,

গোয়ালন্দে ছাত্রলীগ নেতা পলাশ হত্যাকারীরা অধরা

News

গোয়ালন্দ প্রতিনিধি : রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে ছাত্রলীগ নেতা শরীফুজ্জামান পলাশ হত্যার এক মাস পেরিয়ে গেলেও হত্যাকারীদের কাউকে এখনো পর্যন্ত গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। হত্যাকারীদের দ্রুত খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনতে না পারার জন্য পুলিশের দুর্বল তদন্তকেই দায়ী করছে নিহতের পরিবার ও এলাকাবাসী।

জানা যায়, গোয়ালন্দের জয়েনদ্দিন সরদারপাড়া গ্রামের এ বি সিদ্দিক বেপারি ওরফে সিদ্দিক মহুরির ছেলে শরীফুজ্জামান পলাশ (৩০) স্থানীয় উজানচর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। পাশের দরাপেরডাঙ্গি গ্রামের তমেজউদ্দিন শেখের ছেলে ও স্থানীয় উজানচর ইউনিয়ন যুবলীগের নেতা জিন্দার আলী শেখের (৩৩) সঙ্গে পলাশের পূর্বশত্রুতা ছিল। এর জের ধরে গত ২১ এপ্রিল সকালে জিন্দার আলীর নেতৃত্বে একদল দুর্বৃত্ত পলাশকে রামদা ও চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। ঘটনার পরদিন সন্ধ্যায় নিহতের মা ছখিনা বেগম বাদী হয়ে জিন্দার আলী শেখকে প্রধান আসামি করে গোয়ালন্দঘাট থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মামলার এজাহারভুক্ত অন্য আসামিরা হলেন আব্দুল জব্বার, আতিয়ার শেখ, নান্নু শেখ, জহুরুল শেখ, মারফত, পাষান ও আউয়াল সরদার। তাঁদের বাড়ি উপজেলার দরাপেরডাঙ্গি গ্রামে। তাঁরা সবাই পলাতক।

এদিকে পুলিশ আসামীদের আইনের আওতায় আনতে না পারায় হতাশ হয়ে পড়েছে ভুক্তভোগী পরিবারসহ সচেতন এলাকাবাসী। এ জন্য পুলিশের দুর্বল তদন্তকে দায়ী করেছে তারা।

পলাশের মা ছখিনা বেগম বলেন, ‘জিন্দার ও তার লোকেরা প্রকাশ্যে আমার ছেলেকে কুপিয়ে মেরেছে। অথচ ঘটনার এক মাস পার হলেও পুলিশ এ পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি। এতে দিন দিন আমি অনেকটা হতাশ হয়ে পড়ছি। মামলার আসামিদের দ্রুত গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই আমি।’

গোয়ালন্দ উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মো. ইউনুছ মোল্লা বলেন, ‘দুর্বল তদন্তের পাশাপাশি থানা পুলিশের গাফিলতির কারণে পলাশ হত্যা মামলার কোনো আসামী এখনো পর্যন্ত গ্রেফতার হয়নি।

অভিযোগ অস্বীকার করে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোয়ালন্দঘাট থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আতিয়ার রহমান বলেন, ‘চাঞ্চল্যকর পলাশ হত্যা মামলাটির দ্রুত তদন্তকাজ চলছে। পাশাপাশি আসামীদের গ্রেফতার করতে মাঠপর্যায়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে পুলিশ।’

 

 

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর