গোয়ালন্দে দুই স্কুল ছাত্রী নিখোঁজ, পাচারের আশঙ্কা

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ৮:১১ অপরাহ্ণ ,২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ | আপডেট: ৮:১১ অপরাহ্ণ ,২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬
পিকচার

স্টাফ রিপোর্টার॥ রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ শহীদ স্মৃতি সরকারী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের দুই স্কুল ছাত্রী নিখোঁজ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

তাদের একজন বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী অয়ন্তিকা ঘোষ (১৩)। সে গোয়ালন্দ শহরের ঘোষপট্রি এলাকার বিশ্বনাথ চন্দ্র ঘোষের মেয়ে। অপরজন রোকসানা আকতার (১৪)। সে বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী ও শহরের দেওয়ান পাড়ার শাহিন মিয়ার মেয়ে। পরিবারের আশঙ্কা এরা পাচার হয়ে থাকতে পারে।

অয়ন্তিকার বাবা বাজারের হোটেল ব্যবসায়ী বিশ্বনাথ চন্দ্র ঘোষ বলেন, গত বুধবার (৩১ আগস্ট) প্রতিদিনের মতো সকাল নয়টার দিকে বাড়ি থেকে বিদ্যালয়ের কথা বলে বের হয়। দুপুরে খাবারের জন্য বাড়িতে ফিরে না আসায় বিদ্যালয়ে গিয়ে খোঁজ নিয়ে জানা যায় অয়ন্তিকা বিদ্যালয়ে যায়নি। পরে জানা যায় ওই বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী রোকসানা আকতার তাকে সাথে করে দৌলতদিয়া ফেরী ঘাট হয়ে পদ্মা পাড়ি দিয়ে ঢাকার দিকে গেছে। কিন্তু কোথায় গেছে, কেমন আছে আমরা এখনো জানতে পারিনি। বিষয়টি ওইদিন বিকেলেই থানা পুলিশকে অবগত করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, শুনেছি রোকসানা তার নানা বাড়ি রাজশাহীর লালন নামের এক নিকট আত্মীয়ের সাথে যোগসাজস করে চলে গেছে। সম্ভব্য সব স্থানে খোঁজ নেয়া হচ্ছে কিন্তু তাদের কোন হদিস পাচ্ছিনা। তার দাবী কন্যাকে রোকসানার মাধ্যমে একটি অপরাধী চক্র কৌশলে অপহরণ করেছে। এ সময় অয়ন্তিকা বাড়ি থেকে নগদ প্রায় ৫০ হাজার টাকা ও কিছু স্বর্ণালংকার নিয়ে গেছে।

থানা পুলিশ ও সংশ্লিস্ট সূত্র জানায়, গত বুধবার বেলা এগারটার দিকে রোকসানা চার সহপাঠিকে নিয়ে অয়ন্তিকাকে সাথে করে শহরের জুড়ান মোল্যার পাড়ার অপর সহপাঠি হেলাল মোল্যার বাসায় যায়। সেখানে সহপাঠিদের সাহায্যে পোষাক পরিবর্তন করে বোরকা পরে একটি অটো রিক্সাযোগে চার সহপাঠি তাদেরকে (অয়ন্তিকা ও রোকসানা) দৌলতদিয়া ঘাটে ফেরীতে পৌছে দেয়। নবীনগর হয়ে তাদের দিনাজপুর যাওয়ার কথা রয়েছে। পরে পুলিশ গত বুধবার রাতেই চার সহপাঠি বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণীর ছাত্রী হেলাল মোল্যার মেয়ে ফারজানা আকতার নুপুর(১৪), একই শ্রেণীর অপর ছাত্রী দৌলতদিয়া সিরাজ খার পাড়ার বাশুদেব বিশ্বাসের মেয়ে রত্না বিশ্বাস (১৩), ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী শহরের বাঁশহাটা এলাকার ফারুক হোসেনের মেয়ে ফারজানা আকতার (১৫) এবং শহরের দেওয়ান পাড়ার রফিকুল ইসলামের মেয়ে প্রপার হাই স্কুলের ৭ম শ্রেণীর ছাত্রী নুর আকতার রিয়া (১৪) নামের চার জনসহ রোকসানার বাবা শাহিন (৪০) কে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

শহীদ স্মৃতি সরকারী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রঞ্জন কুমার বিশ্বাস বলেন, গত বুধবার বিদ্যালয়ের অয়ন্তিকা ও রোকসানা কেউ আসেনি। তাদের হাজিরা খাতায় উপস্থিতি নেই। যে কারণে তারা কিভাবে এবং কোথায় গেছে তার কিছুই বলতে পারছিনা।

অভিযুক্ত রোকসানার মা কোহিনুর বেগম বলেন, আমার মেয়েই যেখানে নিখোঁজ সেখানে কি করে বলবো ঘটনাটি। আমার সন্ধান না পাওয়া পর্যন্ত কিছুই বলতে পারবো না। তবে আমার মনে হয় এ ঘটনার সাথে আমার মেয়ে কোনমতেই জড়িত নয়।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি মির্জা আবুল কালাম আজাদ বলেন, বিষয়টি এখনো পরিস্কার হয়নি। অয়ন্তিকা ও রোকসানার চার সহপাঠির দেওয়া স্বীকারোক্তিতে মনে হচ্ছে রোকসানা কৌশলে অয়ন্তিকাকে সাথে করে নিয়ে গেছে। পুলিশ মাঠে কাজ করার পাশাপাশি সম্ভব্য সকল থানায় যোগাযোগ করা হচ্ছে। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। আশা করি শীঘ্রই ভালো ফলাফল পাবো।

(সূত্র- দৈনিক মাতৃকন্ঠ)


এই নিউজটি 787 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments