,

সর্বশেষ :
সুষ্ঠু নির্বাচন হলে রাজবাড়ী-১ আসন পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হবো : অ্যাড. খালেক রাজবাড়ী-১ আসনে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী অ্যাড. আসলাম মিয়ার গণসংযোগ রাজবাড়ী-১ আসনের জন্য আ’লীগের মনোনয়ন ফরম নিলেন ইমদাদুল হক বিশ্বাস রাজবাড়ীতে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন রাজবাড়ীতে এসএসসি পরীক্ষার্থীকে কুপিয়ে জখম রাজবাড়ী-১ আসনের জন্য আ’লীগের মনোনয়ন ফরম নিলেন আশরাফুল ইসলাম রাজবাড়ী-১ আসনের জন্য জাতীয় পার্টির মনোনয়ন ফরম নিলেন মিল্টন প্রত্যেকটি মানুষের ঘরে শান্তি পৌঁছে দেওয়া হবে : রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার রাজবাড়ীতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ চরমপন্থি নেতা নিহত রাজবাড়ীতে বিএনপি’র ২৭ নেতাকর্মী কারাগারে

আর্জেন্টিনার স্বপ্ন গুঁড়িয়ে টাইব্রেকারে চিলির শিরোপা

News

সার্জিও রোমেরোকে স্রেফ বোকা বানালেন অ্যালেক্সিস সানচেজ। শট ঠেকাবেন বলে বাঁয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন রোমেরো। কিন্তু সানচেজ শটটা নিলেন দেরিতে। আলতো শটে সোজা বরাবর পাঠিয়ে দিলেন জালে। ভাগ্যও যেন আরও একবার বোকা বানাল আর্জেন্টিনাকে। ২২ বছরের অপেক্ষা ঘুচল না। টাইব্রেকারে ৪-১ গোলে আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে কোপা আমেরিকার শিরোপা জিতল চিলি।
এটাই চিলির প্রথম কোনো বড় শিরোপা। ৯৯ বছরের অপেক্ষা ঘুচল তাদের। আর্জেন্টিনার সম্ভাবনাময় আর প্রতিভায় ঠাসা দলটা আরও একবার ধাঁধার উত্তর মেলাতে ব্যর্থ। আর চিলির সোনালি প্রজন্ম ঠিকই স্বাগতিক দর্শকদের এনে দিল বহু আরাধ্যের একটা ট্রফি। আন্তর্জাতিক ফুটবলের সবচেয়ে পুরনো ট্রফি।

মাঠে রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে দুই দল সমানে সমান লড়লেও ‘ভাগ্য পরীক্ষার’ সময়টাতে চরম ব্যর্থ আর্জেন্টিনা। পেনাল্টি শুটআউটে ৪-১ গোলের এই হারে মেসি-তেভেস-আগুয়েরো-দি মারিয়াদের প্রজন্মকে এখন পর্যন্ত ট্রফিশূন্যই থাকতে হলো। অথচ গত বিশ্বকাপের ফাইনালে জার্মানির কাছে হারার পর দক্ষিণ আমেরিকার মহাদেশীয় শ্রেষ্ঠত্বের এই প্রতিযোগিতার শিরোপা জেতার খুব কাছে এসে পড়েছিল মেসির দল।

শনিবার সান্তিয়াগোর জাতীয় স্টেডিয়ামে নির্ধারিত সময়ের খেলা গোলশূন্য থাকার পর অতিরিক্ত সময়েও গোল হয়নি। টাইব্রেকারে খেলা গড়ালে গনসালো হিগুয়াইন ও এভার বানেগার ব্যর্থতায় শিরোপা স্বপ্ন ভাঙে জেরার্দো মার্তিনোর দলের।

টাইব্রেকারের প্রথম পেনাল্টি কিকে চিলির মাতিয়াস ফের্নান্দেস জোরাল শটে ওপরের বাঁ কোনা নিয়ে বল জালে জড়ান। আর্জেন্টিনার প্রথম পেনাল্টি কিক নেন মেসি; ডান দিক দিয়ে নিচু শটে বল জালে জড়ান তিনি।

আর্তুরো ভিদালের পরের শটে হাত লাগিয়েও ফেরাতে পারেননি আর্জেন্টিনার গোলরক্ষক সের্হিও রোমেরো। আর্জেন্টিনার দ্বিতীয় স্পট কিকটি হিগুয়াইন মেরে দেন ক্রসবারের অনেক ওপর দিয়ে।

চিলির চার্লস আরানগিস তৃতীয় পেনাল্টি থেকে অনায়াসে গোল করেন। আর আর্জেন্টিনার এভার বানেগার দুর্বল পেনাল্টি কিক ব্রাভো ঠেকিয়ে দিলে জয় প্রায় নিশ্চিত হয়ে যায় চিলির।

রোমেরোকে বোকা বানিয়ে সানচেসের বুদ্ধিদীপ্ত পেনান্টি কিক থেকে বল ধীরে ধীরে জালে পৌঁছলে শিরোপা নিশ্চিত হয় এর আগে চার বার ফাইনালে উঠেও শূন্য হাতে ফেরা চিলির।

এর আগে মাঠের মূল লড়াইয়ে গ্যালারি ভরা ভক্তদের সমর্থন নিয়ে শুরু থেকে আর্জেন্টিনার ওপর চাপ তৈরি করে স্বাগতিকরা। তবে মেসি জাদুতে প্রথম সুযোগটি তৈরি করে অতিথিরাই। আর্জেন্টিনা অধিনায়কের পাসে একটুর জন্য বল নাগালে পাননি ছুটে আসা সের্হিও আগুয়েরো।

গতি দিয়ে আর্জেন্টিনাকে পরাস্ত করার পরিকল্পনা ছিল চিলির। মার্কোস রোহো, নিকোলাস ওতামেন্দিদের চ্যালেঞ্জ জানিয়ে বিপজ্জনকভাবে প্রতিপক্ষের রক্ষণ সীমায় ঢুকে যাচ্ছিলেন স্বাগতিক খেলোয়াড়রা। কিন্তু ডি-বক্সে গিয়ে সব এলোমেলো হয়ে যাচ্ছিল এদুয়ার্দো ভারগাস, হোর্হে ভালদিভিয়া, আর্তুরো ভিদালদের। বেশিরভাগ শট লক্ষ্যে রাখতে পারেননি তারা।

১৯তম মিনিটে বিপজ্জনক জায়গায় ফ্রি-কিক পায় আর্জেন্টিনা। মেসির শটে হেড করেছিলেন আগুয়েরো, বল জালে যাওয়ার মুহূর্তে স্বাগতিকদের বাঁচান গোলরক্ষক ব্রাভো।

সেমি-ফাইনালে জোড়া গোল করা আনহেল দি মারিয়াকে আধ ঘণ্টার মধ্যে হারায় দুই বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট পাওয়া দি মারিয়ার জায়গায় নামেন এসেকিয়েল লাভেস্সি।

প্রথমার্ধের একেবারে শেষ দিকে একটি করে সুযোগ আসে চিলি-আর্জেন্টিনার সামনে। ডি-বক্স থেকে দুর্বল শট নিয়ে আলেক্সিস সানচেস দারুণ একটি আক্রমণ নষ্ট করেন। এর পরপরই ডি-বক্স থেকে লাভেস্সির জোরালো শট ঠেকান ব্রাভো।

দ্বিতীয়ার্ধেও আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণ চলে শুরু থেকে। ৬৬তম মিনিটে পাল্টা-আক্রমণ থেকে সানচেসের নৈপুণ্যে আচমকাই সুযোগ আসে চিলির সামনে। ডি-বক্সে গোল করার মতো জায়গায় ভিদালকে বল পাঠান আর্সেনাল তারকা। কিন্তু একটু দেরি করে নেওয়া ভিদালের শট কোনোমতে ঠেকিয়ে দেন পাবলো সাবালেতা।

৮২তম মিনিটে দারুণ একটি সুযোগ আসে সানচেসের সামনে। অফসাইডের ফাঁদ ভেঙে নেওয়া তার ভলি অল্পের জন্য লক্ষ্যে থাকেনি।

যোগ করা সময়ে মেসি দারুণ এক সুযোগ তৈরি করে দিয়েছিলেন, কিন্তু আর্জেন্টিনাকে শিরোপা এনে দেওয়ার সহজ সুযোগটি নষ্ট করেন বদলি হিসেবে নামা গনসালো হিগুয়াইন। এক খেলোয়াড়কে কাটিয়ে বল নিয়ে এগিয়ে মেসি তা বাড়িয়েছিলেন বাঁয়ে লাভেস্সিকে। তার নিচু ক্রস নাপোলির স্ট্রাইকার হিগুয়াইন একটুর জন্য জালে পাঠাতে পারেননি।

অতিরিক্ত সময়ের প্রথমার্ধের শেষ মিনিটে বল নিয়ে অনেকটা দৌড়ে গিয়েও লক্ষ্যভ্রষ্ট শট নেন সানচেস। বাকি সময়েও কোনো দলই গোল না পাওয়ায় টাইব্রেকারে গড়ায় খেলা। আর তাতেই কোপা আমেরিকার ৯৯ বছরের ইতিহাসে যুক্ত হয় নতুন এক চ্যাম্পিয়নের নাম। ২০০৪ ও ২০০৭ সালের পর আবার কোপা আমেরিকার ফাইনালে হারল আর্জেন্টিনা।

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর