আচরণবিধি লঙ্ঘন করে নিবার্চনী জনসভায় রাজবাড়ী জেলা পরিষদ প্রশাসক

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ৩:৫০ অপরাহ্ণ ,১০ এপ্রিল, ২০১৬ | আপডেট: ১০:৩১ অপরাহ্ণ ,১০ এপ্রিল, ২০১৬
পিকচার

আশিকুর রহমান॥ নির্বাচনী আচরণ বিধি ভঙ্গ করে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা চালানোর অভিযোগ উঠেছে রাজবাড়ী জেলা পরিষদের প্রশাসক আকবর আলী মর্জির বিরুদ্ধে।

সরকারি গাড়ি ব্যবহার করে নিজের ভাতিজার পক্ষে প্রচারণা চালাচ্ছেন তিনি। এসব নিয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হলেও শুধু সতর্ক করে দায় এড়িয়েছেন তিনি।

নির্বাচনী আইন অনুযায়ী, পথসভা ও ঘরোয়া সভা ব্যতীত কোনো জনসভা বা শোভাযাত্রা করা যাবে না, প্রতীক বরাদ্দ না হওয়া পর্যন্ত কোনো নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করা যাবে না। এছাড়া সরকারি সুবিধাভোগী অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি নির্বাচন পূর্ব সময়ে নির্বাচনী এলাকায় প্রচরাণায় বা নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে পারবে না। ইউপি নির্বাচন -২০১৬ এর আচরণবিধিতে এমন নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্বেও রাজবাড়ী সদর উপজেলার বসন্তপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আপন ভাতিজা মির্জা বদিউজ্জামান বাবুর পক্ষে নির্বাচনী জনসভা অব্যাহত রেখেছেন আকবর আলী মর্জি। এতে একদিকে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন ও অপরদিকে দলীয় নির্দেশনা অমান্য করছেন আকবর আলী মর্জি।

আকবর আলী মর্জির এ দায়িত্বহীন কাজের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন খোদ রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী। এছাড়াও জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দরাও মর্জির এ কাজে কঠোর সমালোচনা করেছেন।

এ ঘটনায় গত ৮ই এপ্রিল বসন্তুপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. জাকির হোসেন সরদার রির্টানিং অফিসার মো. রকিব উদ্দিনের কাছে দলের বিদ্রোহী প্রার্থী মির্জা বদিউজ্জামান বাবু ও আকবর আলী মর্জির বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে গত ৭ই এপ্রিল সন্ধ্যা ৭টার সময় বসন্তপুর ইউনিয়নের উদয়পুররস্থ ল্যাংরার দোকানে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মির্জা বদিউজ্জামান বাবুর এক নির্বাচনী জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই জনসভায় আকবর আলী মর্জি তার ব্যবহৃত সরকারী গাড়ি নিয়ে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে জনসভা পরিচালনা করেন। জনসভায় আকবর আলী মর্জি, মির্জা বদিউজ্জামান বাবু ও দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান মিয়া আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী জাকির হোসেন সরদারকে উদ্দ্যেশ্য করে গালিগালাজ করেন। এছাড়াও জাকির হোসেন সরদারকে বসন্তপুর ইউনিয়নের সাবেক ১নং ওয়ার্ডে ঢুকতে দেওয়া হবে না বলে হুমকি ধামকি প্রদান করেন ও নৌকা প্রতীক কে পরাজিত করতে বসন্তপুর ইউপি নির্বাচনে ৫০ লক্ষ টাকা খরচ করবেন বলে অঙ্গীকার করেন আকবর আলী মর্জি। এসময় মর্জি নির্বাচনকে বাধাগ্রস্ত করা ও এলাকায় সহিংসতা সৃষ্টির লক্ষ্যে আরো অনেক উস্কানিমূলক বক্তব্য প্রদান করেন।

সম্প্রতি বসন্তপুর ইউনিয়নে ভাতিজার পক্ষে আকবর আলীর মর্জির নির্বাচনী জনসভার কিছু ভিডিও চিত্র ও অডিও ক্লিপ ইন্টারনেটে প্রকাশ পেয়েছে। গত ৮ই এপ্রিল সন্ধ্যায় সরেজমিনে বসন্তপুর ইউনিয়নের বড় রঘুনাথপুর জলিডাঙ্গা গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে ওই গ্রামের মান্নান মোল্লার দোকানের সামনে আকবর আলী মর্জি নির্বাচনী আরচনবিধি লঙ্ঘন ও দলের নির্দেশনা অমান্য করে সরকারী গাড়ি নিয়ে দলের বিদ্রোহী প্রার্থী ভাতিজা মির্জা বদিউজ্জামান বাবুর পক্ষে বিশাল জনসভা পরিচালনা করছেন।

এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী বলেন, দল থেকে আকবর আলী মর্জির ভাতিজাকে মনোনয়ন না দেওয়ায় তিনি ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন। এ কারণেই তিনি দলের নির্দেশনা অমান্য করে ও নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে নির্বাচনী জনসভা করে বেড়াচ্ছেন।

সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী আরো বলেন, শুধু দলের নির্দেশনা অমান্য ও আচরনবিধি লঙ্ঘনই নয় তিনি আমি ও আমার ছোটভাইসহ আমার পরিবারের বিরুদ্ধে কটুক্তিমূলক বক্তব্য প্রদান করছেন। দলীয় মনোনয়নপ্রাপ্ত প্রার্থীর বিপক্ষে কাজ করে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে কাজ করে চলেছেন। অন্য কোনো লোক যদি এটা করতো তাহলে মেনে নেওয়া যেত। কিন্তু জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদের প্রশাসক আলহাজ্ব আকবর আলী মর্জির কাছ থেকে এটা অপ্রত্যাশিত। আমি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

বসন্তপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার মো. রকিব উদ্দিন বলেন, গত ৮ই এপ্রিল বসন্তুপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী মো. জাকির হোসেন সরদার দলের বিদ্রোহী প্রার্থী মির্জা বদিউজ্জামান বাবু, আব্দুল মান্নান মিয়া ও জেলা পরিষদের প্রশাসক আকবর আলী মর্জির বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে মির্জা বদিউজ্জামান বাবুকে মৌখিক সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছে। এরপর এরকম অভিযোগ আসলে তাকে নোটিশ দেওয়া হবে।

বসন্তপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. জাকির হোসেন সরদার বলেন, আকবর আলী মর্জি, তার ভাতিজা দলের বিদ্রোহী প্রার্থী মির্জা বদিউজ্জামান বাবু ও দলের মনোনয়ন বঞ্চিত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান মিয়া নির্বাচনী আচরনবিধি লঙ্ঘন ও দলের নির্দেশনার প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলী প্রদর্শন করে ইউনিয়নব্যাপী নির্বাচনী জনসভা করে বেড়াচ্ছেন। জনসভায় তারা আমাকে বিভিন্নভাবে হুমকি ধামকি দিচ্ছেন। এ ঘটনায় আমি গত ৮ই এপ্রিল রিটার্নিং অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি ও গতকাল ৯ই এপ্রিল নিজের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে রাজবাড়ী সদর থানার অফিসার ইনচার্জ বরাবর জিডি’র আবেদন করেছি।

এদিকে, এ বিষয়ে কথা বলার জন্য আকবর আলী মর্জির ফোনে একাধিকবার কল দেওয়া হলেও তিনি কল রিসিভ করেননি ।

 


এই নিউজটি 1203 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments

More News from রাজনীতি