,

রাজবাড়ীতে কাল থেকে শুরু হচ্ছে ইজতেমা

News

রাজবাড়ী : নিজেদের আত্মশুদ্ধি এবং আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যে রাজবাড়ীতে প্রথমবারের মতো শুরু হতে যাচ্ছে তিনদিন ব্যাপী ইজতেমা।

বৃহস্পতিবার (১ ফেব্রুয়ারি) জেলা সদরের আলীপুর ইউনিয়নের ইন্দ্রনারায়নপুর গ্রামে দৌলতদিয়া-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কের পূর্ব পাশে মাঠে ফজরের নামাজের মধ্য দিয়ে শুরু হবে এ ইজতেমা।

ইতিমধ্যে ইজতেমার সকল প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। জেলার পাঁচটি উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে ইজতেমা মাঠে আসতে শুরু করেছেন ধর্মপ্রাণ মুসল্লীরা।

শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে ইজতেমা শেষ হবার কথা রয়েছে। প্রথমবারের মতো আয়োজিত এ ইজতেমায় লক্ষাধিক ধর্মপ্রাণ মুসল্লীর সমাগম ঘটবে বলে ধারণা করছেন আয়োজক কমিটি।

জেলা ইজতেমা কমিটির আহালে সুরা ফয়সাল (সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী) আ. হাকিম তালুকদার জানান, তুরাগ নদীর তীরে স্থান সংঙ্কুলান না হওয়ার কারণে বিশ্ব ইজতেমার কমিটি ও সরকারের সিধান্ত অনুয়ারী রাজবাড়ীতে প্রথমবারের  মতো এই ইজতেমার আয়োজন করেছেন জেলা ইজতেমা কমিটি। এ ইজমোয় প্যান্ডেলের মধ্যে ৫৫ হাজার মুসল্লীর শোবার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। ইজতেমা মাঠে প্রবেশের জন্য দুইটি পথ রাখা হয়েছে। প্রধান প্রবেশপথ রাখা হয়েছে দৌলতদিয়া-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কের আলীপুর টিটিসি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের সামনে দিয়ে। অন্য পথটি রাখা হয়েছে কামালদিয়া সড়ক দিয়ে পূর্ব পাশে।

তিনি জানান, সাড়ে ২২ একর জামির ওপর আয়োজিত এ ইজতেমায় নামাজের জন্য ১৪৪টি কাতারের ব্যবস্থা রয়েছে। ইজতেমা মাঠে মুসল্লীদের জন্য ৬২০ টি টয়লেট, ২৫০টি প্রসাবখানা, তিনটি পুকুর ও ২৫০০ ওজুখানার ব্যবস্থা রয়েছে। আলোর জন্য ১২০০ লাইট লাগানো হয়েছে। বিদ্যুৎ চলে গেলে বিকল্প ব্যবস্থা রয়েছে। পানি সরবরাহের জন্য বসানো হয়েছে ১২টি পাম্প এবং ১৫টি টিউবওয়েল।

ইজতেমা মাঠে ইমামতি করবেন রাজবাড়ী পৌরসভার অন্তর্গত মার্কাস মসজিদের ইমাম মাওলানা মো. এমদাদুল্লাহ। মাঠের উত্তর-দক্ষিণ প্রান্তের মাঝে উঁচু একটি মঞ্চে থাকবেন বক্তরা। ৮৫টি মাইকের মাধ্যমে শোনা যাবে ইজতেমা মাঠের নামাজ- মোনাজাত এবং বয়ান।

আ. হাকিম তালুকদার আরও বলেন, শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টা থেকে বেলা ১২টার মধ্যে আখেরি মোনাজাত পরিচালনার চিন্তাভাবনা রয়েছে। আখেরি মোনাজাতের দিন লক্ষাধিক মুসল্লীর সমাগম ঘটবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো. রহিম বকস জানান, ইজতেমা ময়দানে একটি মেডিকেল টিম সার্বক্ষনিক নিয়োজিত থাকবে। তারা তিনটি স্তরে চিকিৎসাসেবা প্রদান করবে।

ইজতেমার নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে জেলা পুলিশ সুপার সালমা বেগম পিপিএম বলেন, প্রতিদিন ৭০ হাজার এবং আখেরি মোনাজাতের দিন প্রায় দুই লাখ মুসল্লীর জমায়েতের কথা চিন্তা করে নিরাপত্তার স্বার্থে ইজতেমা মাঠে সার্বক্ষনিক ৪০০ পুলিশ কাজ করবে। জেলা পুলিশের পাশাপাশি আমর্ড পুলিশ, সাদা পোষাকে পুলিশসহ রেঞ্জ থেকে পুলিশ এনে ইজতেমা মাঠে মুসল্লীদের নিরাপত্তা দেওয়া হবে।

রাজবাড়ী নিউজ২৪.কম/ আশিক

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর