,

সর্বশেষ :
রাজবাড়ীতে পুকুরে ভেসে উঠল অজ্ঞাত বৃদ্ধের মরদেহ ‘ভিডিও ডিলিট কর, নইলে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসিয়ে দেবো’ রাজবাড়ী জেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদন রাজবাড়ীর ২ টি আসনের জন্য বিএনপির মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন খালেক-আসলাম-হারুন সুষ্ঠু নির্বাচন হলে রাজবাড়ী-১ আসন পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হবো : অ্যাড. খালেক রাজবাড়ী-১ আসনে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী অ্যাড. আসলাম মিয়ার গণসংযোগ রাজবাড়ী-১ আসনের জন্য আ’লীগের মনোনয়ন ফরম নিলেন ইমদাদুল হক বিশ্বাস রাজবাড়ীতে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন রাজবাড়ীতে এসএসসি পরীক্ষার্থীকে কুপিয়ে জখম রাজবাড়ী-১ আসনের জন্য আ’লীগের মনোনয়ন ফরম নিলেন আশরাফুল ইসলাম

রাজবাড়ীতে নদীগর্ভে বিলীনের পথে ৫ গ্রাম

News

রাজবাড়ী নিউজ ডেস্ক : পদ্মার পানি কমার সাথে সাথে রাজবাড়ী সদর উপজেলার বরাট ইউনিয়নের কমপক্ষে ৫টি গ্রাম নদী ভাঙনের শিকার হয়েছে। মারাত্মক ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

৩ কিলোমিটার জুড়ে আকস্মিক নদী ভাঙনে গত রোববার থেকে সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত এসব গ্রামের প্রায় ৩শতাধিক বাড়ি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। চলছে বাড়ি ভেঙে অন্যত্র সরানোর তোড়জোর।

গ্রাম গুলো হচ্ছে লালগোলা, পশ্চিম উড়াকান্দা দেওয়ানবাড়ি, উড়াকান্দা মিয়া পাড়া, উড়াকান্দা আলম চেয়ারম্যান পাড়া ও নয়ন সুখ।

সোমবার বিকেলে এলাকা ঘুরে নদীভাঙন কবলিত মানুষদের সাথে কথা বলে তাদের দুর্ভোগের চিত্র দেখা যায়।

পশ্চিম উড়াকান্দা গ্রামের আমিন মন্ডল ও তার ভাই আয়নাল মন্ডল জানান, নদী ভাঙনের কারণে তাদের তিনটি পাকা ওয়াল করা বাড়ি রাজমিস্ত্রী দিয়ে অন্যত্র সরিয়ে ফেলানো হচ্ছে। ভাঙন এতোটাই তীব্র যে শেষ পর্যন্ত ঘরগুরো অন্যত্র সরিয়ে নেয়া যাবে কিনা তা সন্দেহ রয়েছে। ইতি মধ্যেই কয়েক বছরে তাদের বাড়ির বাগান, ঘাটবাধা পুকুর নদী গর্ভে চলে গেছে।

উড়াকান্দার সাবেক চেয়ারম্যান সামসুদ্দিন জানান, তার বাড়ি নদীর আধা কিরোমিটার দূরে ছিলো। দু’বছর হলো তার বাড়ির কাছে নদী এসেছে। দু’য়েকদিনের মধ্যে বাড়ি ভেঙে না সরালে তার এক তলা বাড়ীটি নদী গর্ভে চলে যাবে।

বরাট ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার ও আওয়ামীলীগের ইউনিয়ন সহ-সভাপতি শহীদ মোল্লা ক্ষোভের সাথে জানালেন, দু’তিন বছর থেকে নদী শাসনের জন্য শুধু টাকা বরাদ্দের গল্প শোনাচ্ছেন এমপি ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা। কাজের কাজ কিছুই হয়নি। এখন তাদের বাড়ি ভেঙে অন্যত্র যেতে হচ্ছে। অপর দিকে তাদের বাড়ি থেকে শহর রক্ষা বাধের দূরত্ব মাত্র ৩০মিটার।

এছাড়াও উড়াকান্দা আলম চেয়ারম্যানের বাড়ির পাশে এবং নয়নসুখ গ্রামে চলছে ভাঙনের তান্ডব। ওই গ্রামের আকবর মন্ডল জানালেন, তার বাড়ির টিনের ঘর সরিয়ে নেওয়ার সময় পাচ্ছেন না। ভাঙনের তীব্রতা এতো বেশি যে কামলা নিয়েও বাড়ির টিনের ঘর সরিয়ে নিতে হিমসিম খেতে হচ্ছে।

নদী ভাঙনে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগ ও সহযোগিতা বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা প্রশাসক জিনাত আরা বলেন, ঢাকা বিভাগের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মোঃ মোস্তাফিজুর রহমানকে সাথে নিয়ে তিনি নদীভাঙন কবলিত মানুষদের খোজঁ-খবর নিতে এলাকা পরিদর্শনে আছেন। ক্ষতিগ্রস্থদের নগদ অর্থ ও চাল সাহায্য করবেন বলে জানালেন তিনি।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী গুরুপদ সূত্রধর জানালেন, গতানুগতিক কথা। টেকনিক্যাল বিষয় নিয়ে তাদের সাথে কথা বলার কোন অর্থ নেই। তারা পানিসম্পদ মন্ত্রীর সাথে কথা বলেছেন। এ বছর কিছুই করার নেই। আগামী বছর ব্যবস্থা হবে।

(সূত্র – জে নিউজ বিডি.কম)

 

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর