,

দেশপ্রেম থাকলে তিস্তা লংমার্চে যোগ দিন : প্রধানমন্ত্রীকে রফিকুল

News

নিউজ ডেস্ক :  তিস্তার পানির ন্যায্য হিস্যার দাবিতে বিএনপির আহুত লংমার্চে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া। প্রধনামন্ত্রীর উদ্দেশে তিনি বলেন, “দেশপ্রেম থাকলে তিস্তা অভিমুখে বিএনপির লংমার্চে যোগ দিন। এতে আপনার ক্ষতি হবে না বরং দেশের উপকার হবে।”

ঢাকা থেকে র’য়ের এজেন্টকে ভারতীয় গোয়েন্দা বাহিনীর সদস্যদের ধরে নিয়ে যাওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “একটি স্বাধীন দেশে কিভাবে অন্য দেশের গোয়েন্দা সংস্থার লোক এসে র’য়ের এজেন্ট ধরে নিয়ে গেল। সরকারের কাছে জনগণ তার ব্যাখ্যা চায়।”

শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবে স্বাধীনতা ফোরাম আয়োজিত এক যুব সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এম ইলিয়াস আলী নিখোঁজের দুই বছর পার হলেও তার সন্ধ্যান না পাওয়ার প্রতিবাদে এর আয়োজন করা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি আব নাসের মো. রহমাতুল্লাহ।

ইলিয়াস আলীর গুমের ঘটনা তুলে রফিকুল বলেন, “ইলিয়াস আলীর পরিবারের লোকজন জানে না তিনি আজ কোথায়? অথচ প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, তিনি ইলিয়াস আলীকে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার ব্যবস্থা করবেন। আজকে দুই বছর চলে গেল। কিন্তু কোনো সন্ধ্যান তিনি দিতে পারেননি। এটা রাষ্ট্রের দায়িত্ব না?”

তিনি আরো বলেন, “ইলিয়াস আলী টিপাইমুখ বাঁধের প্রতিবাদে আন্দোলন গড়ে তুলেছিলেন। যা ভারতীয় পত্রিকাতেও উঠে এসেছিল।”

ঢাকার বিমানবন্দর থেকে র’য়ের এজেন্টকে ধরে নিয়ে যাওয়ার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “এ ঘটনার পর স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলছেন তিনি কিছু জানেন না। তাহলে দেশের স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রকে কোথায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে আমার মনে হয়, ইলিয়াস আলীল গুম, র’য়ের কর্মকাণ্ড ও দেশে গণতন্ত্রবিহীন সমাজ ব্যবস্থার মধ্যে একটি যোগসূত্র রয়েছে।”

সব দলের অংশগ্রহণে একটি নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বিএনপির এই শীর্ষ নেতা বলেন, “প্রধানমন্ত্রীসহ সরকারি দলের নেতারা বলেছিলেন সাংবিধানিক ধারা অব্যহত রাখতে দশম সংসদ নির্বাচন হচ্ছে। কিন্তু এখন বলছেন, পাঁচ বছরের জন্য তারা ক্ষমতায় এসেছে।”

তিনি সরকারের উদ্দেশে বলেন, “অবিলম্বে সবার অংশগ্রহণে নির্বাচনের ব্যবস্থা করুন। অন্যথায় দেশে যে সন্ত্রাসবাদের সৃষ্টি হয়েছে আরো ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করবে।”

এতে আরো বক্তব্য দেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু, বিএনপির শিক্ষা সম্পাদক খায়রুল কবির খোকন, গণশিক্ষা সম্পাদক সানাউল্লাহ মিয়া, সহ-দফতর সম্পাদক শামীমুর রহমান শামীম, জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক আমিনুল হক প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল রাতে ইলিয়াস আলী তার গাড়ি চালকসহ নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে প্রতিমাসে তার সন্ধ্যান দাবিতে প্রতীকী কর্মসূচি পালন করে আসছে স্বাধীনতা ফোরাম।

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর