,

নিজদলীয় নেতাকর্মীদের প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছেন কাজী সাইফুল : সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ

News

রাজবাড়ী : রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নিজদলীয় বিভিন্ন নেতাকর্মীকে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছেন নৌকার প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী সাইফুল ইসলাম। এমন অভিযোগ করেছেন কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।

শনিবার (০১ জুন) দুপুরে রাজবাড়ী প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিযোগ করেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে রাজবাড়ী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের  প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মিজানুর রহমান মজনু, কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রশিদ, কালুখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও বোয়ালিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোছা. হালিমা বেগম, সাওরাইল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম আলী, কালিকাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান নবাব, মৃগী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শহিদুজ্জামান সাগর, কালুখালী থানা আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক মো. ইউসুফ হোসেন, সাওরাইল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আকামত আলী মন্ডল, জেলা পরিষদের সদস্য খায়রুল ইসলাম খয়ের, উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য জাকির হোসেন, রতনদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহা আজিজসহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মিজানুর রহমান মজুন তার বক্তব্যে বলেন, কালুখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী কাজী সাইফুল ইসলাম গত শুক্রবার সংবাদ সম্মেলন করে মিথ্যাচার করছেন। কাজী সাইফুল ইসলাম অন্ধকার জগতের মানুষ ছিলেন। তার বিরুদ্ধে হত্যা, ডাকাতিসহ বিভিন্ন মামলা ছিল। তাকে ভালো করার উদ্যেশ্যে প্রথমে মাঝবাড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত করা হয়। এরপর উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে আমরা সবাই কষ্ট করে তাকে চেয়ারম্যান বানিয়েছিলাম। তিনি চেযারম্যান হওয়ার পর থেকেই তার আসল খেলা শুরু করেন। আমরা অনেকেই তার ষড়যন্ত্রের শিকার। তিনি চেয়ারম্যান হওয়ার পর বিলাসবহুল বাড়ী করেছেন। অনেক সম্পতি করেছেন। উনি বিগত দিনে বলে বেড়িয়েছেন তিনি আর নির্বাচন করবেন না। এজন্য তিনি বিগত দুই বছর ধরে আওয়ামীলীগের কোন কর্মকান্ডে তিনি ছিলেন না। তিনি আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেয়েছেন ঠিকই কিন্তু উনার কোন জনসমর্থন নেই। তিনি জনসমর্থনহীন হয়ে পড়েছেন। এমনকি আওয়ামীলীগের কোন নেতাকর্মীর সাথে উনার সর্ম্পক নেই। তিনি এখন বহিরাগত সন্ত্রাসী ও তার ভাইকে দিয়ে আমাদের নানা ভাবে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। ফলে আমরা শংকিত হয়ে পড়েছি।

মিজানুর রহমান মজনু আরও বলেন, চেয়ারম্যান সাইফুল আমাকে মেরে ফেলার জন্য বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়ে আসছেন। আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। কিছু দিন আগে সাইফুলের ভাই মাঝবাড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কাজী শরিফুল আমাকে গাড়ির নিচে পিশে হত্যা করার হুমকি দিয়েছেন। তাই আমি বর্তমানে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। সে কারনেই আজ সাংবাদিকদের মাধ্যমে প্রশাসনের কাছে জানাচ্ছি যে- আমি বাচঁতে চাই, আমাকে নিরাপত্তা দিন।

তিনি আরও বলেন, সাইফুল মূলত করতো বিএনপির রাজনীতি। এখনো তার বিএনপির নেতার্মীদের সাথে নিবির সম্পর্ক রয়েছে।

কালুখালী উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান নবাবসহ অন্যন্য চেয়ারম্যানরা তাদের বক্তব্যে বলেন, দলীয়ভাবে প্রার্থী বাছাইয়ের সময় আমরা স্থানীয় নেতাকর্মীরা সাইফুলকে দলীয় প্রার্থী না করার পক্ষে অবস্থান নিয়েছিলাম। কিন্তু তারপরেও তাকে আওয়ামী লীগ থেকে মননোনীত করা হয়েছে। এখনো পর্যন্ত তিনি কোন নেতাকর্মীকে ফোন করে বা ডেকে বলেননি তার পক্ষে নির্বাচনী প্রচার প্রচারণা চালাতে।  সে কারণেই আমরা তাকে ঘৃনা করে তার থেকে দূরে সরে আছি।

উল্লেখ্য, আগামী ১৮ জুন রাজবাড়ী জেলার কালুখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। পঞ্চম ধাপে অনুষ্ঠিত এ নির্বাচনে ১৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তাদের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন প্রার্থী রয়েছেন। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কাজী সাইফুল ইসলাম (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক নূরে আলম সিদ্দিকী হক (মোটরসাইকেল) ও রতনদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আলিউজ্জামান চৌধুরী টিটো (আনারস)।

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর