,

সর্বশেষ :
শহীদওহাবপুর ও খানখানাপুর ইউনিয়নে বিট পুলিশিং কার্যক্রম শুরু ‘খানখানাপুর প্রবাসী কল্যাণ সংগঠন’-এর উদ্যোগে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ রাজবাড়ীর কৃতি সন্তান সাবেক জেলা জজ শামসুল হক এর বড় সন্তান শামসুল আরেফিন করোনা পজেটিভ। ভাড়া বকেয়া : শিক্ষার্থীর মূল্যবান সার্টিফিকেট ভাগাড়ে ফেললেন বাড়িওয়ালা। বসন্তপুর ইউপির মেম্বার জানে আলমের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনৈতিক কর্মকান্ডের অভিযোগ রাজবাড়ীর বসন্তপুর ইউনিয়নে বিট পুলিশিং কার্যক্রম শুরু দৌলতদিয়ায় যৌনকর্মী ও শিশুদের মধ্যে বিস্কুট বিতরণ রাজবাড়ীতে আশঙ্কাজনকভাবে বাড়ছে করোনা সংক্রমণের হার – Facebook Live রাজবাড়ীতে আশঙ্কাজনকভাবে বাড়ছে করোনা সংক্রমণের হার রাজবাড়ীতে গণমাধ্যমকর্মীদের সুরক্ষা সামগ্রী দিলো পারলিন গ্রুপ

রাজবাড়ীতে বন্দুকযুদ্ধে চরমপন্থি নেতা নিহত

News

রাজবাড়ী : রাজবাড়ীতে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিষিদ্ধ ঘোষিত চরমপন্থি সংগঠনমাওবাদী বলশেভিক অর্গানাইজেশন মুভমেন্ট (এমবিআরএম) আঞ্চলিক কমান্ডার ছাইদুল ওরফে আমির সরদার (৩২) নিহত হয়েছেন ঘটনায় তিন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে

এসময় ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি এসএলআর, একটি বিদেশি দোনালা বন্দুক, ৩২ রাউন্ড গুলি, ২৩টি কার্তুজ, একটি ছোরা ও ছয়টি কার্তুজের খোসা উদ্ধার করা হয়।

সোমবার (১৬ এপ্রিল) দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে জেলা সদরের জৌকুড়া বালুঘাট সংলগ্ন মজিদ সরদারের বালুর চাতাল এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

নিহত ছাইদুল ওরফে আমির সরদার পাবনা জেলার আটঘরিয়া উপজেলার চাচকিয়া গ্রামের তাহামুদ্দিন ওরফে তানু সরদারের ছেলে।

আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন-রাজবাড়ীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাকিব খাঁন, ইন্সপেক্টর জিয়ারুল ইসলাম ও কনস্টেবল পংকজ। তাদের রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৭ এপ্রিল) বেলা পৌনে ১১টায় প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে এ তথ্য জানান পুলিশ সুপার আসমা সিদ্দিকা মিলি।

তিনি জানান, সোমবার দিবাগত গভীর রাতে জেলার সদরের জৌকুড়া বালুঘাট সংলগ্ন মজিদ সরদারের বালুর চাতালের পূর্ব পাশে পদ্মা নদীর পাড়ে মিটিং করছিল চরমপান্থি সংগঠন এমবিআরএম-এর সদস্যরা। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুহাম্মদ রাকিব খাঁনের নেতৃত্বে ডিবি’র একটি দল সেখানে অভিযান চালায়। এসময় পুলিশকে লক্ষ্য করে চরমপান্থি দলের সদস্যরা গুলি ছুড়লে আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। দু’পক্ষের গুলি বিনিময়ের একপর্যায়ে চরমপন্থিরা পালিয়ে যায়। এসময় ঘটনাস্থলে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ছাইদুল ওরফে আমির সরদারকে পড়ে থাকতে দেখে উদ্ধার করা হয়।

এসময় ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি এসএলআর, একটি বিদেশি দোনালা বন্দুক, ৩২ রাউন্ড গুলি, ২৩টি কার্তুজ, একটি ছোরা ও ছয়টি কার্তুজের খোসা উদ্ধার করা হয়।

পরে আহত অবস্থায় ছাইদুলকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে আনা হলে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

পুলিশ সুপার আরো জানান, চরমপন্থি ছাইদুল বিভিন্ন ট্রলারে চাঁদাবাজীসহ অপহরণ এবং কন্ট্রাকের মাধ্যমে খুনের সঙ্গে জড়িত ছিল। এছাড়াও সে পাবনা জেলায় দু’টি হত্যা, দু’টি অস্ত্র ও একটি অপহরণ মামলাসহ সাতটি মামালার গ্রেফতারি পরোয়ানাভুক্ত আসামি।

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর