি আয়োজিত এক ‘সুশীল’ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তারেক রহমান, শেখ মুজিবুর রহমানের  সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীত্ব গ্রহনের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে বলেন, মুক্তিযুদ্ধকালীন অস্থায়ী সরকারের পক্ষ থেকে দেশের সংবিধান তৈরীর পর সরকার গঠনের কথা বলা হলেও দেশে ফিরে এসে সংবিধান তৈরীর আগেই জোড় করে শেখ মুজিব প্রধানমন্ত্রীত্ব দখল করেন, যেভাবে বর্তমানে তাঁর কন্যা দখল করেছেন এই পদ। এসময় পাকিস্থানী পাসপোর্ট নিয়ে শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের সমালোচনা করে তারেক রহমান বলেন, পাকিস্থানী পাসপোর্ট ছাড়া কি দেশে ফেরা যেতনা? আসলে শেখ মুজিব বাংলাদেশের স্বাধীনতা চাননি, এমন মন্তব্য এসময় আবারও করেন তারেক। তিনি বলেন শেখ মুজিব ছিলেন বাংলাদেশের প্রথম অবৈধ প্রধানমন্ত্রী, আর তাঁর কন্যা হলেন আজকের অবৈধ প্রধানমন্ত্রী। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানই বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি ও স্বাধীনতার ঘোষক উল্লেখ করে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান বলেছেন, ইতিহাস জানতে হলে, বেশী করে ইতিহাস অধ্যয়ন করতে হবে। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও তার মন্ত্রী-এমপিরা কোন যুক্তি দাঁড় করাতে না পেরে বক্তব্যের বিরোধিতা করছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় যুক্তরাজ্য বিএনপির উদ্যোগে লন্ডনের ঐতিহাসিক ওয়েস্ট মিনিস্টার সেন্ট্রাল হলে আয়োজিত সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তারেক রহমান বলেন, স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান তার প্রমাণ আওয়ামীলীগের রাজনীতিবিদ ও বুদ্ধিজীবিদের বক্তব্য ও লেখা বইতেও রয়েছে। এসময় তিনি আওয়ামীলীগের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, সেক্টর কমান্ডার কেএম শফিউল্লাহ, সংবিধান বিশেষজ্ঞ ড. কামাল হোসেনসহ আওয়ামীলীগ নেতা ও বুদ্ধিজীবিদের লেখা বই থেকে বিভিন্ন তথ্য ও দলিল সমাবেশে উপস্থাপন করেন। বর্তমান সরকারকে অবৈধ উল্লেখ করে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, বর্তমান সরকার ও মন্ত্রীসভা অবৈধ। তাদের কথার কোন যুক্তিকতা নেই। তিনি বলেন,বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও তার নেতা-কর্মীরা কেবল ইতিহাসের এ সত্যকে নিয়ে সমালোচনা করছে। আমার বক্তব্যের পর তারা এখনো পর্যন্ত তাদের কথার স্বপক্ষে কোন সঠিক তথ্য বা প্রমাণ উপস্থাপন করতে পারেনি। স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় শেখ মুজিবুর রহমানের ভূমিকার সমালোচনা করে তারেক রহমান বলেন, ৭ ই মার্চের আগে ফ্রান্স টিভিকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে শেখ মুজিবুর রহমান ঐ সাংবাদিককে বলেছিলেন তিনি দেশের স্বাধীনতা চান না,

1 (402)তিনি স্বায়ত্ত শাসন চান। এছাড়া তাজউদ্দিন আহমদও শেখ মুজিবুর রহমানকে ৭ মার্চের আগে স্বাধীনতার একটি ঘোষণাপত্র পাঠের কথা বলেছিলেন কিন্তু তিনি তা ঘোষণায় অস্বীকৃতি জানান। শেখ মুজিব তাজউদ্দিনকে বলেন এটা করা হলে তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হতে পারে। বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান এসময় প্রজেক্টরের মাধ্যমে ফ্রান্স টিভিকে দেয়া সাক্ষাতকারের ভিডিওটি সমাবেশে প্রর্দশন করেন। এছাড়া জিয়াউর রহমানই যে প্রথম প্রেসিডেন্ট ছিলেন এর স্বপক্ষে দেশী-বিদেশী ঐতিহাসিক, রাজনীতিবিদ ও লেখকদের বিভিন্ন প্রামাণ্য দলিল সমাবেশে উপস্থাপন করেন। তারেক রহমান বলেন, শেখ মুজিবুর রহমান যখন ১৯৭২ সালে পাকিস্তান থেকে ফিরে আসেন, তখন পাকিস্তানের পাসপোর্ট সাথে ছিলো। দেশে এসে তিনি নিজেকে প্রধানমন্ত্রী দাবি করেন। এটা অবৈধ ছিলো। সমাবেশের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি শাইসত্মা চৌধুরী কুদ্দুস। শাখার সাধারণ সম্পাদক কয়সর আহমদের পরিচালনায় সুধী সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাহিদুর রহমান, নিউহাম কাউন্সিলের কাউন্সিলর আয়েশা চৌধুরী, টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের ডেপুটি মেয়র অহিদ আহমদ, বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক ডা: ফিরোজ মাহবুব কামাল, বৃটিশ বাংলাদেশি সাবেক সিনিয়র সিভিল সার্জেন্ট লুৎফুর রহমান আলী, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ড. হাসনাত হোসেইন (এমবিই), বৃটিশ বাংলাদেশ চেম্বারের সাবেক সভাপতি মুকিম আহমেদ, বিশিষ্ট কমিউনিটি নেতা ও সাংবাদিক কে এম আবু তাহের চৌধুরী, কার্ডিফ ইউনিভার্সিটির প্রাক্তন অধ্যাপক ড. এম এ মালিক, বৃটিশ বাংলাদেশ চেম্বারের সাবেক সভাপতি অধ্যাপক শাহগীর ভক্ত ফারুক, বাংলাদেশ ওলামা-মাশায়েখ যুক্তরাজ্যের সভাপতি মাওলানা শামসুল হক, লেবার পার্টির এমপি প্রার্থী ব্যারিস্টার আনোয়ার বাবুল মিয়া, প্রমুখ।IMG_3017


এই নিউজটি 2257 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments

More News from বিশ্বজুড়ে