স্বাগত মাহে রমজান

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ১২:৩৭ পূর্বাহ্ণ ,১৯ জুন, ২০১৫ | আপডেট: ১২:৩৭ পূর্বাহ্ণ ,১৯ জুন, ২০১৫
পিকচার

অনলাইন ডেস্ক : চাঁদ দেখা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয়েছে সিয়াম সাধনার মাস রমজান। ভোগবিলাস, অপচয় এবং অসংযমের অকল্যাণকর পথ থেকে মানুষকে দূরে থাকার শিক্ষা দেয় এ মাস। সত্য ও মিথ্যার পার্থক্য রচনাকারী পবিত্র কোরআন নাজিল হয় এ মহিমান্বিত মাসে। আত্মসংযমের মাধ্যমে বিশ্বাসীরা যাতে ইন্দ্রিয় ও আত্মিক উভয়দিক থেকে সর্বশক্তিমান আল্লাহর সন্তুষ্টি বিধানে নিয়োজিত হয় সে উদ্দেশে সব সুস্থ ও সাবালক নর-নারীর জন্য সিয়াম সাধনাকে অবশ্য পালনীয় এবাদত হিসেবে নির্ধারণ করা হয়েছে। এ পবিত্র মাসে বিশ্বাসী মানুষ যা কিছু অকল্যাণকর তা পরিত্যাগ করে মহান আল্লাহর সান্নিধ্য লাভের প্রয়াস পায়। আত্মসংযমের মহিমামণ্ডিত হওয়ার যে শিক্ষা দেয় রমজান মাস সে শিক্ষাকে লঙ্ঘন করে এ মাসকে কেউ কেউ অসংযম ও লোভ-লালসা পূরণের সুযোগ হিসেবে বেছে নেয়। সিয়াম সাধনায় নিয়োজিত বিশ্বাসী মানুষের জন্য বিড়ম্বনা সৃষ্টি করে তাদের অসংযত মনোভাব।

রমজান মাসে নিত্যপণ্যের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে রোজাদারদের কষ্টের মুখে ঠেলে দেওয়া সামাজিক দৃষ্টিতে যেমন গর্হিত, তেমনি ধর্মীয় দিক থেকেও অপরাধ হিসেবে বিবেচিত। রমজানে যারা নিত্যপণ্যের মূল্য বাড়ানোর সুযোগ হিসেবে বেছে নেয় তাদের কর্মকাণ্ড কোনোভাবেই ধর্মীয় শিক্ষার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। এ গর্হিত কর্মকাণ্ড দমন সরকারের কর্তব্য বলে বিবেচিত হওয়া উচিত। প্রশাসন এক্ষেত্রে কতটা কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারবে তার ওপর রোজাদারদের স্বস্তি যে