,

নিজেই নিজের অপহরণকারী!

News

স্টাফ রিপোর্টার সমাজে অপহরণের ঘটনা প্রায়শই ঘটতে দেখা যায়। বিভিন্ন কারণে কোন মানুষ বা চক্র অন্য কোন মানুষকে অপহরণ করে। কিন্তু, যদি কোন মানুষ নিজেই নিজেকে অপহরণ করে তাহলে ঘটনাটি কেমন দাড়ায় ?? নিশ্চই বিস্ময়কর!! হ্যা…. এমনই এক বিস্ময়কর ঘটনা এবং অপহরণকারীর মুখোশ উম্মোচন করেছেন রাজবাড়ীর ডিবি পুলিশ।

প্রতারণা করে ১৫লক্ষ টাকা আত্মসাৎ এবং এক ব্যবসায়ীকে ফাঁসানোর জন্য নিজেই নিজেকে অপহরণের নাটক সাজায় ইউসিবিএল ব্যাংকের ক্যাশ অফিসার জসিম উদ্দিন (৩৫)। শেষ পর্যন্ত তার নাটকটি সফলতার মুখ দেখেনি।

নাটক সাজানোর ২০মাস পর সোমবার (১ আগস্ট) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মাদারীপুর জেলার চরমুগুরীয়া থেকে তাকে আটক করে রাজবাড়ীর ডিবি পুলিশ।

আটক জসিম উদ্দিন বরগুণা জেলার বেতাগী গ্রামের মৃত হেমায়েত উদ্দিনের ছেলে। সে গাজীপুর জেলার কালিগঞ্জ ইউসিবিএল ব্যাংকের ক্যাশ অফিসার ছিলেন। এছাড়াও সে রাজবাড়ী ইউসিবিএল ব্যাংকেও দীর্ঘদিন ক্যাশ অফিসার হিসেবে চাকুরী করেছেন।

এ বিষয়ে রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার জিহাদুল কবির পিপিএম সাংবাদিকদের জানান, রাজবাড়ী ও গাজীপুরে চাকুরী করাকালে জসিম উদ্দিন বিভিন্ন জনের কাছ থেকে প্রতারণা করে ১৫লক্ষ টাকা নেয়। এ টাকা আত্মসাৎ করার জন্য সে ভারতে পাড়ি জমায় এবং তার ভাই  মাহাবুব উদ্দিনকে দিয়ে রাজবাড়ী থানায় গত ২২/১২/২০১৪ তারিখে একটি অপহরণ মামলা দায়ের করায়। এ মামলায় রাজবাড়ীর ব্যবসায়ী মনোজ শিকদারসহ অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামী করা হয়।

এরপর মামলাটি ডিবিতে হস্তান্তর করা হলে দীর্ঘ তদন্তে জানা যায় ১৫লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করার জন্য জসিম উদ্দিন সাজানো অপহরণের নাটক করছে। এরমাঝে জসিম উদ্দিন বাংলাদেশে এসে মাদারীপুর জেলার চরমুগুরীয়ায় ‘ভরসা’ নামক একটি কম্পানিতে চাকুরী শুরু করে ।

সোমবার (১ আগস্ট) সকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাজবাড়ী ডিবি’র এসআই নিজাম উদ্দিন, কালুখালী থানার এসআই হিরণ কুমার বিশ্বাসসহ ডিবি’র সদস্যরা চরমুগুরীয়া থেকে জসিম উদ্দিনকে আটক করে।

আটকের পর জসিম উদ্দিন ১৫লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করার জন্য অপহরণের নাটক সাজিয়েছিলো বলে স্বীকারোক্তি প্রদান করে।

 

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর