পাংশায় ভাইস চেয়ারম্যান নাদের মুন্সী হত্যা মামলায় দু’সপ্তাহে ৫জন গ্রেপ্তার

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ১:০৮ অপরাহ্ণ ,৪ ডিসেম্বর, ২০১৪ | আপডেট: ১:০৮ অপরাহ্ণ ,৪ ডিসেম্বর, ২০১৪
পিকচার

মোক্তার হোসেন : রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও জেলা কৃষক লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নাদের মুন্সীকে গুলি করে হত্যা ঘটনার নেপথ্য নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে। থানা পুলিশ এ মামলায় গত দু’ সপ্তাহে পৃথক অভিযান চালিয়ে ৫জন আসামীকে গ্রেপ্তার করেছেন।

গ্রেপ্তারকৃত হলেন, কাচারীপাড়া গ্রামের আনিছুর রহমান, সেলিম হোসেন, ইউসুফ হোসেন ওরফে জটা, আনছার মুন্সী ও রঘুনন্দপুর গ্রামের ফারুক বিশ্বাস। এদের মধ্যে আনছিুর রহমান, সেলিম হোসেন ও ফারুক বিশ্বাস এজাহারভুক্ত আসামী। ইউসুফ হোসেন জটা ও আনছার মুন্সী এ মামলার সন্দিগ্ধ আসামী। ধৃত আসামীরা বর্তমানে রাজবাড়ী জেল হাজতে আটক রয়েছেন।

জানা গেছে, নাদের মুন্সী ছিলেন অত্র এলাকার আওয়ামী লীগের একজন ত্যাগী নেতা। প্রকাশ্য দিবালোকে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীর গুলিতে তার মৃত্যু যেন কেউই মেনে নিতে পারছেন না। এই নির্মম ঘটনার নেপথ্য কি? এমন প্রশ্ন সবার মাঝে ঘুরপাক খাচ্ছে।

স্থানীয় লোকজন জানায়, নাদের মুন্সীকে ২১ নভেম্বর সকালে প্রকাশ্য দিবালোকে গুলি করার ঘটনার পরপরই ঘটনার নায়ক হিসেবে মনজু মিয়ার নাম লোকমুখে আলোচিত হয়। মনজু মিয়া হাবাসপুর ইউপির ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাচারীপাড়া গ্রামের বাসিন্দা মতিয়ার মিয়ার ছেলে। মনজু মিয়া কয়েক মাস আগে সংঘটিত হাবাসপুর ইউপির গঙ্গানন্দদিয়া গ্রামের রং মিস্ত্রি সাগর সরদার (২৫) হত্যা মামলারও এজাহার নামীয় আসামী। পাংশা থানা মামলা নং ১৫, তারিখ ২৬/৫/১৪, ধারা ৩০২/৩৪ দঃবিঃ। এ মামলাটি বর্তমানে সিআইডি তদন্ত করছে বলে জানা গেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় লোকজন জানায়, মনজু মিয়ার বিরুদ্ধে ওই মামলা হওয়ার কারণে সে আড়ে আবডালে চলাফেরা করত। কাচারীপাড়া বাজারে তাকে খুব একটা দেখা যেতো না।

প্রসঙ্গত, গত ২১ নভেম্বর সকাল পৌনে ৮টার দিকে ভাইস চেয়ারম্যান নাদের মুন্সী কাচারীপাড়া নিজ গ্রামের বাড়ি থেকে সঙ্গীয় চরআফড়া গ্রামের আবুল কাশেমসহ ১টি মোটর সাইকেল যোগে পাংশা শহরের উদ্দেশ্যে রওনা হলে কাচারীপাড়া বাজারের অনুমান ১শ’ গজ দক্ষিণে পাকা সড়কের উপর অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী মনজু মিয়ার ছুড়া গুলিতে গুরুতর আহত হন নাদের মুন্সী। একটি গুলি তার চোয়ালে ও অপর গুলি তার পেটে বিদ্ধ হয়। তার মোটর সাইকেল চালক কাশেম গুরুতর আহত অবস্থায় নাদের মুন্সীকে দ্রুত পাংশা হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে। সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। রাত সাড়ে ১২টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থার তার মৃত্য হয়।

এ ঘটনায় নিহত ভাইস চেয়ারম্যান নাদের মুন্সীর বড় ভাই বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালেক মুন্সী বাদী হয়ে স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক কাচারীপাড়া গ্রামের বাসিন্দা মতিয়ার মিয়ার ছেলে মনজুর মিয়াকে প্রধান আসামী করে এজাহারনামীয় ১০জনসহ অজ্ঞাতনামা আরো ৫/৬জনকে আসামী করে পাংশা থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ১৭, তারিখ ২৩/১১/২০১৪, ধারা ৩০২/৩৪ পেনাল কোড।
পাংশা থানার ওসি মোহাম্মদ আবুল বাশার মিয়া মামলাটি তদন্ত করছেন। তিনি জানান, মামলার এজাহারনামীয় ১০ আসামির মধ্যে ৩জনসহ সন্দিগ্ধ ২জন মোট ৫জন আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অপর আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশি তৎপরতা চলছে।

 

 

আপডেট : বৃহস্পতিবার ডিসেম্বর ৪,২০১৪/ ০১:০৫ পিএম/ আশিক

 


এই নিউজটি 1037 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments