,

বনানী’র ‘৮০’ বাড়ী’তে একমুঠো জোনাকি’র স্রেফ মৃত্যু – এহসান কলিন্স

News
প্রিয় মেয়র আনিসুল হক এর মৃত্যুর স্মরনে

(প্রিয় মেয়র আনিসুল হক এর মৃত্যুর স্মরনে )

নিভে যায় সব আলো
থেমে যায় সব মুখরতা,
ঢেকে দেয় পারাপার
শুধু অমানিশা ।
তখনও কোথাও জেগে থাকে
একমুঠো জোনাকি পোকা…

মৃত্যু(ইংরেজি ভাষায়: Death) বলতে জীবনের সমাপ্তি বুঝায়। জীববিজ্ঞানে মৃত্যুর সংজ্ঞা পড়েছিলাম,প্রাণ আছে এমন কোন জৈব পদার্থের (বা জীবের) জীবনের সমাপ্তিকে মৃত্যু বলে। অন্য কথায়, মৃত্যু হচ্ছে এমন একটি অবস্থা (state, condition) যখন সকল শারিরীক কর্মকাণ্ড যেমন শ্বসন, খাদ্য গ্রহণ, পরিচলন, ইত্যাদি থেমে যায়। কোন জীবের মৃত্যু হলে তাকে মৃত বলা হয়।

ভাষাদার্শনিক দেরিদা এর একটি লেখা পড়েছিলাম, প্রতিটি প্রতিশ্রুতির ভেতর জড়িয়ে থাকে অন্তর্গত বিচলন (ইংরেজি অনুবাদে আছে ইন্টারনাল আপসেট)। যার কারণ প্রতিটি প্রতিশ্রুতিতে থাকে অবিশ্বস্ততা।জীবন একটা প্রতিশ্রুতিই তো। সেই প্রতিশ্রুতিতেই বেশী থাকে অবিশ্বস্ততা। অতএব মৃত্যু জীবনের অনিবার্য শর্ত। জীবনের প্রতিটি কার্যকর উচ্চারণে (পারফরমেটিভ আটারেন্স) ছায়া ফেলে আছে মৃত্যু।

যারা প্রতিভাবান, যারা শিল্পের সঠিক বিকাশ ঘটায় তাদের বেশীরভাগ মৃত্যুই স্বাভাবিক নয়। খাঁন মোহাম্মদ ফারাবী ২০ বছরেই ‘ আকাশের ওপারে আকাশ’ লিখে কালজয়ী হয়েছিলেন। তারপরই মৃত্যু। এটাই আমার এই ভাবনার একটি চুড়ান্ত খতিয়ান। স্রেফ মৃত্যুই বটে। হতে পারে তা অপঘাত,আত্মহনন কিংবা অকালমৃত্যু ।সবটুকু ই স্রেফ মৃত্যু।
জঙ্গলমহলে হঠাত্‍‍ গুলি বা মাইন বিস্ফোরণ. গুরুতর জখম নিরাপত্তাকর্মী. ভয়ংকর ট্রাফিক ভেঙ্গে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়ার আগেই অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ অথবা চিকিৎসকের অবহেলা এবং তার পর মৃত্যু। এবার এসবের কিছু নয়। এবার স্রেফ মৃত্যু।

নন্দিত উপস্থাপক,মেয়র, একজন সফল ব্যবসায়ী চলে গেছেন অস্তপারের দেশে। যেখান থেকে তাঁর কন্ঠস্বর আর কেউ কোন দিন শুনতে পাবে না শুধু ঈশ্বর ছাড়া। যে মানুষটি জোনাকির আলো দেবার মতো এই শহরকে আলোকিত করতে এসেছিলো সেই মানুষটির ই স্রেফ মৃত্যু। এতক্ষনে তাঁর কংকালের পেশীগুলি শক্ত হয়ে গেছে, যাকে বলে Rigor mortis। তাঁর দেহের পচন শুরু হয়ে গেছে এতক্ষনে, এর জন্য দায়ী এনজাইম ও ব্যাক্টেরিয়া।

পবিত্র কোরআন এ সূরা আল-বাক্বারা আয়াত-২৫৫ নং আয়াতে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন- মহান ও পরাক্রমশালী আল্লাহ্‌ আত্তাকে বলেন, “বেরোও।” সে বলে, “না আমি স্বেচ্ছায় বেরোব না।” আল্লাহ বলেন, “অনিচ্ছায় হলেও, বেরোও।” সারা রাতের সোনালী জোৎস্না শেষে হয়তো প্রিয় মেয়র আনিসুল হক এর -অনিচ্ছায় হলেও বের হতে হয়েছে  একটি সত্য মৃত্যুর জন্যে।

কিছুদিন আগেও এই সময়ে এই বিশাল মনের মানুষটি হয়তো জোৎস্নার প্লাবনে স্বপ্ন দেখছিল একটি নতুন দিনের,প্রত্যয়ের, এই ধুলাবালির শহরের । হয়তোবা বনানী’র ‘৮০’ বাড়ী’র ছাদের বাগানে স্যারের হাতে ছিল একমুঠো জোনাকি ! আর আজ আমি লিখছি তাঁর মৃত্যুর সংজ্ঞা। হয়তোবা কালরাতে কেউ না কেউ লিখবে আমাদের জন্যে একটি দীঘ৺ রচনাবলী-সবটুকু ই স্রেফ মৃত্যুর।

আর কখনো ফেরা হবে না !
দেখা হবে না আর, শিথলে পরা সেই সিঁড়ি পুকুরের জলে
সবথেকে সুন্দর নিজের মুখখানি !
আর কথা হবে না !
কথা হবে না আর, আমার এই শহরের নগর জীবন নিয়ে।
আর বলা হবে না ! আজ আমার জন্যেই একটু তৈরী থেকো !
জীবন হয়তো ঐখানেই, সিমছাম কোনো এক সাদা কালো দ্বীপে …
নজরুলের ফেনী ব্রাউন পাথর হয়ে থাকা।

প্রিয় আনিসুল হক, অস্তপারের সবথেকে সুন্দর ফুলের বাগানটি যেন আপনার হয় ! যদি কখনও সুযোগ হয়, কোন এক রাতে একমুঠো জোনাকি হয়ে দেখে যাবেন শুধু এই ধুলাবালির শহর নয়, যে দেশটি আপনি রেখে গেলেন সবাই আপনার জন্যে কেমন করে কাঁদছে !
ওপারের সবথেকে সুন্দর ফুল বাগানে আপনি ভালো থাকবেন !

ধন্যবাদ,
এহসান কলিন্স | লেখক, কথা সাহিত্যিক | তরু মাধবী ,ঢাকা, 

ahasan.kalince@gmail.com

 

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর