সৈয়দপুরের অপহৃত স্কুল ছাত্র দৌলতদিয়ায় উদ্ধার

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ১২:০৬ অপরাহ্ণ ,৬ মে, ২০১৫ | আপডেট: ১২:০৬ অপরাহ্ণ ,৬ মে, ২০১৫
পিকচার

স্টাফ রিপোর্টার : নীলফামারীর সৈয়দপুর থেকে অপহৃত হওয়া সাজু নামের এক স্কুল ছাত্রকে মঙ্গলবার (৫ মে) দুপুরে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ক্যানালঘাট থেকে উদ্ধার করেছে স্থানীয় লোকজন। পরে তাকে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশের হেফাজতে দেয়া হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, গতকাল মঙ্গলবার দুপুর দেড়টার দিকে দৌলতদিয়া মডেল হাই স্কুলের সামনে রেললাইনে বসে কাঁদতে দেখে ছেলেটিকে উদ্ধার করে বিদ্যালয়ের আয়া রুবি আক্তার। শিশুটিকে ক্লান্ত দেখে তিনি বাড়ীতে নিয়ে গোসল করিয়ে বিদ্যালয়ে নিয়ে আসে। শিশুটি শিক্ষকদের জানায়, তার বাড়ী নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের লক্ষ্মণপুর চড়ক পাড়া গ্রামে। সেখানে নানা নজরুল কোরআনীর বাড়ীতে থেকে লেখাপড়া পড়ে। গত সোমবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে স্কুলে যাওয়ার পথে মাইক্রোবাস থামিয়ে কালা চশমা পড়া ৩/৪জন অজ্ঞাত ব্যক্তি তাকে কাছে ডেকে পরিচয় জানাতে চেয়ে বিস্কুট খেতে দেয়। না খেলে তাকে জোরপূর্বক গাড়ীতে তুলে বিস্কুট মুখে দিলে অচেতন হয়ে পড়ে। এরপর মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে বারোটার দিকে জ্ঞান ফিরে আসলে সে নিজেকে ট্রেনের মধ্যে দেখতে পায়। ট্রেন থেকে নেমে কাঁদতে কাঁদতে আসতে থাকলে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে বিদ্যালয়ে নিয়ে আসে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ শহিদুল ইসলাম জানান, আয়া রুবি আক্তার শিশুটিকে পাওয়ার পর তাকে দেখিয়ে তার বাড়ীতে নিয়ে গোসল শেষে বিদ্যালয়ে নিয়ে আসে। বিষয়টি থানা পুলিশকে জানানো হয়।

শিশুটি আরো জানায়, সে সৈয়দপুর লক্ষ্মণপুর স্কুল এন্ড কলেজের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর যমুনা শাখার ছাত্র। তার বাবার নাম মোঃ মঞ্জুরুল ইসলাম। তিনি পুলিশের একজন এস.আই। মাকে রেখে তার বাবা আরেকটি বিয়ে করায় ঢাকায় থাকে। তার মা অন্যত্র বিয়ে করায় সে নানা বাড়ী থেকেই পড়ালেখা করছে।

শিশুটির নানী আঞ্জুমান আরা জানান, সাজু গত শুক্রবার বাড়ী থেকে বের হয়ে যায়। মাঝে মধ্যে বাবার কাছে যায় বলে আমরা তেমন খুঁজিনি। বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ ও স্থানীয় ইউপি সদস্যের মাধ্যমে জানতে পারলাম সে অপহৃত হয়েছে।

স্থানীয় ৫নং ওয়ার্ড সদস্য সাইদুল হক বাবলু জানান, সাজুর বাবা একজন পুলিশের এস.আই। তিনি কোন থানায় আছেন জানানেই। সাজুর মায়ের ছাড়াছাড়ি হওয়ার পর বাবা আরেকটি বিয়ে করে ঢাকায় রয়েছে। মাও অন্যত্র বিয়ে করেছেন। সাজু নানা বাড়ী থেকে পড়ালেখা করলেও মাঝেমধ্যে বাবার কাছেও চলে যায়।

গোয়ালন্দঘাট থানার এস.আই মোঃ আতিয়ার রহমান সাংবাদিকদের জানান, শিশুটিকে থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে। তার পরিবারকে খবর দেয়া হয়েছে। তারা আসলেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

 


এই নিউজটি 743 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments