সজ্জনকান্দায় কলেজ ছাত্র বিপুল হত্যার ঘটনায় মামলা : একজন গ্রেফতার

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ১:৩৩ অপরাহ্ণ ,২৭ অক্টোবর, ২০১৫ | আপডেট: ১:৪২ অপরাহ্ণ ,২৭ অক্টোবর, ২০১৫
পিকচার

স্টাফ রিপোর্টোর : রাজবাড়ী শহরের সজ্জনকান্দায় কলেজ ছাত্র নাজিম উদ্দিন ওরফে বিপুল (২২) হত্যাকান্ডে সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে আঃ মজিদ (২১) নামের এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রবিবার (২৫ অক্টোবর) তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত মজিদ সজ্জনকান্দা দক্ষিনপাড়া গ্রামের মৃত সাবেদ আলী শেখের ছেলে। গত ২৩অক্টোবর রাত সাড়ে ৯টার দিকে বাড়ীর সামনে বিপুলকে ধারালো চাকু দিয়ে আঘাত করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় নিহতের পিতা সজ্জনকান্দা গ্রামের জয়নাল হাওলাদার বাদী হয়ে ৪জনের নাম উল্লেখ করে গত ২৪অক্টোবর সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।

রাজবাড়ী থানার মামলা নং-৩৪, ধারাঃ ৩০২/৩৪দঃবিঃ। মামলার আসামীরা হলো, সজ্জনকান্দা গ্রামের রহমতের ছেলে মিথুন (১৮), একই গ্রামের মৃত তাহেরের ছেলে তৌহিদ (২৫), মুসলিম (৩৫) ও তছলিম (৩০)সহ অজ্ঞাত কয়েকজন।

নিহতের পিতা জয়নাল হাওলাদার জানান, প্রতিবেশী আঃ মজিদের সাথে দীর্ঘদিন ধরে বাড়ীর প্রবেশ পথ নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। আমার বড় ছেলে বিপুল পড়াশুনার পাশাপাশি অটো চালাতো। গত ২৩ অক্টোবর রাত সাড়ে ৮টার দিকে রাজবাড়ী ষ্টেডিয়াম এলাকায় অন্ধকারে অটো নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকাকালে উল্লেখিতরা তাকে মারপিট করে নগদ ৩হাজার টাকা ও একটি মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিয়ে চলে যায়। এরপর সে শ্রীপুর সড়ক ভবনের সামনে অটোগাড়ী চার্জে দিয়ে বাড়ীতে এসে বিস্তারিত জানায়। এ সময় আমি ও তার স্ত্রী বিপুলকে বাড়ীর সামনের রাস্তার দাঁড় করিয়ে মিথুনের বাড়ীতে যাই এবং ঘটনার বিষয়ে জানাই। রাত সাড়ে ৯টার দিকে বাড়ীর সামনের রাস্তায় উল্লেখিতরা বিপুলকে একা পেয়ে ঘিরে ধরে এবং ধারালো চাকু দিয়ে বিপুলের বাম বাহুর নিচে ঠুকিয়ে দেয়। এ সময় সে চিৎকার দিয়ে বাড়ীতে গিয়ে পড়ে যায়। সাথে সাথেই বাড়ীর লোকজন তাকে সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষনা করে।

এ হত্যা মামলার তদন্তকারী অফিসার (ওসি তদন্ত) মোঃ জহুরুল ইসলাম জানান, গ্রেফতারকৃত আঃ মজিদের সাথে বাড়ীর পথ নিয়ে বিপুলের বিরোধ ছিলো। এ বিরোধের জেরে আঃ মজিদ উল্লেখিতদের সাথে যোগসাজস করে এ হত্যাকান্ড ঘটায়। তবে মামলার অন্যান্য আসামীরা এখনো গ্রেফতার হয়নি।

আসামীদের বাড়ী অগ্নিসংযোগ :-

এদিকে এ হত্যার কান্ডের ঘটনায় উত্তেজিত হয়ে গত ২৪ অক্টোবর দুপুর ২টার দিকে এলাকার যুবকরা ও নিহত বিপুল হালদারের সহপাঠির মামলার প্রধান আসামী মিথুন, তছলিম, তৌহিদ ও মুসলিদের বাড়ী ভাংচুরসহ তিনটি টিনের ঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা গিয়ে আগুন নিভিয়ে ফেলে। তবে তার আগেই একটি ঘরের আসবাবপত্রসহ অন্যান্য জিনিস পুড়ে যায়। আসামীদের বাড়ী আগুন দেয়ার খবরে রাজবাড়ীর সহকারী সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল)মোঃ রবিউল ইসলাম এবং সদর থানার অফিসার ইনচার্জ শাহ্ মোঃ আওলাদ হোসেন পিপিএম ঘটনাস্থাল পরিদর্শন করেন।

ঘটনাস্থলে পরিদর্শন গিয়ে এলাকাবাসীর উদ্দেশ্যে সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল মোঃ রবিউল ইসলাম বলেন, সন্ত্রাসীরা রাজবাড়ী সরকারী কলেজের অনার্সের ছাত্র বিপুল হাওলাদারের মত একজন কর্মঠো মেধাবী ছাত্রকে হত্যা করেছে। এই হত্যাকান্ডের ব্যাপারে পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির পিপিএম হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত যাতে কোন রকম ছাড় না পায় এবং দ্রুত সময়ের মধ্যে ধরা পড়ে সে ব্যাপারে তদন্ত সংশ্লিষ্ট জেলা পুলিশের সকল কর্মকর্তাকে নির্দেশ প্রদান করেছেন। সে কারনে তিনি এলাকাবাসীকে আইন নিজের হাতে তুলে না নিতে অনুরোধ করেন এবং আজকের মত ভাংচুর ও আগুন দেওয়ার মত ঘটনা না ঘটে সে বিষয়ে সকলকে সতর্ক করে দেন।

 


এই নিউজটি 672 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments