,

সর্বশেষ :
রাজবাড়ীতে ৪৪৫ পিস ইয়াবাসহ মাদক বিক্রেতা আটক গাড়ির কাগজ চুরি করে চালকদের কাছ থেকে টাকা আদায় করাই তার পেশা! গোয়ালন্দ মোড়ের জমজম আইসক্রিম কারখানাকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা দৌলতদিয়ায় আগ্নেয়াস্ত্র ও ইয়াবাসহ ৩ ছিনতাইকারী গ্রেফতার রাজবাড়ীতে অনুমোদনহীন কারখানায় রঙ ও কেমিক্যাল দিয়ে তৈরি হচ্ছে আইসক্রিম! ভেঙে ফেলা হচ্ছে রাজবাড়ীর দেড় শ’ বছরের নিদর্শন ‘লাল ভবন’ রাজবাড়ীতে স্কুলছাত্রীর নগ্ন ছবি ধারণ করে ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি রাজবাড়ীতে প্রতিবন্ধী তরুণীকে ধর্ষণ ও অন্তঃসত্ত্বার ঘটনায় লম্পট মিন্টু গ্রেফতার রাজবাড়ীতে লম্পটের ধর্ষণে প্রতিবন্ধী তরুণী অন্তঃসত্ত্বা রাজবাড়ীতে তামাকে ছড়াচ্ছে বিষ, উর্বরতা হারাচ্ছে ফসলি জমি

স্বাক্ষর জালিয়াতি করে রাজবাড়ী জেলা পরিষদের সদস্য মজনুকে ফাঁসানোর ষড়যন্ত্র

News

রাজবাড়ী : রোববার (২৪ ফেব্রুয়ারি) রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের স্বাক্ষরিত দরখাস্তে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বরাবর জেলা পরিষদ সদস্য মো. মিজানুর রহমান মজনুর বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাৎসহ বিভিন্ন অভিযোগ করা হয়। তবে যেসকল চেয়ারম্যান ও সদস্যদের নামে ওই স্বাক্ষর তারাই বলছেন স্বক্ষরগুলো জাল করে মিজানুর রহমান মজনুকে ফাঁসানোর ষড়যন্ত্র করছে একটি চক্র।

স্বাক্ষর জালিয়াতির মাধ্যমে ষড়যন্ত্রের বিষয়টি উল্লেখ করে মঙ্গলবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফকীর আব্দুল জব্বারের কাছে দরখাস্ত দিয়েছেন মৃগী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম সাগর এবং মদাপুর ও মাঝবাড়ী ইউনিয়নের কিছু সদস্যরা।

দরখাস্তে বলা হয়, রোববার (২৪ ফেব্রুয়ারি)  জেলা পরিষদের সদস্য মো. মিজানুর রহমান মজনুর বিরুদ্ধে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বরাবর মৃগী ইউনিয়নের নির্বাচিত চেয়ারম্যান, সদস্য  এবং মাঝবাড়ী ও মদাপুর ইউপির সদস্যদের স্বাক্ষরিত যে অভিযোগপত্রটি দেওয়া হয়েছে, তা মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। ওই অভিযোগপত্রের স্বাক্ষরের সঙ্গে তাদের কোন সর্ম্পৃক্ততা নেই এবং তাদের স্বাক্ষর জাল করা হয়েছে। মাঝাবাড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কাজী শরিফুল ইসলাম ও মদাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম মৃধা তাদের স্বাক্ষর জাল করে জেলা পরিষদের কাছে হস্তান্তর করেছে, যা আইনসঙ্গত নয়।

দরখাস্তে মিজানুর রহমান মজনুর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারী দুই ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানানো হয়েছে। সেইসঙ্গে মিজানুর রহমান মজনুকে মিথ্যা অভিযোগ থেকে দায়মুক্তির প্রর্থনা করা হয়েছে।

দরখাস্তের অনুলিপি স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়, স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব, বিভাগীয় কমিশনার ঢাকা, জেলা প্রশাসক ও জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী বরাবর দেওয়া হয়েছে।

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর