,

রাজবাড়ীর তারুণ্যের প্রতীক রিন্টু ভাই চলে গেলেন না ফেরার দেশে

News

রাজবাড়ী : রাজবাড়ীর তারুণ্যের প্রতীক, জেলা ডিবেট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি, সামাজিক সংগঠন সহযাত্রা-এর আহবায়ক ও সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) জেলা শাখার অন্যতম সদস্য মেজবাহ উল করিম রিন্টু (৪৫) মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

রোববার (৯ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টার দিকে রাজবাড়ী সরকার আদর্শ মহিলা কলেজের সামনে অবস্থিত নিজ বাড়িতে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

মৃত্যুকালে তিনি ১০ ভাই ও ৩ বোনসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন রেখে গেছেন। তার অকাল মৃত্যুতে ‘রাজবাড়ী নিউজ২৪.কম’ পরিবার গভীরভাবে শোকাহত।

মেজবাহ উল করিম রিন্টুর বড়ভাই ও একুশে পদক প্রাপ্ত চিত্রশিল্পী অধ্যাপক মুনসুর উল করিম ঠান্ডু বলেন, ‘রিন্টু দীর্ঘদিন ধরে ক্লোন ক্যান্সারে ভুগছিলো। তাকে প্রতিবেশী দেশ ভারত এবং দেশের প্রতিষ্ঠিত হসপিটালের চিকিৎসকদের ব্যবস্থাপত্রে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হচ্ছিলো। গত ১৫ দিন ধরে তার শারীরিক অবস্থার চরম অবনতি হতে থাকে। অবশেষে আজ সকালে সকলকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমায় সে। আজ বিকাল ৫টায় রাজবাড়ী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। পরে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে।’

রাজবাড়ী ডিবেট অ্যসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ফারুক উদ্দিন বলেন, ‘রিন্টু ভাই ছিলেন রাজবাড়ীর তারুণ্যের প্রতীক, একজন সদালাপী এবং উদার মানসিকতাসম্পন্ন ব্যক্তি। লালন ভক্ত রিন্টু ভাই ছেলেবেলা থেকেই ছিলেন বৃক্ষপ্রেমী। জেলা শহরের বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে হাজারো বৃক্ষরোপন করেছেন তিনি। এছাড়াও তিনি বজ্রপাত থেকে মুক্তি পেতে জেলার বিভিন্ন সড়কের পাশে রোপন করেছেন হাজার হাজার তাল বীজ ও গাছ। তিনি রাজবাড়ীর শিক্ষার্থীদের নিয়ে বিতর্ক প্রতিযোগীতা ও উৎসবের আয়াজন করতেন। তার মতো মানুষের অকাল মৃত্যু আমাদের সকলের জন্য অত্যান্ত বেদনাদায়ক।’

Comments

comments

     এ জাতীয় আরো খবর