,

সর্বশেষ :
সুষ্ঠু নির্বাচন হলে রাজবাড়ী-১ আসন পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হবো : অ্যাড. খালেক রাজবাড়ী-১ আসনে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী অ্যাড. আসলাম মিয়ার গণসংযোগ রাজবাড়ী-১ আসনের জন্য আ’লীগের মনোনয়ন ফরম নিলেন ইমদাদুল হক বিশ্বাস রাজবাড়ীতে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন রাজবাড়ীতে এসএসসি পরীক্ষার্থীকে কুপিয়ে জখম রাজবাড়ী-১ আসনের জন্য আ’লীগের মনোনয়ন ফরম নিলেন আশরাফুল ইসলাম রাজবাড়ী-১ আসনের জন্য জাতীয় পার্টির মনোনয়ন ফরম নিলেন মিল্টন প্রত্যেকটি মানুষের ঘরে শান্তি পৌঁছে দেওয়া হবে : রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার রাজবাড়ীতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ চরমপন্থি নেতা নিহত রাজবাড়ীতে বিএনপি’র ২৭ নেতাকর্মী কারাগারে

রাজবাড়ীতে এসএসসি’র ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের অভিযোগ, মানববন্ধন

News

স্টাফ রিপোর্টার॥ রাজবাড়ী সদর উপজেলার চন্দনী ইউনিয়নের বাবুপুর কছিমউদ্দিন বিদ্যাপীঠে ২০১৮সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। এ অভিযোগ এনে আদায়কৃত অতিরিক্ত টাকা ফেরত ও সংশ্লিষ্ট স্কুল কর্তৃপক্ষের শাস্তিদের দাবিতে মানববন্ধন করেছে পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

সোমবার (৪ ডিসেম্বর) সকালে রাজবাড়ী প্রেসক্লাবের সামনে বাবুপুর বি,কে,বি  ছাত্র কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে এ কর্মসূচী পালন করা হয়। মানববন্ধন শেষে জেলা প্রশাসক মো. শওকত আলীর কাছে একটি স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

মানববন্ধনে বাবুপুর বি,কে,বি ছাত্র কল্যাণ সংস্থার সভাপতি মো. মোফাজ্জেল হোসেন বক্তব্য দেন। এতে চন্দনী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি শরিফুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জুয়েল রানাসহ ওই স্কুলের ছাত্ররা অংশ নেন।

বক্তারা বলেন, এ বছর স্কুলটিতে ৮৬জন ছাত্র-ছাত্রী এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিবে। শিক্ষা বোর্ডের নির্ধারিত ফি মানবিক ও ব্যবসায় শাখার জন্য এক হাজার ৪৯০টাকা এবং বিজ্ঞান শাখার জন্য এক হাজার ৫৭০ টাকা হলেও তাদের কাছ থেকে দুই হাজার ৬০০টাকা থেকে পাঁচ হাজার ৩০০ টাকা পর্যন্ত আদায় করেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ।

রাশেদ শেখ নামে এক পরীক্ষার্থী জানান, তার কাছ থেকে তিন হাজার ১০৫টাকা নেওয়া হয়েছে। কিন্তু রশিদ দেয়া হয়েছে এক হাজার ৭০৫ টাকার। একই কথা জানান অপর পরীক্ষার্থী মাসুম বিল্লা। তার কাছ থেকে দুই হাজার ৯০০টাকা নেওয়া হয়েছে। অথচ রশিদ দেয়া হয়েছে এক হাজার ৭০৫টাকার। মোজাহার হোসেন নামে এক অভিভাবক জানান, তার মেয়ে পাপিয়া আক্তারের জন্য তিনি দুই হাজার ৫০০ টাকা দিয়েছেন। কিন্তু আরো এক হাজার ৩০০ টাকা দাবি করা হয়েছে। এ টাকা না দিলে তাকে রশিদ দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন স্কুল কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে বাবুপুর কছিমউদ্দিন বিদ্যাপীঠ স্কুলের প্রধান শিক্ষক সেলিনা খাতুন বলেন, শিক্ষা বোর্ডের নির্ধারিত ফি অনুযায়ীই পরীক্ষাদের কাছ থেকে টাকা নেওয়া হয়েছে। কারো কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা নেওয়া হয়নি।

স্কুলটির সভাপতি ফজলুল হক ফজের বলেন, অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার ঘটনাটি মিথ্যা। আমাকে সভাপতি পদ থেকে সরানোর জন্য একটি কুচক্রী মহল নানাভাবে ষড়যন্ত্র করে আসছে। এটিও তাদেরই অপপ্রচার।

তিনি বলেন, আমরাও চাই এ ঘটনার তদন্ত হোক। তদন্তে যদি প্রমাণিত হয় শিক্ষকরা এসএসসি’র ফরমপূরণে অতিরিক্ত টাকা আদায় করেছে, তাহলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা পারমিস সুলতানা বলেন, বিষয়টি আমি তদন্ত করছি। তদন্তে যদি অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার বিষয়টি প্রমাণিত হয়, তাহলে জড়িতদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

রাজবাড়ী নিউজ২৪.কম/ আশিক

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর