যৌতুক লোভী স্বামী ও শ্বশুর বাড়ীর লোকজনের অমানুষিক নির্যাতনে ঘরছাড়া আনোয়ারা খাতুন

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ১১:২২ অপরাহ্ণ ,২২ জানুয়ারি, ২০১৫ | আপডেট: ১১:২৩ অপরাহ্ণ ,২২ জানুয়ারি, ২০১৫
পিকচার

স্টাফ রিপোর্টার : পিতার বাড়ী থেকে যৌতুকের টাকা এনে না দেওয়ায় যৌতুক লোভী স্বামী ও শ্বশুর বাড়ীর লোকজনের অমানুষিক নির্যাতনে ঘরছাড়া হয়ে পিতার বাড়ীতে চরম মানেবতর জীবনযাপন করছে রাজবাড়ীর পাংশা উপজেলার মেঘনা খামারপাড়া গ্রামের মোছা: আনোয়ারা খাতুন। শেষ পর্যন্ত উপায় না পেয়ে স্বামী ও শ্বশুর বাড়ীর লোকজনের বিরুদ্ধে রাজবাড়ী নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে মামলা দায়ের করেছে সে।

মামলা সূত্রে প্রকাশ, গত ২/২/২০১১ তরিখে কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলার গোপগ্রামের আ:ছালাম শেখের ছেলে মো:বাবু শেখের সাথে পাংশা উপজেলার মেঘনা খামারপাড়া গ্রামের আ:বারেক মন্ডলের মেয়ে মোছা: আনোয়ারা খাতুনের বিয়ে হয়। তাদের ঘরে একটি প্রতিবন্ধী কন্যা সন্তান রয়েছে। গত ১০মাস আগে স্বামী ও শ্বশুর বাড়ীর লোকজন আনোয়ারাকে তার পিত্রালয় থেকে যৌতুক আনার জন্য বিভিন্নভাবে শারীরীক ও মানষিক নির্যাতন করে। এতেও যৌতুক আনতে অস্বীকৃতি জানালে স্বামী ও শ্বশুর বাড়ীর লোকজন আনোয়ারাকে অমানুষিক নির্যাতন করে পিত্রালয়ে পাঠিয়ে দেয়। তারপর থেকে ১০মাসের অধিক সময় আনোয়ারা তার পিত্রালয়ে অসহায় অবস্থায় বসবাস করছে।

গত ১৪জানুয়ারী দুপুর ১২টার দিকে বাবু শেখ,তার ভাই সুমন শেখ ও পিতা ছালাম শেখ আনোয়ারার পিত্রালয়ে এসে আনোয়ারাকে তাদের সাথে নিয়ে যাওয়ার শর্তে ৫০হাজার টাকা যৌতুক দাবী করে। এসময় আনোয়ারা ও তার মা ফিরোজা খাতুন উল্লেখিতদের দাবীকৃত টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে আনোয়ারাকে বেধরক মারধর করতে থাকে। এসময় আনোয়ারা ও তার মা ফিরোজা খাতুনের চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে এসে আনোয়ারাকে রক্ষা করে গুরুতর আহত অবস্থায় পাংশা উপজেলা স্বস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এ ঘটনায় আনোয়ারা উপায় না পেয়ে গত ২০জানুয়ারী স্বামী বাবু শেখ,দেবর সুমন শেখ ও শ্বশুর ছালাম শেখের বিরুদ্ধে রাজবাড়ী নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে মামলাটি দায়ের করে।

 

 

আপডেট : বৃহস্পতিবার জানুয়ারী ২২,২০১৫/ ১১:১৫ পিএম/ তামান্না

 


এই নিউজটি 962 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments