,

সর্বশেষ :
দৌলতদিয়ায় নুরু মন্ডলের পক্ষে নৌকায় ভোট চাইলেন শোভন-রাব্বানী উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নুরুল ইসলাম মন্ডলের বিকল্প নেই : ছাত্রলীগ নেতা রুবেল রাজবাড়ীর সামাজিক সংগঠন ‘মানবতার জয়’-এর নবগঠিত কমিটির পরিচিতি সভা পদ্মা সেতুতে মাথা লাগার গুজব ছড়ানোয় রাজবাড়ীতে স্কুলছাত্র আটক অসুস্থ আ’লীগ নেতা সামশুল আলমের পাশে দাঁড়ালেন কাজী ইরাদত আলী রাজবাড়ীতে ভুয়া চিকিৎসক আটক, ২০ হাজার টাকা জরিমানা রাজবাড়ীতে আ’লীগ নেতার দুঃসময়ে পাশে দাড়াচ্ছেন না দলীয় নেতৃবৃন্দ! রাজবাড়ীর নবাগত জেলা প্রশাসককে গ্রাম পুলিশ বাহিনীর ফুলেল শুভেচ্ছা কৃষ্ণের ছদ্মবেশ নিয়েও পুলিশের হাতে ধরা পড়লো পলাতক আসামি লাল্টু গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে রাজবাড়ীতে বিএনপির বিক্ষোভ

কালুখালীর মদাপুর ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে নরসুন্দরকে হুমকি দেওয়ার অভিযোগ

News

রাজবাড়ী : রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার মদাপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মোঃ আবুল কালাম মৃধার বিরুদ্ধে এক নরসুন্দরকে হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার (০৬ মার্চ) নিজের জীবনের নিরপত্তা চেয়ে রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার আসমা সিদ্দিকা মিলির কাছে আবেদন করেছেন শ্যামল কুমার বিশ্বাস নামে ওই নরসুন্দর। শ্যামল মদাপুর ইউনিয়নের ধুবাড়িয়া গ্রামের মৃত নিরাপদ বিশ্বাসের ছেলে।

আবেদনে শ্যামল কুমার বিশ্বাস বলেছেন, ‘আমি একজন দিনমজুর। পেটের তাগিদে বর্তমানে সাভারে একটি সেলুনের দোকানে কাজ করি। বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মদাপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান মনোনয়ন প্রত্যাশী মিজানুর রহমান মজনুর পক্ষে আমি প্রচারণা চালাই। সে কারণে মদাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম মৃধা আমার ওপর ক্ষিপ্ত হয়। এরপর তিনি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবার পর থেকে আমাকে নানাভাবে হয়রানি করে আসছেন। তার ভয়ে আমি বাড়ি ছেড়ে সাভারে বসবাস করি। তার সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে তিনি বিভিন্ন সময় সংখ্যালঘুদের উপর নির্যাতন চালান। কিন্তু ভয়ে এলাকার কেউ মুখ খুলতে সাহস পান না।’

আবেদনে তিনি আরও বলেছেন , ‘আমার প্রতিবেশী কেশব দাস চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম মৃধার একান্ত ব্যক্তিগত লোক। সম্প্রতি চেয়ারম্যান আবুল কালাম মৃধা কেশব দাসকে দিয়ে আমার বিরুদ্ধে ইউনিয়ন পরিষদে অভিযোগ দিয়েছেন। আমি নাকি কেশব দাসের পেঁয়াজের চারায় বিষ দিয়ে নষ্ট করেছি। কিন্তু যেসময় পেঁয়াজের চারা নষ্ট করার কথা বলা হচ্ছে সেসময় আমি সাভারে আমার কর্মস্থলে ছিলাম। গত ১৯ জানুয়ারি চেয়ারম্যান আবুল কালাম মৃধা আমাকে ফোন করে এলাকায় এসে তার সঙ্গে দেখা করতে বলেন। তার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে আমি এলাকায় এসে তার সঙ্গে দেখা করি। সেখানে তিনি আমাকে বলেন, তুমি কেশবের পেঁয়াজের চারা নষ্ট করেছো। আমি এলাকার সকল কৃষকের স্প্রে মেশিন পরীক্ষা করেছি। পরীক্ষায় তোমার স্প্রে মেশিন থেকে বিষ পাওয়া গেছে। তখন আমি তার কাছে পরীক্ষার রিপোর্ট চাই। কিন্তু তিনি আমাকে বলেন, যখন প্রয়োজন হবে তখন দিবো। এরপর থেকে তিনি আমাকে বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছেন এবং বলছেন যে যত দ্রুত সম্ভব কেশবের সঙ্গে ঝামেলা মিটিয়ে ফেলো, নইলে বড় ধরণের ঝামেলা হবে। এমতাবস্থায় আমি পরিবার-পরিজন নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। ’

এ আবেদনের অনুলিপি স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব, ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার ও রাজবাড়ীর জেলা প্রশাসক বরাবর প্রেরণ করেছেন নরসুন্দর শ্যামল কুমার বিশ্বাস।

এদিকে অভিযোগের বিষয়ে কথা বলতে বৃহস্পতিবার (০৭ মার্চ) রাত সোয়া ৯টা থেকে পৌনে ৯টা পর্যন্ত মদাপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম মৃধার ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বরে কয়েকবার কল দেওয়া হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

রাজবাড়ী নিউজ২৪.কম/ আশিক

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর