,

সর্বশেষ :
শহিদদের শ্রদ্ধা জানাতে কলাগাছের স্মৃতির মিনার রাজবাড়ীতে বই মেলা শুরু রাজবাড়ীতে মেয়েকে ধর্ষণের দায়ে বাবার যাবজ্জীবন উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে ট্রাষ্টি বোর্ডকে আরও ৮ লাখ টাকা দিলেন ডা. আবুল হোসেন বালিয়াকান্দিতে শিশু ছাত্রীদের ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নের অভিযোগে শিক্ষক গ্রেফতার রাজবাড়ীতে ১৫ কেজি গাঁজাসহ স্বামী-স্ত্রী আটক রাজবাড়ীতে কলেজছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে রাজমিস্ত্রী আটক এক যুগ ধরে চিকিৎসাসেবার নামে প্রতারণা করে আসছেন রাজবাড়ীর পচা কর্মকার! সেদিন রোদ্দুর হয়নি বলেই আজ বৃষ্টি হলো… এহসান কলিন্স শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জনসভায় ফয়সাল সরদারের নেতৃত্বে লক্ষীকোলের ৫ শতাধিক নারী-পুরুষ

গোয়ালন্দে স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা : ঘাতক স্বামী গ্রেফতার

News

স্টাফ রিপোর্টার : রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার উত্তর দৌলতদিয়া সুনাউল্লাহ ফকির পাড়ায় শাহিনুর আক্তার সেতু (১৯) নামের এক গৃহবধূকে নির্যাতনের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে স্বামীসহ পরিবারের লোকজন।

শনিবার (২৪ অক্টোবর) বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। তবে ঘটনাটি ভিন্নখাতে নেয়ার জন্য ওই গৃহবধূর মৃতদেহ ঘরের আড়ার সাথে ঝুঁলিয়ে গলায় ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রচার করেছে স্বামীর পরিবারের লোকজন। এ ঘটনায় ঘাতক স্বামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রবিবার (২৫ অক্টোবর) সকালে রাজবাড়ীর মর্গে সেতুর ময়না তদন্ত সম্পন্ন করা হয়।

জানাযায়, উত্তর দৌলতদিয়া সুনাউল্লাহ ফকির পাড়ার সুবাহান ব্যাপারীর ছেলে বক্কার বেপারী (২৩) এর সাথে ১০/১১মাস আগে উজানচর বালিয়াডাঙ্গী গ্রামের শহিদ শেখের মেয়ে শাহিনুর আক্তার সেতু (১৯) এর বিয়ে হয়। বিয়ের সময় সেতুর পিতা শহিদ শেখ মেয়ের সুখের কথা ভেবে জামাই বক্কারকে নগদ ৮০ হাজার টাকা ও স্বর্নের গহনা উপহার হিসেবে দেয়। বিয়ের কিছু দিনের মধ্যে বক্কার সেই টাকা নষ্ট করে ফেলে এবং পিতার বাড়ী থেকে আরো টাকা এনে দেয়ার জন্য স্ত্রীকে নির্যাতন শুরু করে। বিষয়টি সেতু তার পিতাকে জানালে তিনি বক্কারকে কয়েক দফায় আরো ৬৫ হাজার টাকা দেন। শনিবার (২৪ অক্টোবর) বক্কারের স্বামী পরিত্যাক্তা বোন রেজিয়া সেতুর কাছে তার স্বর্নের গহনা চাইলে সে দিতে অস্বীকৃতি জানায়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বক্কার ও তার বোন রেজিয়া, মা কমলা বেগম এবং পিতা সুবাহান সেতুৃকে নির্যাতন করে। নির্যাতনের এক পর্যায়ে তারা সেতুকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। এরপর অবস্থা বেগতিক দেখে সেতুর লাশ ঘরের আড়ার সাথে ওড়না দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা বলে প্রচার করে এবং তড়িঘরি সেতুর মৃতদেহ গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে।

গৃহবধূ সেতুর ময়নাতদন্ত সম্পন্নকারী সদর হাসপাতালের ডাঃ আজাহারুল ইসলাম জানান, সেতুকে নির্যাতনের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে।

সেতুর পিতা শহিদ শেখ জানান, সেতুর বিয়ের সময় নগদ ৮০ হাজার টাকাসহ অনেক স্বর্ণের গহনা জামাই বক্কারকে দিয়েছি। সেগুলো সে নষ্ট করে ফেলার পর সেতুকে নির্যাতন করতো এবং আরো টাকা এনে দেয়ার জন্য সেতুকে চাপ সৃষ্টি করতো। বিষয়টি সেতু আমাকে জানালে আমি কয়েক দফায় বক্কারকে ৬৫হাজার টাকা দিয়েছি। তারপরও ওরা আমার মেয়েকে মেরে ফেললো।

 

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর