,

সর্বশেষ :
রাজবাড়ীর কৃতি সন্তান সাবেক জেলা জজ শামসুল হক এর বড় সন্তান শামসুল আরেফিন করোনা পজেটিভ। ভাড়া বকেয়া : শিক্ষার্থীর মূল্যবান সার্টিফিকেট ভাগাড়ে ফেললেন বাড়িওয়ালা। বসন্তপুর ইউপির মেম্বার জানে আলমের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনৈতিক কর্মকান্ডের অভিযোগ রাজবাড়ীর বসন্তপুর ইউনিয়নে বিট পুলিশিং কার্যক্রম শুরু দৌলতদিয়ায় যৌনকর্মী ও শিশুদের মধ্যে বিস্কুট বিতরণ রাজবাড়ীতে আশঙ্কাজনকভাবে বাড়ছে করোনা সংক্রমণের হার – Facebook Live রাজবাড়ীতে আশঙ্কাজনকভাবে বাড়ছে করোনা সংক্রমণের হার রাজবাড়ীতে গণমাধ্যমকর্মীদের সুরক্ষা সামগ্রী দিলো পারলিন গ্রুপ সেই মেধাবী শিক্ষার্থী শিমলার পাশে ‘রাজবাড়ী ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন’ বালিয়াকান্দিতে অস্ত্র-গুলিসহ ডাকাত দলের সদস্য আটক

অটিস্টিক শিশু জিহাদ ফিরে পেল পরিবার

News

রাজবাড়ী নিউজ২৪.কম : ফরিদপুর সদর উপজেলা থেকে হারিয়ে যাওয়া এক অটিস্টিক শিশুকে উদ্ধার করে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিয়েছে খানখানাপুর তদন্তকেন্দ্রের পুলিশ।

রোববার (২৪ নভেম্বর) বিকেলে খানখানাপুর ছোট ব্রিজ এলাকা থেকে স্থানীয়দের সহযোগিতায় শিশুটিকে উদ্ধার করে পুলিশ। পরে সন্ধ্যায় তাকে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

শিশুটির নাম জিহাদ শেখ (১২)। সে ফরিদপুর সদর উপজেলার ঈশান গোপালপুর ইউনিয়নের চর রশিপুর গ্রামের জসীম শেখের ছেলে।

জিহাদের মা সেলিনা বেগম জানান, ‘রোববার দুপুরে তিনি জিহাদকে ভাত খেতে দিয়ে বাড়ির পাশে মাঠে ছাগল আনতে যান। এসে দেখেন জিহাদ বাড়িতে নেই। এরপর আশপাশের এলাকায় তাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও পাওয়া যাচ্ছিলোনা। পরে সন্ধ্যায় তারা খবর পান জিহাদ খানখানাপুর তদন্তকেন্দ্রের পুলিশের হেফাজতে রয়েছে।’

খানখানাপুর পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, ‘বিকেলে খানখানাপুর ছোট ব্রিজ এলাকায় মহাসড়কের পাশে শিশুটিকে এলোমেলোভাবে ঘোরাফেরা করতে দেখে স্থানীয়রা আমাকে খবর দেন। পরে আমি এসে শিশুটিকে উদ্ধার করে হেফাজতে নিই। শিশুটি অটিস্টিক; তবে সে কথা বলতে পারে। শিশুটিকে তার ঠিকানা জিজ্ঞেস করলে সে তার নানা বাড়ি কালুখালী উপজেলায় বলে জানায়। এরচেয়ে বেশি কিছু সে বলতে পারছিলোনা। এরপর কালুখালী উপজেলায় আমাদের বিভিন্ন সোর্সের মাধ্যমে খোঁজ করে শিশুটির নানা বাড়ির ঠিকানা বের করা হয়। পরে নানা বাড়ির লোকজনের মাধ্যমে তার বাবা-মায়ের সঙ্গে যোগাযোগ করে সন্ধ্যায় তাকে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।’

ইন্সপেক্টর শহীদুল ইসলাম আরও বলেন, ‌’শিশুটি সময়মতো উদ্ধার না হলে হয়তো মহাসড়কে অনাকাঙ্খিত কোন দুর্ঘটনার কবলে পড়তে পারতো। স্থানীয়রা সচেতন বলেই তারা শিশুটিকে এলোমেলোভাবে ঘোরাফেরা করতে দেখে আমাকে খবর দিয়েছেন। এজন্য আমি তাদেরকে ধন্যবাদ জানাই।’

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর