‘লেবুনচুষ বেইচা ঈদে নতুন জামাপ্যান কিনুম’

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ৩:০৪ অপরাহ্ণ ,৩ জুলাই, ২০১৬ | আপডেট: ৩:০৮ অপরাহ্ণ ,৩ জুলাই, ২০১৬
পিকচার

গণেশ পাল : ‘বাজান (বাবা) কইছে, এইবার ঈদে হে আমারে জামাকাপুড় কিনা দিতে পারবো না। তাই স্কুল বন্ধ থাকোনে হকারিতে নামছি। দিনভর ফেরিতে ঘুইরা যাত্রীগের কাছে লেবুনচুষ বেচি। এই কাম কইরা যে টাকা কামাই করুম, তা দিয়া এইবার ঈদে নতুন জামাপ্যান কিনুম’।

এভাবেই কথাগুলো বলছিলো রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের সিদ্দিক কাজীরপাড়া গ্রামের হতদরিদ্র পরিবারের সন্তান বছির (১২)।

শিশু বছির জানায়, সে স্থানীয় কেকেএস প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র। তার বাবা মোতালেব শেখ একজন দিনমজুর। শারীরিক অসুস্থতার কারণে কর্মক্ষমতা হারিয়ে ফেলায় তিনি এখন ভিক্ষাবৃত্তি করেন। মা সাহেরা বেগম গৃহীনি। তারা চার ভাই ও দুই বোন। নানা অভাব অনটনের মধ্যে থেকেও শিশু বছির নিয়মিত স্কুলে যায়। তার স্বপ্ন লেখাপড়া করে একদিন সে অনেক বড় হবে। সংসারের অভাব মিটিয়ে বাবা-মায়ের মুখে হাসি ফোটাবে।

এদিকে ঈদ আসন্ন। বাবা মোতালেব শেখ তার শিশু ছেলে বছিরসহ পরিবারের কাউকে এবার নতুন কোন জামা-কাপড় কিনে দিতে পারবেন না। তাই স্কুল ছুটি থাকার সুযোগে ঈদের জামা-কাপড় কেনার টাকা যোগাতে শিশু বছির হকারির কাজে নেমেছেন। এলাকার এক দোকান থেকে বয়মভরা লজেন্স ও চুইংগাম বাকিতে নিয়ে সে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে চলাচলকারি বিভিন্ন ফেরিতে ঘুরে যাত্রীদের কাছে তা বিক্রি করছেন। এতে প্র