গোয়ালন্দে ওয়ার্ড বিভক্তি ও সীমানা জটিলতায় দুই ইউপি’র নির্বাচন বন্ধ

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ১১:০৭ পূর্বাহ্ণ ,৪ এপ্রিল, ২০১৬ | আপডেট: ১১:০৭ পূর্বাহ্ণ ,৪ এপ্রিল, ২০১৬
পিকচার

স্টাফ রিপোর্টার॥ ইউনিয়ন পরিষদ সাধারণ নির্বাচন-২০১৬ তৃতীয় পর্যায়ে রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার চারটি ইউনিয়নের মধ্যে দৌলতদিয়া ও দেবগ্রাম ইউপির ওয়ার্ড বিভক্তিকরণ ও সীমানা জটিলতায় নির্বাচন হচ্ছেনা।

চেয়ারম্যানদের আবেদনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ সংক্রান্ত কমিটি গঠন করেছেন।

বিগত ২০১১ সালের ৯ই জুন গোয়ালন্দ উপজেলার চার ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সে হিসেবে চলতি বছর ৮ই জুন সবকটি ইউপিতে পাঁচ বছর পূর্ণ হবে। দুই ইউপির নির্বাচন না হওয়াতে আগ্রহী অনেক প্রার্থী হতাশা প্রকাশ করেছেন।

গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় জানায়, ২৪শে ফেব্রুয়ারী দেবগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান আতর আলী সরদার ইউএনও কার্যালয়ে লিখিতভাবে জানান, ২০১১ থেকে ২০১৪ সালের নদী ভাঙ্গনে ২, ৩ ও ৫নং ওয়ার্ড সম্পূর্ণ এবং ৪ ও ৬নং ওয়ার্ডের আংশিক নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায়। ওয়ার্ডের অধিকাংশ বাসিন্দা পাশের ওয়ার্ড বা ইউনিয়নে বসবাস করছে। এছাড়া বিদ্যালয়গুলো সরিয়ে নেয়ায় ভোট কেন্দ্র করা সম্ভব হচ্ছেনা। নিয়ম অনুযায়ী একটি ওয়ার্ডে ২/৩টি ভোট কেন্দ্র করার বিধান নেই। দ্রুত ওয়ার্ড পূনঃ নির্ধারণ ও সীমানা বিভাজনের দাবী করেন।

এছাড়া দৌলতদিয়া ইউনিয়নের ১, ২ ও ৩নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন ভোটার এলাকা নদীগর্ভে বিলীন হওয়ায় লোকজন অন্যত্র চলে গেছে। গত বছর ১৯শে নভেম্বর ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম মন্ডলও ওয়ার্ড বিভক্তিকরণের প্রয়োজন জানিয়ে ইউএনও’র কাছে আবেদন করেন।

গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পঙ্কজ ঘোষ জানান, ইউপি চেয়ারম্যানদের আবেদনের প্রেক্ষিতে গত ৩রা মার্চ রাজবাড়ী কালেক্টরেটের স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক ড.সৈয়দা নওশীন পর্ণিনী স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ), আইন বিধিমালা, নীতিমালা, পরিপত্র(ডিসেম্বর, ২০১৪ পর্যন্ত সংশোধনীসহ) এর ১২(১)নং অনুসারে সীমানা নির্ধারণ কর্মকর্তা ও সহকারী সীমানা নির্ধারণ কর্মকর্তা নিয়োগ দিয়ে জরুরী ভিত্তিতে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলেন। গত ৯ই মার্চ উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা সরিফুর রহমানকে দৌলতদিয়ার সীমানা নির্ধারণ কর্মকর্তা ও স্থানীয় ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শাহ আলমকে সহকারী সীমানা নির্ধারণ কর্মকর্তা এবং উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা বিএম নজরুল হুদাকে দেবগ্রামের সীমানা নির্ধারণ কর্মকর্তা ও সহকারী সীমানা নির্ধারণ কর্মকর্তা হিসেবে স্থানীয় ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনসার আলীকে নিয়োগ দিয়ে দ্রুত কার্য সম্পাদন করতে বলা হয়েছে।

নির্বাচন না হওয়ায় সম্ভব্য একাধিক চেয়ারম্যান প্রার্থী ক্ষোভ প্রকাশ করেন। দেবগ্রাম ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান এবং সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী হাফিজুল ইসলাম বলেন, বর্তমান চেয়ারম্যান আতর আলী সরদার ওয়ার্ড বিভক্তিকরণ ও সীমানা জটিলতা দেখিয়ে আবেদনপত্রে উল্লেখ করেন ২০১১ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত তিনটি ওয়ার্ড সম্পূর্ণ ও দুটি ওয়ার্ড আংশিক নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। তাহলে তিনি এতদিন আবেদন না করে নির্বাচনী তফসলী ঘোষণার সময় এমন আবেদন মানে নির্বাচন বানচাল করা। বিষয়টি কর্র্র্তৃপক্ষকে খতিয়ে দেখা দরকার বলে মনে করি।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আতিয়ার রহমান জানান, দেবগ্রাম ও দৌলতদিয়া ছাড়া উজানচর ও ছোটভাকলা ইউপি নির্বাচন ঘোষিত তফসীল অনুযায়ী আগামী ২৩শে এপ্রিল অনুষ্ঠিত হবে। ওয়ার্ড বিভক্তিকরণ ও সীমানা জটিলতা দূর হলে বাকি দুটিতে নির্বাচন হবে। উজানচর ইউপির ভোটার সংখ্যা ১৯,৮৯৫জন। এরমধ্যে পুরুষ ১০,২৩৩ ও মহিলা ৯,৬৬২জন। ছোট ভাকলা ইউনিয়নের মোট ভোটার ১২,৮৮০জন। এরমধ্যে পুরুষ ৬,৪৭০ ও মহিলা ৬,৪১০জন।

 


এই নিউজটি 437 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments