রাজবাড়ীতে শিক্ষকের ওপর হামলাকারীদের বিচার দাবিতে মানববন্ধন

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ৬:৩৮ অপরাহ্ণ ,১ এপ্রিল, ২০১৭ | আপডেট: ৬:৪৮ অপরাহ্ণ ,১ এপ্রিল, ২০১৭
পিকচার

স্টাফ রিপোর্টার॥ রাজবাড়ীতে যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করায় স্কুল শিক্ষক কাজী আমজাদ হোসেনকে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করার ঘটনায় জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

শনিবার (১ এপ্রিল) দুপুর ১২টায় জেলা সদরের খানখানাপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় দৌলতদিয়া-খুলনা জাতীয় মহাসড়কে এ কর্মসূচি পালিত হয়। আমজাদ হোসেন খানখানাপুর তমিজউদ্দিন খান উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক।

মানববন্ধনে তমিজউদ্দিন খান উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়সহ স্থানীয় কয়েকটি বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা অংশগ্রহণ করেন। এছাড়া বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি রাজবাড়ী জেলা শাখা ও জেলা শিক্ষক-কর্মচারি কল্যাণ সমিতির নেতৃবৃন্দ, খানখানাপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ও সদস্যবৃন্দ এবং খানখানাপুর বাজার ব্যবসায়ী সমিতির নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার বিপুল সংখ্যক মানুষ এতে অংশ নেন।

মানববন্ধনে বক্তব্য দেন – খানখানাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল করিম লাল, বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি রাজবাড়ী জেলা শাখার সভাপতি মীর মাহফুজা খাতুন মলি, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক, সদর উপজেলা শাখার সভাপতি সুশীল দত্ত তাপস, জেলা শিক্ষক-কর্মচারি কল্যাণ সমিতির সভাপতি গাজী আহসান হাবীব, শিক্ষক কর্মচারী কল্যাণ সমিতি সদর উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন, খানখানাপুর তমিজউদ্দিন খান উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. শফি উল্লাহ, সুরাজ মোহিনী ইনষ্টিটিউট স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক সিরাজ উদ্দিন, বসন্তপুর কো-অপারেটিভ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আদেল উদ্দিন, কোলা সদর উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফরহাদ হোসেন, খানখানাপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান একেএম ইকবাল হোসেন, খানখানাপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. নাজিম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক আমির আলী মোল্লা প্রমুখ।

শিক্ষক সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা তাদের বক্তব্যে ৪৮ ঘন্টার আল্টিমেটাম দেন। এই সময়রে মধ্যে অপরাধীদের গ্রেফতার করে শাস্তির আওতায় না আনা হলে তারা অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতিতে যাবার হুশিয়ারি প্রদান করেন।

তমিজউদ্দিন খান উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. শফি উল্লাহ জানান, মঙ্গলবার (২৮ মার্চ) দুপুরে তাদের স্কুলে বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান ছিলো। ওই অনুষ্ঠানে চর খানখানাপুর গ্রামের সবুজ সরদার (২০), রাশেদুল সরদার (২১) ও সবুজ মোল্লা (২০)সহ অজ্ঞাতনামা কয়েকজন বখাটে স্কুলের ছাত্রীদের যৌন হয়রানি করে। এ সময় স্কুলের সহকারী শিক্ষক আমজাদ হোসেন বখাটেদের ধমক শাসন করেন। এতে ওই বখাটেরা ক্ষিপ্ত হয়।

তিনি আরও জানান, অনুষ্ঠান শেষে বিকেলে সাড়ে ৩টার দিকে আমজাদ হোসেন মোটর সাইকেলযোগে বাড়ি ফিরছিলেন। পথে সে খানখানাপুর কুন্ডুপাড়া এলাকায় পৌছালে বখাটেরা লোহার রড দিয়ে তার শরীরে ও মাথায় আঘাত করে। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। এ সময় তাকে উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে ওইদিন সন্ধ্যায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। এরপর বুধবার (২৯ মার্চ) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ঢাকা জাতীয় চক্ষু হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে তার অবস্থার আরও অবনতি হওয়ায় বৃহস্পতিবার (৩০ মার্চ) তাকে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তিনি সেখানেই চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

মো. শফি উল্লাহ আরও জানান, এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (৩০ মার্চ) রাজবাড়ী সদর থানায় ৩ বখাটের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করা হয়। কিন্তু থানায় মামলাটি রেকর্ড করা হলেও এখনো পর্যন্ত কোন আসামীকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

এ বিষয়ে রাজবাড়ী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবুল বাশার মিয়া জানান, ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতারে পুলিশ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

রাজবাড়ী নিউজ২৪.কম/ আশিক


এই নিউজটি 3794 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments