,

সর্বশেষ :
রাজবাড়ী সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী মীর্জা বাবু বসন্তপুরে ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রমে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার লক্ষ্যে ওয়ার্ড সভা চার বছর পর ছেলেকে ফিরে পেলেন নিজাম, ধন্যবাদ দিলেন পুলিশকে অটিস্টিক শিশু জিহাদ ফিরে পেল পরিবার আকবর আলী মর্জি উচ্চ বিদ্যালয় এমপিওভুক্ত হওয়ায় শিক্ষক শিক্ষার্থীদের মধ্যে আনন্দের জোয়ার রাজবাড়ীতে ফেনসিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক বালিয়াকান্দিতে বড় ভাইয়ের ব্যাটের আঘাতে ছোট ভাইয়ের মৃত্যু মীর মশাররফ হোসেনের ১৭২তম জন্মবার্ষিকী পালিত রাজবাড়ীর কালুখালীতে প্রতিবন্ধী রাখালকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ রাজবাড়ীতে ড. নিম হাকিম গড়েছেন দেশের একমাত্র ঔষধি উদ্ভিদের প্রাকৃতিক জিনব্যাংক

রাজবাড়ীতে লম্পটের ধর্ষণে প্রতিবন্ধী তরুণী অন্তঃসত্ত্বা

News
ছবি- প্রতিকী।

রাজবাড়ী : রাজবাড়ী সদর উপজেলার পাঁচুরিয়া ইউনিয়নের মুকুন্দিয়া গ্রামে মিন্টু মীর (২৮) নামে এক লম্পটের ধর্ষণের শিকার হয়ে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী এক তরুণী (২২) অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েছেন।

এ ঘটনায় বুধবার (৮ মে) প্রতিবন্ধী ওই তরুণীর বোন বাদী হয়ে মুকুন্দিয়া গ্রামের রওশন মীরের ছেলে মিন্টু মীর ও তার চাচাতো ভাই শাজাহান মীরের স্ত্রী বিউটি বেগম (৪০) কে আসামি করে রাজবাড়ী সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ জানিয়েছে, ওই তরুণীর ডাক্তারি পরীক্ষা ও বিজ্ঞ আদালতে জবানবন্দী রেকর্ডের প্রক্রিয়া চলছে।

ওই প্রতিবন্ধী তরুণীর বোন বলেন, ‘আমার বুদ্ধি প্রতিবন্ধী বোনকে প্রায়ই কু-প্রস্তাব দিতো মিন্টু মীর। আট মাস আগে এক বিকেলে মিন্টু মীরের চাচাতো ভাবী বিউটি বেগমের বাড়ির সামনে দিয়ে হেটে যাওয়ার সময় তিনি টিভি দেখার কথা বলে আমার বোনকে ডেকে তার একতলা বিল্ডিংয়ের ছাদের উপর সিঁড়ি ঘরে নিয়ে যান। এরপর তিনি মোবাইলে মিন্টু মীরকে সেখানে ডেকে নেন। পরে বিউটির সহযোগীতায় মিন্টু মীর আমার বোনকে একাধিকবার জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। এ ঘটনার পর তারা আমার বোনকে ঘটনাটি কাউকে না বলার জন্য প্রাণনাশের হুমকি দেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘মিন্টু মীরের ধর্ষণের ফলে আমার বোন অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। পরবর্তীতে তার পেটের আকার বড় হতে থাকে। তখন আমরা ভেবেছিলাম ওর পেটে টিউমার হয়েছে। যার কারণে গত ৭ মে রাজবাড়ী শহরের নুর ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে ওর আল্ট্রাস্নোগ্রাম করানো হয়। আল্ট্রাস্নোগ্রাম রিপোর্টে কর্তব্যরত চিকিৎসক আমাদের জানান ওর পেটে আট মাসের বাচ্চা রয়েছে। এ ঘটনার শোনার পর আমরা তাকে অনেক জিজ্ঞাসাবাদ করলে এক পর্যায়ে সে ধর্ষণের ঘটনার বর্ণনা করে।’

রাজবাড়ী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) স্বপন কুমার মজুমদার বলেন, ‘মামলা দায়ের হবার পর থেকে মিন্টু মীর ও তার ভাবী বিউটি বেগম পলাতক রয়েছে। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। মেয়েটি বুদ্ধি প্রতিবন্ধী হলেও কথা বলতে পারে। আমাদের পক্ষ থেকে তার ডাক্তারি পরীক্ষা ও বিজ্ঞ আদালতে জবানবন্দী রেকর্ডের প্রক্রিয়া চলছে।’

রাজবাড়ী নিউজ২৪.কম/ আশিক

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর