গোয়ালন্দে শিক্ষকের পিটুনিতে ছাত্র হাসপাতালে

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ১১:৫৯ পূর্বাহ্ণ ,২১ আগস্ট, ২০১৬ | আপডেট: ১২:০৬ অপরাহ্ণ ,২১ আগস্ট, ২০১৬
পিকচার

রাজবাড়ী নিউজ ডেস্ক : ক্লাস শেষে ছুটির ঘণ্টা বেজে ওঠার সঙ্গে সঙ্গে হইচই করে শ্রেণিকক্ষ থেকে বের হওয়ায় এক ছাত্রকে পিটিয়েছে শিক্ষক। এতে ওই ছাত্র অচেতন হয়ে পড়ে। পরে তাকে হাসপাতালে পাঠানো হয়।

শনিবার (২০ আগস্ট) রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার নাজির উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ে এই ঘটনা ঘটে।

আতিয়ার রহমান নামের এই ছাত্র দশম শ্রেণিতে পড়ে। মোখলেসুর রহমান নামের একজন শিক্ষক তাকে বেত দিয়ে পেটান বলে জানা গেছে।

এই ঘটনার প্রতিবাদে এবং শিক্ষকের বিচার দাবি করে আজ রবিবার ছাত্র বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে উপজেলা ছাত্রলীগ।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার চর দৌলতদিয়া গ্রামের আকবর আলী মোল্লার একমাত্র ছেলে আতিয়ার রহমান। সে নাজির উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র। প্রতিদিনের মতো গতকাল সকালে আতিয়ার স্কুলে যায়। ওই দিন বিকেল ৩টা ৫৫ মিনিটে শিক্ষক মোখলেসুর রহমান দশম শ্রেণির ‘ইসলামী শিক্ষা’ বিষয়ে পাঠদান করছিলেন। এ সময় স্কুল ছুটির ঘণ্টা বেজে ওঠে। সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষার্থীরা হৈ-হুল্লোড় করে বেরিয়ে যেতে থাকে। এতে ক্ষিপ্ত হন শিক্ষক মোখলেছুর রহমান। তিনি আতিয়ার রহমানকে ধরে শ্রেণিকক্ষে আটকে বেত দিয়ে বেদম পেটাতে থাকেন। বেতের আঘাতে তার শরীরে কালশিটে দাগ পড়ে এবং সে অচেতন হয়ে যায়। পরে সহপাঠী ও অন্য ছাত্ররা এসে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।

হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. আশীষ কুমার বড়াল জানান, আতিয়ারের মাথা, ঘাড়, হাত ও পিঠে বেতের আঘাতের স্থানে রক্ত জমাট বেঁধে কালো হয়ে গেছে। তার জ্ঞান ফিরেছে। তিনি আরো জানান, রাত ৮টার দিকে আতিয়ারকে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায় তার স্বজনরা।

আতিয়ারের বাবা আকবর আলী মোল্লা বলেন, ‘আমার ছেলে কোনো অন্যায় করেনি। তাই যে শিক্ষক বিনা অপরাধে আমার ছেলেকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছেন, আমি দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

গোয়ালন্দ নাজির উদ্দিন সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক জহুরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘এভাবে ছাত্র পেটানোর ঘটনাটি নিন্দনীয়। সংশ্লিষ্ট শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

গোয়ালন্দ ঘাট থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আমিরুল ইসলাম বলেন, ‘মৌখিক অভিযোগ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে পুলিশ। ভুক্তভোগী লিখিত অভিযোগ করলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

(তথ্য সূত্র- কালেরকন্ঠ)


এই নিউজটি 750 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments