,

সর্বশেষ :
অর্থনীতিতে এমনটা এর আগে কখনো হয়নি সাবেক সচিব ও ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার রাজবাড়ীর কৃতি সন্তান বজলুল করিম ও তার স্ত্রী করোনায় আক্রান্ত রাতের আঁধারে দরিদ্রদের বাড়ি বাড়ি ঈদ সামগ্রী পৌঁছে দিলো ‘মানব কল্যাণ ফাউন্ডেশন’ মন্দিরের সামনে গাঁজা খেতে নিষেধ করায় প্রতিমা ভাংচুর বড় ধরণের করোনা ঝুঁকিতে রাজবাড়ী বালিয়াকান্দির নবাবপুর ইউনিয়নের ১১০০ হতদরিদ্র পরিবারের মধ্যে সরকারি ত্রাণ বিতরণ বসন্তপুর ইউনিয়নের ৮০০ হতদরিদ্র পরিবারের মধ্যে সরকারি ত্রাণ বিতরণ হতদরিদ্রদের বাড়ি বাড়ি ঈদের খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিলেন প্রবাসীরা করোনা উপসর্গ নিয়ে স্কুলছাত্রের মৃত্যু, দুই বাড়ি লকডাউন করলেন এসিল্যান্ড রাজবাড়ীর করোনা যোদ্ধা চিকিৎসকদের N95 মাস্ক দিলেন সাবেক জেলা জজ

কালুখালী থেকে উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী সাইফুলকে হটানোর দাবি

News

কালুখালী : রাজবাড়ীর কালুখালী থেকে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী সাইফুল ইসলামকে হটানো ও চাঁদপুর বাসস্ট্যান্ডের যাত্রী ছাউনী ভাংচুরের ঘটনায় জড়িতদের শাস্তি এবং পুনঃনির্মাণ দাবিতে মানববন্ধন করা হয়েছে।

শনিবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে চাঁদপুর বাসস্ট্যান্ডে কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে এ কর্মসূচী পালিত হয়।

মানববন্ধন চলাকালে কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং জেলা পরিষদের সদস্য মিজানুর রহমান মজনু, কালুখালী প্রেসক্লাবের সভাপতি জুলফিকার আলী, মদাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শহিদুল ইসলাম শহিদ, সিনিয়র সহ-সভাপতি ও আসন্ন কালুখালী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী এবিএম রোকনুজ্জামান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলিমুজ্জামান মনেক, মদাপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মোস্তফা জামান জাবেদ প্রমুখ বক্তব্য দেন।

বক্তারা বলেন, কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী সাইফুল ইসলাম দীর্ঘদিন ধরে দলের বিভিন্ন নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ও মিথ্যাচার করে আসছেন। তার ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছেন কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং জেলা পরিষদের সদস্য মিজানুর রহমান মজনু ও মদাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শহিদুল ইসলাম শহিদসহ আরো অনেকে। শুধু ষড়যন্ত্রই নয় ব্যাপক লুটপাট করে কালুখালী উপজেলা পরিষদকে দূর্নীতির আখড়ায় পরিনত করেছেন কাজী সাইফুল ইসলাম।

এছাড়াও গত সংসদ নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও রাজবাড়ী-২আসনের এমপি বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. জিল্লুল হাকিমের বিরুদ্ধেও কাজ করেছেন তিনি। শুধু বিরোধীতাই নয় জিল্লুল হাকিম যাতে দলীয় মনোনয়ন না পান সেজন্য ষড়যন্ত্রকারীদের সঙ্গেও হাত মিলিয়ে গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হোন এবং বিভিন্ন স্থানে অপপ্রচার করেন যে জিল্লুল হাকিমের যুগ শেষ।

বক্তারা বলেন, কাজী সাইফুল ইসলাম কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হয়েও দলীয় কোন কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকেন না। উপজেলা আওয়ামী লীগকে তিনি ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাচ্ছেন। তাই উপজেলা আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হলে কাজী সাইফুলকে কালুখালী থেকে হটাতে হবে।

বক্তারা আরো বলেন, গত ২১ ফেব্রুয়ারি রাতে কাজী সাইফুল ইসলাম তার সন্ত্রাসী বাহিনী সঙ্গে নিয়ে চাঁদপুর বাসস্ট্যান্ডের যাত্রী ছাউনী ভেঙে গুড়িয়ে দেয়। আর রটিয়ে দেয় যে, জেলা পরিষদের সদস্য মিজানুর রহমান মজনু ওই যাত্রী ছাউনীটি ভেঙে দিয়েছেন। কাজী সাইফুলের এসব ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে।

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর