প্রেমের টানে বোরকা পড়ে বিপাকে যুবক!

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ৩:৫৪ অপরাহ্ণ ,১ আগস্ট, ২০১৬ | আপডেট: ৪:৫১ অপরাহ্ণ ,১ আগস্ট, ২০১৬
পিকচার

স্টাফ রিপোর্টার : একাদশ শ্রেণীর ছাত্র সোহাগ বিশ্বাস। উঠতি বয়সে প্রেমের সাধ জাগায় বন্ধুদের কাছে প্রেমের কথা ব্যক্ত করে। বন্ধুরা তাকে প্রেম করিয়ে দেওয়ার আশ্বাসে বেঁধে দেয় ‌‘বোরকা পড়ে কলেজে যাওয়ার’ এক কমেডিয়ান শর্ত।

প্রেমের টানে বন্ধুদের কমেডিয়ান শর্ত পালন করতে বোরকা পড়ে কলেজে হাজির হয় সোহাগ। কিন্তু ফিল্মি ষ্টাইলে হিরো প্রেমিক সাজতে গিয়ে শেষ পর্যন্ত ভিলেন বনে যায় সে। বোরকা পড়িহিত অবস্থায় জনতার হাতে সন্দেহজনকভাবে আটক হয়ে থানা হাজতে যেতে হয় তাকে।

রোববার (৩১ জুলাই) রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার নারুয়া  লিয়াকত আলী স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজে এ ঘটনা ঘটে।

সোহাগ বিশ্বাস নারুয়া ইউনিয়নের বিলধামু গ্রামের গফুর বিশ্বাসের ছেলে। সে নারুয়া লিয়াকত আলী স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজের একাদশ শ্রেণীর ছাত্র।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সোহাগ বিশ্বাস সকালে বোরকা পড়ে কলেজে আসে। তার পায়ের স্যান্ডেল দেখে বোঝা যায় সে ছেলে। এসময় সন্দেহজনকভাবে তাকে আটক করলে তার পরিচয় পাওয়া যায়। বিষয়টি জানাজানি হলে বালিয়াকান্দি থানার এসআই অঙ্কুর ভট্রাচার্য্য তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

সোহাগ বিশ্বাস জানায়, সে লিয়াকত আলী স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজের ৭ম শ্রেণীতে পড়ুয়া এক ছাত্রীকে পছন্দ করে। এ কথা সে তার বন্ধুদেরকে বললে বন্ধুরা তাকে বোরকা পড়ে কলেজে আসতে পারলে প্রেম করিয়ে দেওয়ার আশ্বাস দেয়। প্রেমের টানে বন্ধুদের কথামতো সে বোরকা পড়ে কলেজে এসে ধরা পড়ে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বালিয়াকান্দি থানার অফিসার ইনচার্জ জাহিদুল ইসলাম পিপিএম জানান, আটকের পর সোহাগকে জিজ্ঞাসাবাদে জানাযায় বন্ধুদের সাথে বাজি ধরে সে বোরকা পড়ে কলেজে গিয়েছিল। এরপর সোহাগের বন্ধুরা থানায় এসে ঘটনা খুলে বলে তাকে ছেড়ে দেওয়ার অনুরোধ করে। পরে জেলা পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির পিপিএম কে ঘটনার বিষয়ে অবগত করে তার অনুমতিতে সোহাগকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

 


এই নিউজটি 1245 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments