রাজবাড়ীতে মুক্তিপন না দেওয়ায় গরু চুরির অভিযোগে কিশোরকে নির্যাতন!

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ৪:৪৯ অপরাহ্ণ ,৩০ আগস্ট, ২০১৫ | আপডেট: ২:১৯ অপরাহ্ণ ,৩১ আগস্ট, ২০১৫
পিকচার

আশিকুর রহমান : প্রথমে বন্ধুত্ব। এরপর অপহরণ করে মুক্তিপন দাবী। শেষে জনতার হাতে ধরা পড়ে অপহরণের দায় এড়াতে গরু চুরির অভিযোগ এনে মধ্যযুগীয় কায়দায় অমানুষিক নির্যাতন। এমনই এক লোমহর্ষক ঘটনার শিকার হয়েছে রাজবাড়ী সদর উপজেলার শহীদওহাবপুর ইউনিয়নের দর্পনারায়নপুর গ্রামের এতিম কিশোর মিজানুর রহমান (১৮)। অপহরণের একদিন পর শনিবার (২৯ আগস্ট) রাত সাড়ে ৭টার দিকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে তাকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

হাসপাতালের বেডে শুয়ে মিজান জানায়, তার বাবা শহীদুর রহমান ওরফে দুলাল গত ৮ বছর আগে মারা গেছেন। এ জন্য সংসারে অভাব থাকায় ২০১৩ সালের এএসসি পরীক্ষার্থী হয়েও পরীক্ষা দিতে পারেনি সে। গত ৪মাস আগে সে রাজবাড়ী শহরের শ্রীপুরস্থ অর্ণব অটো শো-রুম থেকে কিস্তিতে একটি অটোবাইক কিনে চালানো শুরু করে। অটো চালানোর সুবাদে সদর উপজেলার কল্যাণপুর গ্রামের মাহবুব খান (২২), ফরিদ খান (২৩) ও ইমরান খান (২২) এর সাথে তার বন্ধুত্ব তৈরী হয়। গত ২৪ আগস্ট সে অর্ণব শো-রুমের মাধ্যমে তার অটোবাইকটি ৯০ হাজার টাকায় বিক্রি করে দেয়। এ সময় তার ওই তিন বন্ধু তার সাথে ছিলো। গত ২৮ আগস্ট সন্ধ্যায় সে বাড়ী থেকে ফেলুর দোকান বাজারে ঘুড়তে আসলে তার ওই তিন বন্ধু তাকে রিক্সায় উঠতে বলে। কোথায় যাবে জানতে চাইলে তারা জানায় কল্যাণপুর এলাকার আকিমের গরু চুরি হয়েছে গরু খুঁজতে যাবো। এ সময় রিক্সা যোগে যাবার সময় ওই তিনজন মিজানের চোখ বেঁধে তাকে দক্ষিন আলীপুর গ্রামের আদম মামুনের বালুর চাতালে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে মিজানকে আটকে রেখে ওই তিনজনসহ অজ্ঞাত কয়েকজন অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে অটো বিক্রি করা ৯০ হাজার টাকা দাবী করে। টাকা দিতে মিজান অস্বীকার করলে তারা রাতভর মিজানের উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় অমানুষিক নির্যাতন চালায় এবং তার কাছে থাকা নগদ ৭ হাজার টাকা ও তার মোবাইল ফোনটি ছিনিয়ে নেয়। সকালে আশেপাশের লোকজনের মধ্যে জানাজানি হলে নির্যাতনকারীরা অপহরণের দায় এড়াতে মিজানকে গরু চোর সাব্যস্ত করে আবার নির্যাতন চালায়। এ সময় মিজান কৌশলে স্থানীয় এক মহিলার মোবাইলে তার মায়ের ফোন নম্বর উঠিয়ে দিলে ওই মহিলা মিজানের মাকে খবর দেয়। খবর পেয়ে মিজানের মা ও বিআইডাব্লিউটিএ তে কর্মরত দুলাভাই ইব্রাহিম প্রামানিক ঘটনাস্থলে গেলে নির্যাতনকারীরা পালিয়ে যায়। এরপর সেখান থেকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে মিজানকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ছেলের পাশে বসে কান্নাজড়িত কন্ঠে মিজানের মা বলেন, আমার ছেলে কোন দোষ করেনি। ওরা বিনা দোষে আমার ছেলের উপর অমানুষিক নির্যাতন করেছে। আমি এর সুষ্ঠ বিচার চাই। এ বিষয়ে থানায় মামলা করবেন বলেও জানান তিনি।

 

 


এই নিউজটি 744 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments