ধর্মঘটকে ঘিরে পাল্টে যায় দৌলতদিয়া ঘাটের দৃশ্যপট

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ৫:৫৩ অপরাহ্ণ ,১ মার্চ, ২০১৭ | আপডেট: ৬:০১ অপরাহ্ণ ,১ মার্চ, ২০১৭
পিকচার

স্টাফ রিপোর্টার॥ দুই সহকর্মীর সাজার প্রতিবাদে সারাদেশে পরিবহন শ্রমিকদের ডাকা ধর্মঘট দ্বিতীয় দিন দুপুর পর্যন্তও অব্যাহত ছিলো। এ ধর্মঘটের ফলে পাল্টে যায় দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার প্রবেশদ্বারখ্যাত রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ঘাটের দৃশ্যপট। যে স্থানটি প্রতিদিন হাজার-হাজার যানবাহন ও মানুষের পদচারনায় মুখরিত থাকে সেটি দেখা যায় জনশূণ্য।

ধর্মঘটের ফলে ঘাট কেন্দ্রিক আয়ের উপর নির্ভরশীল সহস্রাধিক মানুষের আয় রোজগার বন্ধ হয়ে যায়। এদিকে, ঘাটে যানবাহন না থাকায় ফেরি পারাপার বন্ধের উপক্রম হয়ে একদিনে প্রায় ২০ লাখ টাকা লোকসান গুনতে হয় বলে জানান বিআইডাব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ।

বুধবার (১ মার্চ) দুপুর ১২টার দিকে সরেজমিনে দেখা যায় দৌলতদিয়া ঘাটে যানবাহন ও যাত্রীর কোন চাপ নেই। দুরপাল্লার কোন যানবাহন ঘাটে প্রবেশ করছে না। স্থানীয় লোকাল বাসগুলোও বন্ধ রয়েছে। দৌলতদিয়া ঘাট থেকে গোয়ালন্দ মোড় পর্যন্ত মাহেন্দ্র গাড়ি এবং অটোরিকশা চলাচল করছে। তাও সীমিত সংখ্যক যাত্রী নিয়ে। তবে কিছু ব্যক্তিগত যানবাহন ও এম্বুলেন্স চলাচল করতে দেখাগেছে।

ঢাকার এয়ারপোর্ট থেকে যশোরগামী ইকবাল হোসেন নামে এক যাত্রী বলেন, ঢাকা থেকে কোন পরিবহন না পেয়ে ভেঙে ভেঙে সিএনজি, রিকশা ও ভ্যানে করে অনেক কষ্টে পাটুরিয়া ঘাটে আসতে হয়েছে। এরপর ফেরি পার হয়ে দৌলতদিয়া ঘাটে আসলাম। এখন যশোর যাবো কিভাবে তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছি।

চঞ্চল সরদার নামে এক যাত্রী বলেন, জরুরি কাজে রাজবাড়ী থেকে ঢাকায় যেতে হবে। কিন্তু কিভাবে যাবো তা ভেবে পাচ্ছি না। পরিবহন শ্রমিকরা সাধারণ মানুষের সাথে খেলা করছে।

এ সময় ইকবাল ও চঞ্চলের মতো আরও অনেক যাত্রীই তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করে দ্রুত ধর্মঘট প্রত্যাহারের দাবি জানান।

বিআইডাব্লিউটিসি’র দৌলতদিয়া ঘাট ব্যবস্থাপক মো. শফিকুল ইসলাম জানান, ধর্মঘটের কারনে যানবাহনের অভাবে মঙ্গলবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) সকাল থেকে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া রুটে চলাচলকারী ১৫টি ফেরি অলসভাবে বেঁধে রাখা হয়। মাঝে মাঝে ব্যক্তিগত কিছু গাড়ি ও দুই/একটি এ্যাম্বুলেন্স আসলে সেগুলো ছোট ফেরিতে করে পার করা হয়। ধর্মঘটের ফলে ফেরি চলাচল খাত থেকে সরকার একদিনে প্রায় ২০লাখ টাকা আয় থেকে বঞ্চিত হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে, ধর্মঘটকে কেন্দ্র করে রাজবাড়ী জেলার কোথাও কোন অপ্রিতীকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। স্থানীয় শ্রমিকরা শান্তিপূর্ণভাবেই ধর্মঘট পালন করেছেন।

রাজবাড়ী জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি রকিবুল ইসলাম পিন্টু জানান, রাজবাড়ী জেলায় শান্তিপূর্ণভাবে ধর্মঘট পালন করা হয়েছে। মন্ত্রীর আহ্বানের পর থেকে পরিবহন চলাচল শুরু করা হয়েছে।

রাজবাড়ীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুহাম্মদ তারিকুল ইসলাম জানান, ধর্মঘটকে ঘিরে মঙ্গলবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) থেকেই রাজবাড়ী জেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে পুলিশ মোতায়ন করা হয়। তবে জেলার কোথাও কোন অপ্রিতীকর ঘটনা ঘটেনি।

Comments

comments


এই নিউজটি 918 বার পড়া হয়েছে
[fbcomments"]