ইংল্যান্ডকে ২ – ১ গোলে হারিয়ে জয়ের শুরু ইতালির

|রাজবাড়ী নিউজ24

প্রকাশিত: ১:০৭ পূর্বাহ্ণ ,১৫ জুন, ২০১৪ | আপডেট: ১:০৭ পূর্বাহ্ণ ,১৫ জুন, ২০১৪
পিকচার

স্পোর্টস ডেস্ক : : জানলুইজি বুফ্ফনকে ছাড়াই ব্রাজিল বিশ্বকাপের শুরুটা দারুণ হল ইতালির। নিজেদের প্রথম ম্যাচে ইংল্যান্ডকে ২-১ গোলে হারিয়েছে চারবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

 এই জয়ে মৃত্যুকূপ ‘ডি’ গ্রুপ থেকে দ্বিতীয় রাউন্ডে উত্তরণের পথে অনেকটা এগিয়ে গেল চেজারে প্রানদেল্লির শিষ্যরা।

ইতালির পক্ষে একটি করে গোল করেন ক্লাওদিও মার্কিসিও ও মারিও বালেতোল্লি। ইংল্যান্ডের একমাত্র গোলটি আসে ড্যানিয়েল স্টারিজের পা থেকে।

শনিবার উষ্ণ ও আর্দ্র মানাউসের আরেনা আমাজনিয়ায় পঞ্চম মিনিটে প্রথম সুযোগটি পেয়েছিল ইংল্যান্ডই। কিন্তু রহিম স্টার্লিংয়ের জোরালো শট অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। পরের মিনিটে জর্ডান হেন্ডারসনের দারুণ একটি প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে দেন ইতালির গোলরক্ষক সালভাতোরে সিরিগু।

প্রথম পাঁচ মিনিটের প্রাণবন্ত ফুটবলের পর হঠাৎ করে ঘটে ছন্দপতন। নিজেদের রক্ষণ সামলে দুই দল আক্রমণে যাওয়ায় তেমন কোনো পরিস্কার সুযোগ তৈরি হচ্ছিল না।

২২তম মিনিটে ড্যানি ওয়েলবেকের নিচু ক্রস ইতালির ডিফেন্ডার আন্দ্রেয়া বারজাইলির পায়ে লেগে উপর দিয়ে চলে যায়। ভাগ্য ভাল ছিল চারবারের চ্যাম্পিয়নদের। অল্পের জন্য বল জালে যায়নি আর একটুর জন্য বলের নাগাল পাননি স্টার্লিং।

অবশেষে ৩২তম বুদ্ধিদীপ্ত গোলে খেলায় গতি আনে ইতালি।

গোলের উৎস আন্তোনিও কানদ্রেভার কর্নার। গোলেমুখে বল না দিয়ে দিয়েছিলেন আন্দ্রেয়া পিরোলেকে। ‘ডামি’ করে এই প্লেমেকার বোকা বানান সঙ্গে লেগে থাকা স্টার্লিংকে। বল পেয়ে যান অরক্ষিত মার্কিসিও। তার জোরালো শট ঝাঁপিয়ে পড়েও ঠেকাতে পারেনেনি জো হার্ট।

গোল শোধ করতে দুই মিনিটের বেশি সময় নেয়নি ইংল্যান্ড। গোলের স্থপতি স্ট্রাইকার ওয়েন রুনি। তার মাপা ক্রস খুবই সুবিধাজনক জায়গায় খুঁজে পেয়েছিল স্টারিজকে। বল জালে জড়াতে কোনো ভুল করেননি তিনি।

প্রথমার্ধের শেষ মিনিটে ইতালির দুটি প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়ে যায়। পিরলোর চিপ থেকে ডি বক্সে বল পেয়েছিলেন বালোতেল্লি। গোলরক্ষক হার্টের মাথার ওপর দিয়ে চিপ করেছিলেন ইতালির এই স্ট্রাইকার। কিন্তু গোললাইন থেকে হেড করে বল বিপদমুক্ত করেন ফিল জাগিয়েলকা।

পর মুহূর্তে আরেকটি সুযোগ এসেছিল চারবারের চ্যাম্পিয়নদের সামনে। মার্কো ভের্রাত্তির জোরালো শট হার্টকে পরাস্ত করলেও বারে লেগে প্রতিহত হলে হতাশায় পুড়তে হয় ইতালিকে।
দ্বিতীয়ার্ধে আবার এগিয়ে যায় ইতালি। কানদ্রেভার মাপা ক্রস থেকে গোলটি করেন বালেতোল্লি। এসি মিলান স্ট্রাইকারের হেড ঝাঁপিয়ে পড়েও ঠেকাতে পারেননি হার্ট।

পিছিয়ে পড়ার পর ইতালির রক্ষণভাগের ওপর ভীষণ চাপ তৈরি ইংল্যান্ড। তবে চোটে পড়া বুফ্ফনের বদলে খেলতে নামা সিরিগুকে পরাস্ত করা সম্ভব হচ্ছিল না তাদের। ইতালি মাঝে মধ্যেই আক্রমণে যাওয়ায় রক্ষণের দিকেও মনযোগ দিতে হচ্ছিল রয় হজসনের শিষ্যদের।

চেজারে প্রানদেল্লি ৭৩তম মিনিটে বালোতেল্লিকে তুলে নেয়ার পর আর রক্ষণ নিয়ে খুব একটা ভাবতে হয়নি ১৯৬৬ সালের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের।

সমতা ফেরানোর প্রচেষ্টায় মরিয়া হজসন কোনো অস্ত্রই বাকি রাখেননি। অ্যাডাম লালানা, রস বার্কলের মতো তরুণদের নামিয়েও চেষ্টা করেছিলেন তিনি। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি।

ইনজুরি সময়ে ব্যবধান বাড়ানোর দারুণ একটি সুযোগ এসেছিল ইতালির সামনে। পিরলোর ফ্রিকিক হার্টকে পরাস্ত করলেও ক্রসবারে লেগে সেই সুযোগটি হাত ছাড়া হয়ে যায়। তবে তিন পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়তে কোনো সমস্যা হয়নি ইতালির।

এর আগে ‘ডি’ গ্রুপের প্রথম ম্যাচে উরুগুয়েরকে ৩-১ গোলে হারিয়ে এবারের আসরের প্রথম অঘটনের জন্ম দিয়েছে কোস্টা রিকা

রাজবাড়ি নিউজ ২৪.কম 

স্বপ্ন / ১৫ জুন ২০১৪


এই নিউজটি 1215 বার পড়া হয়েছে

Comments

comments