,

সর্বশেষ :
সুষ্ঠু নির্বাচন হলে রাজবাড়ী-১ আসন পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হবো : অ্যাড. খালেক রাজবাড়ী-১ আসনে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী অ্যাড. আসলাম মিয়ার গণসংযোগ রাজবাড়ী-১ আসনের জন্য আ’লীগের মনোনয়ন ফরম নিলেন ইমদাদুল হক বিশ্বাস রাজবাড়ীতে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন রাজবাড়ীতে এসএসসি পরীক্ষার্থীকে কুপিয়ে জখম রাজবাড়ী-১ আসনের জন্য আ’লীগের মনোনয়ন ফরম নিলেন আশরাফুল ইসলাম রাজবাড়ী-১ আসনের জন্য জাতীয় পার্টির মনোনয়ন ফরম নিলেন মিল্টন প্রত্যেকটি মানুষের ঘরে শান্তি পৌঁছে দেওয়া হবে : রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার রাজবাড়ীতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ চরমপন্থি নেতা নিহত রাজবাড়ীতে বিএনপি’র ২৭ নেতাকর্মী কারাগারে

পাটুরিয়ায় ভোগান্তি, দৌলতদিয়ায় স্বস্তি

News

রাজবাড়ী : দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে যাতায়াতের অন্যতম ঘাট পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া। ঘরমুখো মানুষের চাপে এই ঘাটের চিত্র আগের থেকে অন্যরকম। পদ্মার এপারে পাটুরিয়া ঘাটে এখন সারি সারি গাড়ির অপেক্ষা। সকাল থেকে দেখা দিয়েছে অন্তত ১০ কিলোমিটার যানজট। শুক্রবার (১৫ জুলাই) বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যাত্রীদের ভোগান্তি চরমে উঠেছে।

পাশাপাশি প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাসের চালক ও যাত্রীদের দুর্ভোগ অবর্ণনীয়। পাটুরিয়া ৫নং ফেরি ঘাট ছাড়িয়ে ছোট গাড়ীর লাইন চলে যায় গ্রামীন জনপদের রাস্তায়। এছাড়া অনেক যাত্রী ছয় কিলোমিটার পথ পায়ে হেঁটে বাসে উঠেছেন।

এদিকে দৌলতদিয়া ঘাটে মানুষের চাপ থাকলেও তুলনামূলক স্বস্তি রয়েছে এই ঘাটে। তারা নির্বিঘ্নে চলাচল করতে পারছেন। ঘাটে যানজট ও ভোগান্তি নেই।

সরেজমিনে পাটুরিয়া ঘাটে গিয়ে দেখা যায়, ভয়াবহ যানজট। শুক্রবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ঘাট ছাড়িয়ে যানবাহনের লম্বা লাইন চলে গেছে প্রায় ১০ কিলোমিটার পর্যন্ত। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে চিত্র আরও পাল্টাতে থাকে। অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে নাকাল হয়ে ওঠে পাটুরিয়া ঘাট এলাকা।

গোল্ডেন লাইন পরিহনের যাত্রী কুলসুম বেগম। বৃহস্পতিবার রাত ১টার সময়  এসেছেন পাটুরিয়া ঘাটে। প্রায় ৮ ঘণ্টা ধরে পরিবারর ৫ সদস্য নিয়ে গাড়ির ভেতর বসে আছেন। দেখা গেল ছোট ছোট দুই বাচ্চাকে হাতপাখা দিয়ে বাতাস করতে।

ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘এভাবে কত ভোগান্তির শিকার হবো। কাকে বলবো আমাদের এ দুর্ভোগের কথা। প্রচণ্ড গরমে ছেলে-পেলে নিয়ে জীবনটা অস্থির হয়ে উঠছে।’

ঈগল পরিবহনের যাত্রী শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘ঈদে এই ঘাট দিয়ে আসার কথা মনে হলে দম বন্ধ হয়ে আসে। কিন্ত করার কিছু নেই সবই নিয়তি। বড় বাসে এরকম দুর্ভোগের শিকার হাজারো যাত্রী।’

কথা হয় ফরিদপুরের আকরাম হোসেনের সাথে। জানালেন, ভোর ৫টা থেকে প্রাইভেটকারের ভেতরে বসে রয়েছেন ছোট ছোট দুই ছেলে ও স্ত্রীকে নিয়ে। সকাল ১০টা বেজে গেলেও ফেরি ঘাটের কাছে পৌঁছাতে পারেনি।

একই ঘাটে ফেরি না পেয়ে ৪ ঘণ্টা প্রাইভেটকারে বসেছিলেন সৌদি প্রসাসী নুরুল ইসলাম। তিনি যাবেন খুলনা। বলেন, পরিবারের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে সৌদিআরব থেকে ছুটে এসেছি। কিন্ত ঘাটে এত গাড়ির চাপ যে বসে আছি।

শুক্রবার (১৫ জুন) সকাল থেকেই দৌলতদিয়ার লঞ্চঘাট, ফেরিঘাট ও বাস টার্মিনাল এলাকাগুলোতে দেখা যায় ঘরমুখো মানুষের উপচে পড়া ভিড়। সংশ্লিষ্টরা জানান, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে প্রতিদিন গড়ে ৩-৪ হাজার ছোট-বড় যানবাহন পারাপার হয়। ঈদকে ঘিরে এই সংখ্যা বেড়ে হয় কয়েকগুণ।

এদিকে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ রুটে মোট ২০টি ফেরি দিয়ে যানবাহন পারাপারের কথা থাকলেও ফেরি চলাচল করছে ১৭টি। বৃহস্পতিবার রাতে খান জাহান আলী ও হামিদুর রহমানসহ তিনটি  বিকল হয়ে পড়ে। এর মধ্যে বড় রো ফেরি রয়েছে সাতটি। বাকি ফেরিগুলো ছোট। রো রো ফেরি কম থাকায় বড় বাস পারাপারে হচ্ছে ধীরগতিতে। এতে করে সময় গড়াচ্ছে আর যানবাহনের চাপ বেড়েই চলেছে।

বিআইডাব্লিউটিসি আরিচা অঞ্চলের এজিএম জিল্লুর রহমান দাবি করেছেন, বর্তমানে ২০টি ফেরি দিয়ে ঈদে ঘরমুখো যাত্রী ও যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। গাড়ির চাপ থাকলেও ঘাটে সুষ্ঠু পরিবেশ থাকায় যানজট নেই। ছোট গাড়িগুলো জন্য ৫ নম্বর ঘাট এবং বাস কোচের জন্য বাকি আরো তিনটি ঘাট ব্যবহার করা হচ্ছে। তবে মধ্যরাত থেকে যানবাহনের চাপ বেশি পড়ায় পাটুরিয়া ঘাটে দীর্ঘ পড়ে গেছে। এতে কিছুটা  যাত্রী ভোগান্তি হচ্ছে।

মানিকগঞ্জের পুলিশ সুপার রিফাত রহমান শামিম বলেন, পাটুুরিয়া ঘাটে আইন শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ঘাট থেকে ঢাকা-পাটুরিয়া ও আরিচা মহাসড়ক জুড়ে পাঁচশ পুলিশ কাজ করে যাচ্ছেন। এছাড়া যাত্রী নিরাপত্তা ও বিভিন্ন অনিয়ম ঠেকাতে ঘাট এলাকায় ১৫টি পয়েন্টে সিসি ক্যামেরা বসানো হয়েছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন করপোরেশন (বিআইডাব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া ঘাট শাখার বাণিজ্য বিভাগের ব্যবস্থাপক মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা নিরাপদে যাত্রী পারাপার করতে চেষ্টা করছি। অাবহাওয়া অনুকূলে থাকলে যাত্রীরা নির্বিঘ্নে চলাচল করতে পারবেন।’

দৌলতদিয়া লঞ্চঘাটে দেখা গেছে, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে যাত্রী পারাপারের জন্য ৩৩টি লঞ্চ চলাচল করছে। লঞ্চের ভাড়া আগের মতো ২৫ টাকাই রয়েছে। ঈদকে ঘিরে কোনো বাড়তি ভাড়া নেওয়া হচ্ছে না। আর যাত্রীদের লঞ্চে ওঠানামায় সহযোগিতা করছেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।

দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটের সুপারভাইজার মো. মোফাজ্জেল হোসেন বলেন, ‘দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে যাত্রী পারাপারে ঈদ উপলক্ষে কোনো ধরনের অতিরিক্ত ভাড়া ও অতিরিক্ত যাত্রী বহন করা হচ্ছে না।’ লঞ্চে নারী, শিশু ও প্রতিবন্ধী যাত্রীদের বিশেষ সুবিধা দেওয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটে দায়িত্বরত রাজবাড়ী ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সাব অফিসার মো. ইউসুফ মোল্লা বলেন, ‘দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটে ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের লঞ্চে উঠানামায় সহযোগিতা করতে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের ডুবুরিসহ আটজন সদস্য সার্বক্ষণিক নিয়োজিত রয়েছেন।’

রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক মো. শওকত আলী বলেন, ‘ঈদকে ঘিরে লঞ্চ ও বাসে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন ও ভাড়া আদায় ঠেকাতে দৌলতদিয়া ঘাটে ভ্রাম্যমাণ আদালত দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও, মানুষের নির্বিঘ্নে ঘরে ফেরা নিশ্চিত করতে জেলা প্রশাসনের যেসকল প্রস্তুতি রয়েছে তা সঠিকভাবে কার্যকর করার লক্ষ্যে আমরা সার্বক্ষণিক কাজ করে চলেছি।’

রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার আসমা সিদ্দিকা মিলি বলেন, ‘ঈদ ঘিরে চাঁদাবাজ, ছিনতাইকারী, মলম পার্টি ও পকেটমারসহ সব ধরনের অপরাধ কর্মকাণ্ড নির্মূল করতে দৌলতদিয়া ঘাটে পাঁচটি অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প ও একটি র‌্যাব ক্যাম্প বসানো হয়েছে হয়েছে। লঞ্চ ঘাট, ফেরি ঘাট ও বাস টার্মিনালসহ মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশের পাশাপাশি গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি), আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন ও র‌্যাব সদস্যরা রয়েছেন।’

রাজবাড়ী নিউজ২৪.কম/আশিক

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর