,

সর্বশেষ :
শহিদদের শ্রদ্ধা জানাতে কলাগাছের স্মৃতির মিনার রাজবাড়ীতে বই মেলা শুরু রাজবাড়ীতে মেয়েকে ধর্ষণের দায়ে বাবার যাবজ্জীবন উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে ট্রাষ্টি বোর্ডকে আরও ৮ লাখ টাকা দিলেন ডা. আবুল হোসেন বালিয়াকান্দিতে শিশু ছাত্রীদের ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নের অভিযোগে শিক্ষক গ্রেফতার রাজবাড়ীতে ১৫ কেজি গাঁজাসহ স্বামী-স্ত্রী আটক রাজবাড়ীতে কলেজছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে রাজমিস্ত্রী আটক এক যুগ ধরে চিকিৎসাসেবার নামে প্রতারণা করে আসছেন রাজবাড়ীর পচা কর্মকার! সেদিন রোদ্দুর হয়নি বলেই আজ বৃষ্টি হলো… এহসান কলিন্স শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জনসভায় ফয়সাল সরদারের নেতৃত্বে লক্ষীকোলের ৫ শতাধিক নারী-পুরুষ

ফরিদপুরে বাবাকে পুড়িয়ে মারা ছেলের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা

News

রাজবাড়ী নিউজ২৪.কম : ফরিদপুরে ছেলের দেওয়া আগুনে দগ্ধ বাবা টি এম রফিকুল হুদার (৪৮) মৃত্যুর পর ছেলে ফারদিন হুদা মুগ্ধের (১৭) বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঁচদিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) ভোরে মারা গেছেন রফিকুল হুদা। বিকালে ফরিদপুর কোতোয়ালি থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে মুগ্ধের বিরুদ্ধে

কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নাজিম উদ্দিন বলেন, ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে নিহতের ভগ্নিপতি আকরামউদ্দিন বাদী হয়ে ছেলে ফারদিন হুদা মুগ্ধকে আসামি করে হত্যা মামলাটি দায়ের করেছেন। তিনি বলেন, দ্রুতই আসামিকে আইনের আওতায় আনা হবে

রফিকুল হুদার ভাই টি এম সিরাজুল হুদা বলেন, বুধবার  ভোর চারটার দিকে রফিকুল মারা যান। পারিবারিক সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাকে ঢাকার আজিমপুর কবরস্থানে দাফন করা হবে

ফরিদপুর শহরের কমলাপুর ডিআইবি বটতলা এলাকার  বাড়িতে ছেলে মুগ্ধ বাবা রফিকুলের কাছে নতুন মডেলের মোটরসাইকেল চেয়েছিল। এর আগেও ছেলেকে মোটরসাইকেল কিনে দিয়েছিলেন রফিকুল। আর তাই নতুন মোটরসাইকেল কিনে দিতে অস্বীকৃতি জানান তিনি। ক্ষিপ্ত হয়ে গত ১৫ সেপ্টেম্বর বিকেল ৪টার দিকে  মুগ্ধ পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় বাবা রফিকুল মা সিলভিয়া হুদার (৪০) শরীরে। ৯৫ শতাংশ পুড়ে যাওয়া অবস্থায় রফিকুলকে ভর্তি করা হয় ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন তিনি

ছেলের দেওয়া আগুনে দগ্ধ মা সিলভিয়াকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দিয়ে রিলিজ দেওয়া হয়েছে। তিনি এখন বাড়িতে আছেন। পুড়ে গিয়েছিল মুগ্ধের নিজের পায়ের কিছু অংশও। তাকেও চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। মুগ্ধ তার মায়ের সঙ্গেই আছে

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর