,

বাণীবহে বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থীর প্রচার মাইক ভাংচুর, ২টি ফাঁকা গুলি

স্টাফ রিপোর্টার॥ আসন্ন রাজবাড়ী সদর উপজেলার বাণীবহ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান খোরশেদ আলমের পৃথক দুইটি প্রচারণা মাইক ভাংচুর ও ফাঁকা গুলি করেছে সন্ত্রাসীরা।

বৃহস্পতিবার (২১ এপ্রিল) রাত সোয়া ৭টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

তবে চেয়ারম্যান খোরশেদ আলমের দাবী আওয়ামী লীগের প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা বাচ্চুর কর্মীরাই এ ঘটনা ঘটিয়েছে।

এদিকে খবর পেয়ে রাজবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ শাহ্ মোঃ আওলাদ হোসেন পিপিএমসহ একদল পুলিশ ঘটনাস্থল দুটি পরিদর্শন করেছেন।

বাণীবহ গ্রামের অটো চালক রিপন জানান, গতকাল ২১শে এপ্রিল আমার অটো গাড়ীতে মাইক নিয়ে বিএনপির চেয়ারম্যান প্রার্থী খোরশেদ আলমের পক্ষে প্রচারণা করে এশার আযানের ৩০মিনিট আগে বারিকগ্রাম থেকে বাণীবহ বাজারে আসছিলাম। পথিমধ্যে বৃচাত্রা মাদ্রাসার কাছে পৌছালে জাকারিয়া নোমানীসহ কয়েকজন আমার অটোগাড়ীটির গতিরোধ করে। এরপর জাকারিয়া আমার কোমরে চাকু ঠেকিয়ে ধরে বলে এই এলাকায় ধানের শীষে কোন ভোট নেই। তুই ধানের শীষের প্রচার করতে ছিস তোকে ফাইনাল করে দেবো। এ সময় আমি তাকে বলি কাকা আমি আপনাকে চিনেছি। আমি এই এলাকারই সন্তান। এ কথা বলাতেই সে আরো উত্তেজিত হয়ে পিস্তল বের করে আমার মাথায় ঠেকিয়ে ধরে বলে তুই যখন আমাকে চিনেই ফেলেছিস তাহলে তোকে ফাইনাল করে দেয়াই লাগে। এরপর সে আমাকে তার পা ধরে মাফ চাইতে বাধ্য করে। আমি তার পা ধরে মাফ চাইতে গেলে সে পিস্তল দিয়ে উপরে একটি ফাঁকা গুলি করে এবং দুটি মাইক, ব্যাটারী ও মাইকের যন্ত্রাশং পাশের পুকুরের পানিতে ফেলে দেয়।
ঘিমোড়া গ্রামের রিক্সা চালক ইসমাইল জানায়, বিভিন্ন এলাকায় বর্তমান চেয়ারম্যান খোরশেদ আলমের প্রচারনা শেষ করে বাণীবহ বাজারে আসার পথে ঘিমোড়া গ্রামে পৌছালে রাত সোয়া ৭টার দিকে শাহজাহান, সোহাগসহ কয়েকজন আমার রিক্সার গতিরোধ করে মাইক ভাংচুর করে পাশের পুকুরে রিক্সাসহ ফেলে দেয়। এরপর তারা উচ্চ স্বরে নৌকা নৌকা বলে শ্লোগান দিয়ে চলে যায়।

এ দুটি ঘটনার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে অফিসার ইনচার্জ শাহ্ মোঃ আওলাদ হোসেন পিপিএম মাইকে এলাকাবাসীর উদ্দেশে বলেন, এ ঘটনা যারা ঘটিয়েছে তারা দুর্বৃত্ত। এই সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। সন্ত্রাসী গোষ্ঠী কোন প্রকার নির্বাচনে বাঁধাগ্রস্থ করতে পারবে না। আপনারা কোন বিশৃঙ্খলা করবেন না।

এদিকে পৃথক দুটি ঘটনার পর ঘিমোড়া গ্রামে সংক্ষিপ্ত প্রতিবাদ সভায় বাণীবহ ইউনিয়নের বিএনপির মনোনীত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম বলেন, বাণীবহ ইউনিয়ন খুব শান্তিপ্রিয়। নির্বাচনে এই প্রথম সহিষ্ণতার ঘটনা ঘটলো। এর জবাব আগামী ৭ই মে এর নির্বাচনে গোপন ব্যালটের মাধ্যমে দিবেন। এই নির্বাচন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমরা সব সময়ই সবার সাথে মিলেমিশে থাকি। কিন্তু আজ তারা যে ঘটনা ঘটলো তা কিসের আওয়াজ। আওয়ামীলীগের প্রার্থীর লোকজন আজ যে ঘটনা ঘটালো তা খুবই জঘন্য। আজ যা তারা করলো তা বাণীবহের ইতিহাসে লেখা থাকবে। আপনারা কেউ ভয় পাবেন না। এটা ঘটতেই পারে। তাই বলে কেউ ঘরে বসে থাকবেন না। এটা প্রতিহত করতে হবে ব্যালটের মাধ্যমে। আমরা সহিষ্ণতা করবো না।

তিনি আরো বলেন, আওয়ামীলীগ চেয়েছিল এই ভাংচুরের ঘটনা ঘটিয়ে আমাদের সাথে মারামারি করবে এবং পরবর্তীতে আমাদেরকে মামলা মোর্কদ্দমা করে ঘর ছাড়া করবে। কিন্তু আমরা সেদিকে যাইনি। আমরা শান্তিপ্রিয়। আমরা শান্তির পক্ষে।

প্রতিবাদ সভায় অন্যান্যের মধ্যে বাণীবহ ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি মাহাতাব উদ্দিন, বিএনপি নেতা আমিন, মনেক, মুসা প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

 

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর