,

অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রীকে গণধর্ষণ : এক ধর্ষক গ্রেফতার

News

স্টাফ রিপোর্টার : রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দেবগ্রাম ইউনিয়নের অম্বলপুর গ্রামের অষ্টম শ্রেণীর এক মাদ্রাসা ছাত্রী গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। এ ঘটনায় ধর্ষিতার ভাই বাদী হয়ে ৪ ধর্ষকের নাম উল্লেখ করে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন। মামলা দায়েরের পর শওকত (১৮) নামে এক ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ওই ছাত্রী গোয়ালন্দ দাখিল মাদ্রাসায় ৮ম শ্রেণীতে পড়ে। গত ৩০ জুলাই গোয়ালন্দ কামরুল ইসলাম কলেজ সরকারী করন উপলক্ষে আনন্দ র‌্যালীতে গোয়ালন্দ দাখিল মাদ্রাসার সকল শিক্ষার্থী অংশ নেয়। অন্য সকল শিক্ষার্থীর সাথে ওই ছাত্রীও র‌্যালীতে অংশ নেয়। র‌্যালীতে যাওয়ার আগে সে রুমা নামের তার এক সহপাঠীর ভাই লিটনের কাছে বই রেখে যায়। র‌্যালী শেষে সে লিটনকে খুঁজে না পেয়ে বই না নিয়েই বাড়ি চলে আসে। গত শনিবার সে বই আনতে লিটনের বাড়ীর উদ্দেশ্যে রওনা হলে পথিমধ্যে পশ্চিম রমজান মাতুব্বার পাড়া এলাকায় তার সাথে লিটনের দেখা হয়। লিটন ওই ছাত্রীকে বই নিয়ে আসছি বলে ওখানে দাঁড় করে রেখে চলে যায়। কিছুক্ষন পর লিটন তার তিন বন্ধু শওকত, কাউছার ও রাজীবকে সাথে নিয়ে এসে ওই ছাত্রীকে মুখ চেপে টেনে-হিচড়ে পাশের পাটক্ষেতে নিয়ে হাত-পা বেঁধে পালাক্রমে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। পরে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় তার গোংড়ানীতে মাঠে কাজ করা কৃষকরা তাকে উদ্ধার করে পরিবারের লোকদের কাছে খবর দেয়।

এ ঘটনার পর ধর্ষিতার ভাই বাদী হয়ে উপজেলার পশ্চিম উজানচর রমজান মাতুব্বার পাড়া গ্রামের মো. আশরাফ খানের শওকত খান(১৮),পশ্চিম উজানচর নবু ওছিমদ্দিন পাড়া গ্রামের ফজলু মোল্লার ছেলে লিটন মোল্লা ওরফে টিটু (২৮), আলম সরদারের ছেলে কাউছার (১৮), পশ্চিম রমজান মাতুব্বারের পাড়া গ্রামের আ. খালেক শেখের ছেলে রাজীব (২৫) কে আসামী করে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি একেএম নাসির উল্যাহ জানান, মামলাটির গুরুত্ব বিবেচনা করে তিনি নিজেই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করছেন। মামলা দায়েরের পরই এক ধর্ষককে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপর ধর্ষকদের গ্রেফতারে বিভিন্ন স্থানে পুলিশি অভিযান অব্যাহত আছে।

এদিকে রবিবার (২ আগষ্ট) ধর্ষিতাকে মেডিকেল টেষ্টের পর আদালতে হাজির করা হলে সে ২২ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করে।

 

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর