রাজবাড়ীতে মীর মশাররফ হোসেনের নামে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবিতে মানবন্ধন

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ১:১৫ অপরাহ্ণ ,১৩ জানুয়ারি, ২০১৫ | আপডেট: ১:২৬ অপরাহ্ণ ,১৩ জানুয়ারি, ২০১৫
পিকচার

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলা সাহিত্যের অন্যতম দিকপাল, ঊনবিংশ শতাব্দীর সর্বশ্রেষ্ঠ মুসলিম সাহিত্যিক, কালজয়ী উপন্যাস বিষাদ সিন্ধু রচয়িতা রাজবাড়ীর কৃতি সন্তান মীর মশাররফ হোসেনের নামে বালিয়াকান্দির পদমদীতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবিতে আজ মঙ্গলবার সকালে বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের উদ্যোগে রাজবাড়ীতে মানবন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়েছে।

রাজবাড়ী প্রেসক্লাবের সামনে ঘন্টাব্যাপী এ মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য রাখেন, রাজবাড়ী ডিবেট এসাসিয়েশনের সভাপতি মেজবাহ উল করিম রিন্টু,জেলা সনাক প্রতিনিধি মো.আবু সায়েদ শওকত,জেলা উদিচী শিল্পীগোষ্ঠীর সাধারন সম্পাদক আজিজুল হাসান খোকা,স্বদেশ নাট্যাঙ্গনের সহ-সভাপতি অজয় দাস তালুকদার,প্রথম আলোর রাজবাড়ী প্রতিনিধি এজাজ আহমেদ,জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি সুমন বিশ্বাস,মিরুনা বানু মুন প্রমুখ ।

বক্তারা বলেন, ২০১৩ সালে যখন দেশব্যাপী চরম নৈরাজ্য বিরাজ করছিলো তখন পারষ্পারিক শ্রদ্ধা, শুদ্ধতা ও শান্তির চর্চায় নিবেদিত রাজবাড়ী জেলাবাসী স্থাপন করেছে সামাজিক শান্তির এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। কিন্তু সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড এ জেলাকে ততটা স্পর্শ করেনি। আজ পর্যন্ত এ জেলায় কোন উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠিত হয়নি। তাই আমরা রাজবাড়ী জেলার সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনসমূহ একত্রিত হয়ে রাজবাড়ীর কৃতি সন্তান মীর মশাররফ হোসেনের নামে বালিয়াকান্দির পদমদীতে একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবি জানিয়ে আসছি।

বক্তারা গণমাধ্যমকর্মীদের মাধ্যমে মীর মশাররফ হোসেনের নামে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী, মাননীয় সংস্কৃতি বিষয়কমন্ত্রী ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যানের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

উল্লেখ্য, রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার পদমদী স্টেটে মীর মশাররফ হোসেনের জ্ঞাতি ভাই নবাব মীর মহম্মদ আলী বালিয়াকান্দির পদমদীতে শিক্ষা ও সামাজিক প্রতিষ্ঠান স্থাপনের জন্য ১০৩ একর জায়গা ওয়াক্ফ করে গেছেন। রাজবাড়ীবাসী তাদের রেখে যাওয়া সম্পত্তিতে মীর মশাররফ হোসেন বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করার দাবিতে দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন কর্মসুচি পালন করে আসছে।

 

আপডেট : মঙ্গলবার জানুয়ারী ১৩,২০১৫/ ০১:১৫ পিএম/ তামান্না


এই নিউজটি 937 বার পড়া হয়েছে
[fbcomments"]