,

‘মীর মশাররফ স্মৃতিকেন্দ্র হবে দেশের প্রধান সাংস্কৃতিক কেন্দ্র’

News

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলা সাহিত্যের দিকপাল ও কালজয়ী উপন্যাস বিষাদ সিন্ধুর রচয়িতা ‘মীর মশাররফ হোসেন স্মৃতিকেন্দ্রকে’ দেশের অন্যতম প্রধান সাংস্কৃতিক কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর।

বুধবার (১৫ নভেম্বর) দুপুরে মীর মশাররফ হোসেনের ১৭০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার পদমদী গ্রামে মীরের সমাধি প্রাঙ্গনে অবস্থিত ‘মীর মশাররফ হোসেন স্মৃতিকেন্দ্রে’ বাংলা একাডেমি কর্তৃক আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ প্রতিশ্রুতি দেন।

মন্ত্রী বলেন, মীর মশাররফ হোসেনের জীবন-কর্ম ও বাংলা সাহিত্যে তার যে অবস্থান তা ব্যাখ্যা করে শেষ করা যাবে না। আমরা সমস্ত বাংলা ভাষাভাষী মানুষ তাকে নিয়ে গর্ব করি। কারণ বাংলাদেশে এমন একটা সময় ছিলো, যখন এমন কোনো বাড়ি খুঁজে পাওয়া যেতো না যে বাড়িতে বিষাদ-সিন্ধু গ্রন্থটি ছিলো না।

রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলায় হিন্দু বাড়িতে হামলার ব্যাপারে সাংবাদিকদের করা এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের আমরা দু’হাত বাড়িয়ে আশ্রয় দিচ্ছি। তাদেরকে মানবিক সহায়তা দিচ্ছি। এমন সময়ে তারাগঞ্জে হামলার ঘটনাটি উদ্দেশ্য প্রণোদিত। দেশে অস্থিরতা, অরাজকতা সৃষ্টি করতে, বিশেষ করে সামনের জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে নানাভাবে প্রশ্নবিদ্ধ করতে কিছু কিছু সাম্প্রদায়িক শক্তি যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব বিশ্বাস করে না তারাই এ ধরনের কর্মকাণ্ড ঘটাচ্ছে।

বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক ড. শামসুজ্জামান খানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলা একাডেমির সচিব (অতিরিক্ত সচিব) মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন।

এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য মো. জিল্লুল হাকিম, রাজবাড়ীর ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক ড. একেএম আজাদুর রহমান, রাজবাড়ী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ফকীর আব্দুল জব্বার ও বালিয়াকান্দি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম আজাদ।

প্রবন্ধকার হিসেবে-নর্থ বেঙ্গল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. মুহম্মদ আবদুল জলিল এবং আলোচক হিসেবে ঢাকাবিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক ড. এ এম মাসুদুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

মীর মশাররফ হোসেন স্মৃতিকেন্দ্রে মধ্যাহ্ন ভোজের পর বিকেল ৩টার দিকে বালিয়াকান্দি স্টেডিয়াম থেকে হেলিকপ্টারে করে ঢাকা যান মন্ত্রী।

বিকেলে জন্মবার্ষিকীর অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। রাজবাড়ী সরকারী কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক ফকীর আবদুর রশিদের সভাপতিত্বে ওই অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন- বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মাসুম রেজা।

আলোচক হিসেবে ছিলেন- বালিয়াকান্দি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ও মীর মশাররফ হোসেন সাহিত্য পরিষদের সভাপতি বিনয় কুমার চক্রবর্তী ও বালিয়াকান্দি কলেজের অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফা। সন্ধ্যায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হচ্ছে।

রাজবাড়ী নিউজ২৪.কম/ আশিক

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর