,

রাজবাড়ীতে বঙ্গবন্ধু-বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত

স্টাফ রিপোর্টার : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের রাজবাড়ী জেলা পর্যায়ের পৃথক ২টি ফাইনাল ম্যাচ ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান গতকাল ২২ ডিসেম্বর বিকেলে কাজী হেদায়েত হোসেন স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়।

জমজমাট ফাইনাল ম্যাচ ২টির মধ্যে ছেলেদের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনালে পাংশা উপজেলার বহলাডাঙ্গা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৪-০ গোলের ব্যবধানে গোয়ালন্দ উপজেলার পূর্ব তেনাপঁচা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়কে এবং মেয়েদের বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনালে গোয়ালন্দের বাহাদুরপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ট্রাইব্রেকারে ৩-২ গোলের ব্যবধানে পাংশা উপজেলার বিলচত্রা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়কে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে।

পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য ও সরকারী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী। জেলা প্রশাসক ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি মোঃ রফিকুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে পুলিশ সুপার তাপতুন নাসরীন এবং সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাডঃ এম.এ খালেক বক্তব্য রাখেন

স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ ফজলুল হক। অন্যান্যের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন রাজবাড়ীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সোনামনি চাকমা এবং জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শফি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শিশুদের নিয়ে চিন্তা করতেন। নেপথ্যে থেকে তাঁকে সর্বতোভাবে সহযোগিতা করতেন তাঁর সুযোগ্য সহধর্মিনী ফজিলাতুন্নেছা মুজিব। তাদের সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাও শিশু বান্ধব। তিনিও শিশুদের সুকুমারবৃত্তিগুলো বিকাশে সদা তৎপর রয়েছেন। শিশুদের নিয়ে বহুমুখী কার্যক্রমের ধারাবাহিকতায় তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট ২টি চালু করেছেন। এই টুর্নামেন্টের উদ্দেশ্য তৃণমূল থেকে ফুটবলার খুঁজে বের করা। শিশুদেরকে খেলাধুলার প্রতি আগ্রহী করে তোলা। তিনি সফলভাবে টুর্নামেন্টটি আয়োজন করায় আয়োজকদের ধন্যবাদ জানান।

সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক মোঃ রফিকুল ইসলাম খান বলেন, শিশুদের শারিরীক ও মানসিক বিকাশে লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলার গুরুত্ব অপরিসীম। খেলাধুলার মধ্যে ফুটবলের মতো শরীর ঘামানো খেলা আরো ফলদায়ক। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সমগ্র দেশের প্রান্তিক পর্যায় থেকে খুদে ফুটবলার খুঁজে বের করার জন্য টুর্নামেন্টটির প্রচলন করেছেন। ইউনিয়ন, উপজেলার পর জেলা পর্যায়ের খেলা সম্পন্ন হলো। এরপর রয়েছে আঞ্চলিক, বিভাগীয় ও জাতীয় পর্যায়ের খেলা। সাঁতারের মতো রাজবাড়ীর কোমলমতি ছেলেমেয়েরা ফুটবলেও সুনাম অর্জন করবে, এই প্রত্যাশা করছি। যে কোন খেলাধুলা কিংবা টুর্নামেন্ট আয়োজনের ক্ষেত্রে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করা হবে। তিনি কোমলমতি শিশুদের ভালভাবে লেখাপড়ার পাশাপাশি নিয়মিত খেলাধুলার আহবান জানান।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পুলিশ সুপার তাপতুন নাসরীন শিশুদের উদ্দেশ্যে বলেন, এক্সট্রা কারিকুলাম এক্টিভিটিস তোমাদেরকে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে সহায়তা করবে। তোমাদের মধ্য থেকেই একদিন মেসি-রোনালদো বের হয়ে আসবে।

আলোচনা শেষে সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী, জেলা প্রশাসক মোঃ রফিকুল ইসলাম খান এবং পুলিশ সুপার তাপতুন নাসরীনসহ অন্যান্য অতিথিগণ টুর্নামেন্ট ২টির চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স আপ দলগুলোর মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন।

অনুষ্ঠানে কালেক্টরেটের ও শিক্ষা বিভাগের কর্মকর্তাগণ এবং প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মন্ডলী ও এসএমসি’র কর্মকর্তাগণসহ বিপুল সংখ্যক দর্শক অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

 

 

আপডেট : মঙ্গলবার ডিসেম্বর ২৩,২০১৪/ ১১:৪০ এএম/ আশিক

 

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর