জাতীয় সঙ্গীত ও ৭ই মার্চের ভাষণ শুনলে ইমোশনাল হয়ে পড়ি : এসপি জিহাদুল কবির

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ১২:১২ পূর্বাহ্ণ ,১২ আগস্ট, ২০১৫ | আপডেট: ১২:৫৮ পূর্বাহ্ণ ,১২ আগস্ট, ২০১৫
পিকচার

ফকীর আশিকুর রহমান : রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির পিপিএম বলেছেন, জাতীয় সঙ্গীত ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ শুনলে আমি ইমোশনাল হয়ে পড়ি। জাতীয় সঙ্গীত ও ৭ই মার্চের ভাষণ যতবার শুনি ততই শুনতে ইচ্ছা করে।

মঙ্গলবার (১১ আগস্ট) দুপুরে শহরের শেরেবাংলা উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের হল রুমে অনুষ্ঠিত সদর থানা কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের পরিচিতি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

পুলিশ সুপার আরো বলেন, এ আগস্ট মাসে সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করা হয়েছিল। তাই এ মাস শোকের মাস। আমি গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে এবং আরো স্মরণ করছি স্বাধীনতা যুদ্ধে যেসকল পুলিশ সদস্য শহীদ হয়েছিলেন তাদেরকে।

তিনি বলেন, ব্রিটিশ আমলে পুলিশের পোষাক ছিলো খাকি পোষাক। তখনকার খাকি পোষাক পরা পুলিশরা মানুষের উপর নির্যাতন করতো। এছাড়া ৭১সালে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীও খাকি পোশাক পড়ে মানুষের উপর নির্যাতন চালাতো। সে জন্য খাকি পোষাককে মানুষ ঘৃনার চোখে দেখতো। আর এ কারণে মানুষের মনসতান্ত্রিক চিন্তা চেতনা থেকে বেরিয়ে আসার জন্য ২০০৫ সালে পুলিশের বহু বছরের খাকি পোষাক পরিবর্তন করা হয়।

পুলিশ সুপার বলেন, জনগণের সাথে পুলিশের দুরুত্ব কমিয়ে আনার জন্য কমিউনিটি পুলিশিং ফোরাম গঠন করা হয়েছে। আমাদের দেশে জনগণের তুলনায় পুলিশ সদস্যের সংখ্যা কম। দেশের শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ সদস্যরা দিনরাত কাজ করে চলেছে। সেই সাথে আপনারা যারা কমিউনিটি পুলিশের সাথে যুক্ত হলেন তারা যার যার অবস্থান থেকে যদি আমাদের সহযোগীতা করেন তাহলেই সমাজ থেকে সকল প্রকার অন্যায়-অবিচার, মাদক ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ড নির্মূল করা সম্ভব হবে। গত বছর এসএসসি পরীক্ষা চলাকালীন সময় সারাদেশে পেট্রোল বোমা হামলা হয়েছিল। আমি তখন মাগুরায় কর্মরত ছিলাম। সহিংসতা চলার ফলে তখন পুলিশকে সবসময় রাজপথে নিরাপত্তা দিতে হয়েছে। এ কারণে মাগুরার শ্রীপুরে পরীক্ষা কেন্দ্র গুলোতে কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের সদস্যরা নিরাপত্তা দিয়েছিল। যদি শ্রীপুরে এটা সম্ভব হয় তাহলে রাজবাড়ীতেও সম্ভব হবে।

তিনি বলেন, আমি ২০০১ সালে চাকুরীতে যোগদান করি। সেই সময়ে বাংলাদেশ পুলিশের যে অবস্থা দেখেছি এখন তার চেয়ে অনেক অনেক পরিবর্তন দেখতে পাচ্ছি। আগামীতে আরো পরিবর্তন দেখতে পাবো ইনশাল্লাহ। এ জন্য আপনাদের সকলের সার্বিক সহযোগীতা প্রয়োজন।

রাজবাড়ী সদর থানা কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের সভাপতি এসএম নওয়াব আলীর সভাপতিত্বে পরিচিতি সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, রাজবাড়ীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তোফায়েল আহম্মেদ, সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) মো. রবিউল ইসলাম, জেলা কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মো.আবুল হোসেন ও সাধারণসম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আহম্মেদ নিজাম মন্টু। স্বাগত বক্তব্য রাখেন রাজবাড়ী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলাম।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে কাজী হেদায়েত হোসেন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মীর মাহফুজা খাতুন মলি, রাজবাড়ী সদর থানা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও রাজবাড়ী সদর থানা কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের উপদেষ্টা ওয়াহিদুজ্জামান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

এরআগে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনা এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তার পরিবারের সকল শহীদদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে ১ মিনিট নিরবতা পালনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু করা হয়।

 

 


এই নিউজটি 886 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments