,

রাজবাড়ীতে সড়ক ও জনপথ শ্রমিক কর্মচারি ইউনিয়নের মানববন্ধন

News

রাজবাড়ী : রাজবাড়ীতে সড়ক ও জনপথ বিভাগে কর্মরত ওয়ার্কচার্জড ও মাষ্টাররোল কর্মচারিদের নিয়মিত করণসহ সাত দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রোববার (১২ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টায় বাংলাদেশ শ্রমিক কর্মচারি ইউনিয়ন রাজবাড়ী জেলা সংসদের আয়োজনে সড়ক ও জনপথ বিভাগের সামনে দৌলতদিয়া-কুষ্টিয়া সড়কে ঘন্টাব্যাপী এ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মানববন্ধন চলাকালে ওয়ার্কচার্জড ও মাষ্টাররোল কর্মচারিদের নিয়মিত করণসহ সাত দফা দাবি জানিয়ে বক্তব্য দেন- বাংলাদেশ শ্রমিক কর্মচারি ইউনিয়ন রাজবাড়ী জেলা সংসদের সভাপতি গোপাল চন্দ্র চক্রবর্তী, সহ-সভাপতি রবিউল আলম, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান মোল্লা, সহ সাধারণ সম্পাদক মো. ফরহাদ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক নওশের আলী, প্রচার সম্পাদক শান্তুনু কুমার স্যানাল, কোষাধক্ষ্য মো. আব্দুল কুদ্দুস মণ্ডল প্রমুখ।

বক্তরা বলেন, অবিলম্বে সড়ক ও জনপথ বিভাগে কর্মরত ওয়ার্কচার্জড ও মাষ্টাররোল কর্মচারিদের নিয়মিতকরণ করতে হবে।

এছারা সাত দফা দাবিগুলো হলো- (১) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় কর্তৃক যাচাই বাছাইকৃত ২৬৬৭ জন ওয়ার্কচার্জড কর্মচারিদেরকে দ্রুততম সময়ের মধ্যে শুণ্য পদের বরাবরে নিয়মিত ও অবশিষ্ট ৪৩৯২ জন ওয়ার্কচার্জড কর্মচারীদিগকে শর্ত শিথিল পূর্বক পূর্বের ন্যায় কনভার্টেট রেগুলার এর আওতায় এনে নিয়মিত করনের প্রজ্ঞাপন/এসআর জারী করতে হবে।

(২) বিভিন্ন শ্রেণী/সড়ক বিভাগে কর্মরত কর্মচারিগণ কর্তৃক মহামান্য হাইকোর্ট/সুপ্রমি কোর্টে দাযেরকৃত মামলার রায়/নির্দেশনা দ্রুততম সময়ের মধ্যে বাস্তাবায়ন করতে হবে।

(৩) ওয়ার্কচার্জড কর্মচারীদের কে নিয়মিতকরনের পর মাষ্টাররোল কর্মচারিদেরকেও নিয়মিত সংস্থাপন আনয়ন করতে হবে। পূর্বের ন্যায় মাস্টাররোল কর্মচারিদেরকে জাতীয় বেতন স্কেল-২০১৫ অনুযায়ী শ্রেণী ভিত্তিক সারাদেশে একই হারে দৈনিক মজুরী নির্ধারণ করতে হবে।

(৪) কনভার্টেড নিয়মিত কর্মচারীসহ সকল নিয়মিত কর্মচারিকে যথাসময়ে পদোন্নতির ব্যাবস্থা করতে হবে।

(৫) অধিদপ্তরের প্রস্তাবিত সাংগঠনিক কাঠামো (সেটআপ) কর্মকর্তাদের ন্যায় ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারিদের কে সাংগঠনিক কাঠামো (সেটআপ) চূড়ান্তভাবে অনুমোদন করতে হবে। সাংগঠনিক কাঠামো অনুমোদন ব্যাতিরেকে কোন ভাবেই ৩য় ও ৪র্থ শ্রেষীর কোন পদে নিয়োগ কার্যক্রম গ্রহণ করা যাবে না। অধিদপ্তরের কর্মচারিদের মধ্যে অসন্তোশ ও শৃঙ্খলা বিনষ্ট হয় এমন কার্যক্রম গ্রহণ থেকে বিরত থাকতে হবে।

(৬)  ওয়ার্কচার্জড কর্মচারিদের চাকুরির বর্তমান বয়সসীমা ৬০ বৎসরের স্থলে ৬২ বৎসর করতে হবে।

(৭) ওয়ার্কচার্জড কর্মচারিদের মধ্যে বিনা পেনশনে যাদের বয়স ৬০ বৎসর পূর্ণ হয়েছে/মৃত্যুবরণ করেছে তাদেরকে বিভাগীয়ভাবে অনুদানের ব্যবস্থা করতে হবে।

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর