গোয়ালন্দ ঘাট থানার ২ দারোগার বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ১২:৪৩ অপরাহ্ণ ,৯ এপ্রিল, ২০১৪ | আপডেট: ১২:৪৩ অপরাহ্ণ ,৯ এপ্রিল, ২০১৪
পিকচার

নিজস্ব প্রতিবেদক : গোয়ালন্দ ঘাট থানার সাবেক ২ দারোগার বিরুদ্ধে পুলিশ কর্মকর্তা কর্তৃক তদন্ত শুরু হয়েছে। এস আই ফিরোজ আহম্মদ এর বিরুদ্ধে গ্রেফতার বানিজ্য তদন্ত গত মঙ্গলবার রাজবাড়ী জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ তোফাজ্জেল হোসেন তদন্ত দায়িত্বভার গ্রহণ করে তদন্ত শুরু করেছেন। গোয়ালন্দ উপজেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি মোঃ নুরুল ইসলাম শিকদার এস আই ফিরোজ এর বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগ বর্ননা করেন। এস আই ফিরোজ দূর্নীতির অভিযোগে ৩ বার বদলী হয়ে থানা থেকে সিসি নেওয়ার পরও রহস্য জনক কারনে পুনরায় থানায় যোগদান করেন। গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি মোঃ আবুল বাশার জানান গত ৭এপ্রিল এস আই ফিরোজ কে পুলিশের ট্রেনিং সেন্টার এপিবিএম বদলী হয়ে থানা থেকে বিদায় নিয়েছেন। অপরদিকে এ এস আই মোতাহার এর বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ রয়েছে। রাজবাড়ী পুলিশ লাইন এলাকায় রাজবাড়ী ট্রাফিক ইন্সিপেকটার মোঃ শহীদুর রহমান কাগজ পত্র বিহীন মটর সাইকেল আটক করে মামলা দায়ের করে।  এ ঘটনায়  এএস আই মোতাহার রাজবাড়ী ডিবি পুলিশের পরিচয় দিয়ে কাগজ বিহীন মটর সাইকেল চালকের পক্ষ নিয়ে টিআই শহীদুল ইসলামের সাথে অসৌজন্য মূলক আচরন করেন। এঘটনার পর রাজবাড়ী পুলিশ সুপারের নিকট লিখিত অভিযোগ দায়ের পর গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি মোঃ জহিরুল ইসলাম এর নিকট তদন্ত দেওয়া হয়। গোয়ালন্দ মোড়ে ট্রাক বন্দোবসত্মকারী অফিস (দালাল অফিস) এ তদন্ত শুরু হয়। পুলিশের বিরুদ্ধে পুলিশ কর্তৃক তদন্ত নিয়ে এলাকায় নানাবিধ গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। এ এসআই মোতাহারের বিরুদ্ধে তদন্ত করতে জহুরুল ইসলাম ঐ এ এসআই মোতাহারের অনটেস্ট মটর সাইকেলে চড়ে ঘটনার তদন্তস্থলে যায় এবং একই সঙ্গে ঐ মটরসাইকেলে চড়ে রাজবাড়ীর বিরানী হাউসে গিয়ে বিকালে ভোজন শেষে একত্রে রাজবাড়ীর বিরানী হাউসস্থল ত্যাগ করেন। এ ঘটনার পর এএসআই মোতাহার হোসেন জানান, তাকে রাজবাড়ী জেলা থেকে টাঙ্গাইল জেলায় বদলী করা হয়েছে।


এই নিউজটি 1514 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments