,

দৌলতদিয়া যৌনপল্লী থেকে নারী উদ্ধার, আটক ২

News

গোয়ালন্দ : পাবনা থেকে নিখোঁজের সাত মাস পর রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া যৌনপল্লী থেকে এক নারীকে (২৮) উদ্ধার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

শনিবার (১২ মে) রাত সাড়ে ৭টার দিকে তাকে উদ্ধার করা হয়। এসময় ওই নারীকে পাঁচার ও জোড়পূর্বক দেহ ব্যবসা করানোর দায়ে বিনা বেগম (৪০) নামে এক নারী ও সুজন খন্দকার (২৮) নামে যৌনপল্লীর এক দালালকে আটক করা হয়।

আটক বিনা পাবনা জেলার আমিনপুর উপজেলার দারিয়াপুর গ্রামের আব্দুর রহমানের স্ত্রী ও সুজন গোয়ালন্দ পৌরসভার এক নম্বর ওয়ার্ডের শাহাদৎ মেম্বার পাড়ার মৃত মোহাম্মদ আলী খন্দকারের ছেলে।

র‌্যাব-৮ ফরিদপুর ক্যা¤েপর কোম্পানি অধিনায়ক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রইছ উদ্দিন বলেন, আটক বিনা বেগম সাত মাস আগে ভালো চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে পাবনা জেলার সাথিয়া থানা থেকে ওই নারীকে দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে এনে সুজনের হাতে তুলে দেয়। এরপর থেকে সুজন ওই নারীকে যৌনপল্লীর একটি ঘরে তালাবদ্ধ রেখে তাকে দিয়ে জোড়পূর্বক দেহ ব্যাবসা করিয়ে আসছিলো। ওই নারী এ অন্ধকার জীবন থেকে মুক্তি চাইলে সুজন তার ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালাতো।

ইতোমধ্যে ওই নারী নিখোঁজ হওয়ার ব্যাপারে তার বড় ভাই র‌্যাব-৮ ফরিদপুর ক্যাম্পের সহযোগিতা কামনা করেন। এরপর বিষয়টি নিয়ে তদন্তে নামে র‌্যাব। অবশেষে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে দৌলতদিয়া যৌনপল্লীর সুজনের বাড়ি থেকে ওই নারীকে উদ্ধার করা হয়। এসময় ওই নারীকে পাঁচার ও জোড়পূর্বক দেহ ব্যবসা করানোর দায়ে বিনা ও সুজনকে আটক করা হয়।

এ ঘটনায় উদ্ধারকৃত নারীর বড় ভাই বাদী হয়ে বিনা ও সুজনের বিরুদ্ধে গোয়ালন্দঘাট থানায় মানব পাচার আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন বলে জানান র‌্যাবের এই কর্মকর্তা।

রাজবাড়ী নিউজ২৪.কম/ আশিক

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর