বালিয়াকান্দিতে ভুয়া র‌্যাব কর্মকর্তাসহ আটক ৪

স্টাফ রিপোর্টার|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ৬:০১ অপরাহ্ণ ,৫ আগস্ট, ২০১৭ | আপডেট: ১০:৩১ অপরাহ্ণ ,৫ আগস্ট, ২০১৭
পিকচার

বালিয়াকান্দি : রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলায় র‌্যাব পরিচয় দিয়ে প্রতারণার চেষ্টাকালে ভ‍ুয়া র‌্যাব কর্মকর্তাসহ চারজনকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সদস্যরা।শনিবার (০৫ আগস্ট) দুপুর ১২টার দিকে উপজেলা পরিষদ এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।

এ সময় তাদের ব্যবহৃত একটি প্রাইভেটকার, এক জোড়া হ্যান্ডক্যাপ, ছয়টি মোবাইল, বাঁশি এবং নগদ ১৭ হাজার টাকা জব্দ করা হয়।

আটকরা হলেন- রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার বালিয়াডাঙ্গী গ্রামের মো. মোয়াজ্জেম হোসেনের ছেলে র‌্যাবের ক্যাপ্টেন পরিচয়দানকারী মো. তৌহিদুল ইসলাম শুভ (২১), শুভ’র সহযোগী রাজবাড়ী সদর উপজেলার মহিষবাথান গ্রামের মো. শহিদুল্লাহ মিয়ার মেয়ে মোছা. রিক্তা খাতুন (২০), গোপিনাথদিয়া গ্রামের জালাল উদ্দিনের ছেলে মো. ওয়াসিম আকরাম (২০) ও ফরিদপুর সদর উপজেলার কছিমুদ্দিন ব্যাপারিডাঙ্গী গ্রামের মো. আব্দুর রব মিয়ার ছেলে মো. সোহেল রানা (২২)।

এদের মধ্যে তৌহিদুল ফরিদপুর মহাবিদ্যালয়ের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্র এবং সোহেল রানা রাজবাড়ী জেলা গোয়েন্দা পুলিশে (ডিবি) কনস্টেবল পদে কর্মরত রয়েছেন।

র‌্যাব-৮ ফরিদপুর ক্যাম্পের দুই নম্বর কোম্পানির অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রইছ উদ্দিন বলেন, বালিয়াকান্দি উপজেলার আমতলা বাজার এলাকার বাসিন্দা এবং রাজবাড়ী সড়ক ও জনপথ অফিসের কার্য সহকারী খন্দকার গোলাম আজমের কাছে র‌্যাবের ক্যাপ্টেন পরিচয় দিয়ে মোবাইল ফোনে পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন তৌহিদুল। এরপর গোলাম আজম চাঁদা দাবির বিষয়টি আমাকে জানান। চাঁদা দেওয়ার কথা বলে কৌশলে তৌহিদুলকে বালিয়াকান্দিতে আনতে বলি গোলাম আজমকে। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তৌহিদুল তার তিন সহযোগীকে সঙ্গে করে একটি প্রাইভেটকারে চড়ে বালিয়াকান্দি উপজেলা পরিষদ এলাকায় গোলাম আযমের কাছে চাঁদা নিতে আসেন। এ সময় আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা র‌্যাব সদস্যরা তৌহিদুল ও তার সহযোগীদের আটক করেন।

তিনি আরও বলেন, তৌহিদুল বিভিন্ন জায়গায় র‌্যাবের কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে চাঁদাবাজী করে আসছিলেন। এ ঘটনায় তৌহিদুল ও তার তিন সহযোগীর বিরুদ্ধে বালিয়াকান্দি থানায় মামলা দায়ের করে তাদের ওই থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

ভুক্তভোগী গোলাম আজম বলেন, তৌহিদুল তাকে ফোন দিয়ে র‌্যাবের অধিনায়ক পরিচয় দেন। এরপর তিনি তার কাছে পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। টাকা না দিলে তৌহিদুল তাকে ক্রসফায়ারে দিবেন বলেও হুমকি দেন। এরপরই তিনি বিষয়টি র‌্যাব-৮ ফরিদপুর ক্যাম্পের দুই নম্বর কোম্পানির অধিনায়ক রইছ উদ্দিনকে জানান।l


এই নিউজটি 3116 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments

Developed by: Tech-Loge

x