,

রাজবাড়ীতে ভিজিএফের চাল চুরি করে ফেঁসে গেলেন ইউপি চেয়ারম্যান

News

রাজবাড়ী : ঈদুল ফিতর উপলক্ষে হতদরিদ্রদের জন্য সরকারের দেওয়া বিশেষ ভিজিএফের তিন হাজার ৭শ’ কেজি চাল চুরি করে  ফেঁসে গেছেন রাজবাড়ী সদর উপজেলার শহীদওহাবপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান তোরাপ আলী মন্ডল।

বৃহস্পতিবার (১৪ জুন) সন্ধ্যায় শহীদওহাবপুর ইউনিয়নের রামপুর গ্রামের মোমিন বাজার (চিটার বাজার) সংলগ্ন মনু মিয়ার হলুদের মিল থেকে চালগুলো জব্দ করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সাঈদুজ্জামান খান।

পরে চালগুলো শহীদওহাবপুর ইউনিয়ন পরিষদের প্রাক্তন চেয়ারম্যান ও জেলা পরিষদের সদস্য নূর মোহাম্মদ ভূঁইয়া এবং ওই ইউনিয়নের এক নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য গোলাম হোসেন ফরিদের জিম্মায় রাখা হয়। জব্দকৃত চালের মূল্য দেড় লক্ষাধিক টাকা বলে জানাগেছে।

জানা গেছে, ঈদ উপলক্ষে শহীদওহাবপুর ইউনিয়নের হতদরিদ্রদের জন্য ১৪ হাজার ৪৪৪ কেজি ভিজিএফের চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়। জনপ্রতি ১০ কেজি করে এই চাল বিতরণ করার কথা। ১৪ জুন সকাল থেকে ইউনিয়ণ পরিষদে সেই চাল বিতরণ করা শুরু হয়। ১০ কেজির স্থলে দেওয়া হচ্ছিল ৭ কেজি করে। তারপরেও দুপুর ১টার দিকে কার্ডধারী প্রায় ৪শ’ জনের চাল দেওয়ার আগেই শেষ হয়ে গেলে বিতরণ বন্ধ করে দোোয়া হয়। এ সময় তুমুল হৈচৈ শুরু হয়। একপর্যায়ে শহীদওহাবপুর ইউনিয়নের রামপুর গ্রামের মোমিন বাজার (চিটার বাজার) সংলগ্ন মনু মিয়ার হলুদের মিলে বিপুল পরিমাণ চাল পাঁচারের ঘটনা জানাজানি হয়।

পরে স্থানীয় জনতা কর্তৃক সেই চাল আটকের পর খবর পেয়ে শহীদওহাবপুর ইউনিয়ন পরিষদের প্রাক্তন চেয়ারম্যান ও জেলা পরিষদের সদস্য নূর মোহাম্মদ ভূঁইয়াসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সেখানে উপস্থিত হন। ঘটনাটি জানতে পেরে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সাঈদুজ্জামান খান সন্ধ্যায় ঘটনাস্থলে গিয়ে তিন হাজার ৭শ’ কেজি (১৩৭ বস্তা) চাল জব্দ করেন। খাদ্য অধিদপ্তরের সিলযুক্ত বস্তা থেকে চালুগুলো বের করে সেই বস্তা দিয়েই ঢেকে রাখা ছিলো। চাল জব্দ করার সময় ইউপি চেয়ারম্যান তোরাপ আলী মন্ডল ঘটনাস্থলে গেলে উপস্থিত জনতার রোষানলে পড়েন এবং এক পর্যায়ে গ্রেফতার এড়াতে তিনি সটকে পড়েন।

এ বিষয়ে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সাঈদুজ্জামান খান বলেন, এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান মো. তোরাপ আলী মন্ডলের বিরুদ্ধে সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা এস.এম মনোয়ার মাহমুদ বাদী হয়ে রাজবাড়ী সদর থানায় মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

ইউপি চেয়ারম্যান মো. তোরাপ আলী মন্ডল বলেন, ইউনিয়ন পরিষদ থেকে প্রথম পর্যায়ে এক হাজার ৩৪৪জনের মধ্যে চাল বিতরণ করার থাকলেও পরবর্তীতে ৯৮ জনকে যুক্ত করে এক হাজার ৪৪২জন গরীব-দুঃখীর মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। আমাকে ফাঁসানোর জন্য একটি মহল দুঃস্থদের কাছ থেকে চাল কিনে ভ্যানযোগে মনো মিয়ার হলুদের মিলে রেখে প্রশাসনকে খবর দিয়েছে।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক মো. শওকত আলী বলেন, জব্দকৃত চালের ব্যাপারে দ্রুত মামলা দায়ের করা হবে। মামলায় দোষী ব্যক্তিদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, তোরাপ আলী মন্ডল একজন বিতর্কিত ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত। বিগত বিএনপি-জামাত জোট সরকারের সময় তার উত্থান। কুটির হাটের ইজারা নেওয়ার পাশাপাশি হাটের জায়গা দখল করে অবৈধভাবে মার্কেট নির্মাণ এবং ব্যাংকের টাকা পরিশোধ না করে অর্থ ঋণের মামলায় জড়িয়ে তিনি সমালোচিত হন। এছাড়া, বিগত ইউপি নির্বাচনের পূর্বে মোটা অংকের টাকা-পয়সা খরচ করাসহ বিভিন্ন কৌঁশলে আওয়ামী লীগে যোগদান করে ইউপি চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন বাগিয়ে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

রাজবাড়ী নিউজ২৪.কম/ আশিক

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর